কাহারোলে বোরো ধানের বীজ বোপন ও বীজতলা তৈরিতে ব্যস্ত সময় পার করছে কৃষক

  

পিএনএস, কাহারোল (দিনাজপুর) প্রতিনিধি : কাহারোলে ইরি রোরো মৌসুমকে সামনে রেখে বোরো ধানের বীজ বোপন ও বীজতলা তৈরিতে ব্যস্ত সময় অতিবাহিত করছে কৃষকরা। দিনাজপুরের কাহারোল উপজেলার ৬টি ইউনিয়নে চলতি আমন মৌসুমের আমন ধান কাটা শেষ। কিন্তু এবার অসময়ে বন্যার কারণে আমন ধানের ব্যাপক ক্ষতি হওয়ার পরেও আশার আলো দেখছিলেন কৃষকেরা। অসময়ে বৃষ্টি ও ব্লাষ্ট রোগে আমন ধানের ব্যাপক ক্ষতি হওয়ার ফলে এবার নতুন করে ক্ষতি পুষিয়ে নিতে এখন বোরো ধানের বীজ তলা তৈরিতে ব্যস্ত সময় পার করছেন অত্র উপজেলার কৃষকেরা। বোরো ধানের বীজের দিন দিন চাহিদা বাড়ায় কৃষক ও ব্যবসায়ীরা বোরো মৌসুমে বোরো বীজের দাম বাড়িয়ে দিয়েছেন অধিক মুনাফা লাভের আশায়।

উপজেলার মুকুন্দপুর ইউনিয়নের মুকুন্দপুর গ্রামের কৃষক মোঃ হান্নান মিঞা বলেন,গত বছর বোরো ধানের বীজ ৩০টাকা থেকে ৩৫ টাকা কেজি দরে কাহারোল বাজার থেকে ক্রয় করেছিল। বর্তমানে বাজারে সেই বীজের দাম ৪৫ টাকা ৫০ টাকা যা ১০ কেজি ধান বীজের দাম ৪৫০ টাকা থেকে ৫০০ টাকা পযর্ন্ত বিক্রি করা হচ্ছে। অপরদিকে উপজেলার রামচন্দ্রপুর ইউনিয়নের রামচন্দ্র পুর গ্রামের কৃষক মোঃ শাহজাহান আলী ,সরঞ্জা গ্রামের মোঃ হজরত আলী এবং কাজী কাটনা গ্রামের কৃষক মোঃ মাহতাব আলী জানান, এখন আমন ধান কাটার পর ধান মাড়ায়ে ব্যস্ত কৃষকরা। চলতি মৌসুমে আমন ধানের চাষাবাদ কিছুটা কম হওয়ায় খুব বিপদে পড়েছি আমরা। ধানের ফলন ভালো পেয়েও কিন্তু দাম ভালো না পাওয়ায় চিন্তিত আমরা কৃষকরা।

কাহারোল উপজেলা কৃষি অফিস সুত্রে জানা যায়, চলতি মৌসুমে এই উপজেলায় বোরো চাষের লক্ষ মাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে ৬ হাজার ২৫০ হেক্টর জমিতে। গত বছরের তুলনায় এ বছর ১ হাজার হেক্টর জমিতে বোরো চাষাবাদ বেশি হবে বলে আশা করা হচ্ছে। এর পাশা-পাশি এবার ৩ শত ২০ হেক্টর জমিতে বীজ তলার লক্ষ মাত্রা নির্ধারণ করেন উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর। সব মিলে বর্তমানে কৃষকেরা বীজ তলা তৈরিতে ব্যস্ত সময় অতিবাহিত করছেন অত্র উপজেলার কৃষকরা। উপজেলা কৃষি অফিসার কৃষিবিদ মোঃ শামীম জানান, বোরো ধানের বীজতলা তৈরি ও পরিচর্যা সম্পর্কে কৃষকদেরকে বিভিন্ন পরামর্শ প্রদান করছেন ।

পিএনএস/মোঃ শ্যামল ইসলাম রাসেল


 

@PNSNews24.com

আপনার মন্তব্য প্রকাশ করুন
Developed by Diligent InfoTech