সরিষার বাম্পার ফলনে খুশি কৃষক

  

পিএনএস ডেস্ক : হিলি সীমান্তে এলাকায় এবার রবি মৌসুমে সরিষার ব্যাপক চাষ হয়েছে। ইতোমধ্যে উপজেলার প্রতিটি মাঠে শুরু হয়েছে সরিষা কাটা-মাড়াই। এ বছর আবহাওয়া অনূকুলে থাকায় এ উপজেলায় সরিষার বাম্পার ফলন হয়েছে। এছাড়াও দাম ভালো পাওয়ায় খুশি কৃষক।

আমন ধান কাটার পর এই অঞ্চলের কৃষকরা বাড়তি ফসল হিসেবে সরিষা চাষ করে থাকে। সরিষা বিক্রি করে যে টাকা পায় ওই টাকা দিয়ে আবার ইরি বোরো মৌসুমে ধান রোপণ করে তারা। এবার সরিষা ফলন ও দাম ভালো পাওয়ায় খুশি কৃষকরা।

জালালপুর গ্রামের কৃষক সোবহান বলেন, আমি প্রতি বছর আমন ধান কাটার পর জমিতে সরিষা চাষ করি। এবার আবহাওয়া অনুকূলে থাকায় সরিষার ফলন ভালো হয়েছে। আমি সরিষা কাটাই-মাড়াই শেষ করেছি। ফলন ভালো পেয়েছি এবং বাজারে দামও ভালো পাচ্ছি।

খাট্টাউছনা গ্রামের কৃষক আবুল বলেন, সরিষা চাষে খরচ কম, লাভ বেশি। আর সরিষা চাষ করলে বোরো রোপণের সময় আলাদাভাবে ওই জমিতে আর সার দিতে হয় না। সরিষা বিক্রি করে টাকাও পাওয়া যায়, আবার তেলের চাহিদাও মেটাতে পারি।

কাদিপুর গ্রামের কৃষক সুমন বলেন, বাড়তি ফসল হলেও এবার বাজারে এর দাম ভালো আছে। প্রতি বিঘায় সরিষার ফলন ৪ থেকে ৫ মণ পাওয়া যাছে। বাজারে প্রতি মণ সরিষা ১৬শ' টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে। এতে আমরা খুব খুশি। এই টাকা দিয়ে বোরো রোপণ করতে পারবো আমরা।

হাকিমপুর উপজেলা কৃষি র্কমর্কতা ড. মমতাজ বেগম বলেন, কৃষকরা এই ফসলটাকে বাড়তি আয়ের উৎস হিসেবে চাষাবাদ করে থাকে। আমরা প্রতি বছর সরিষা চাষের জন্য কৃষকদের সরকারিভাবে প্রণোদনা দিয়ে থাকি; এবারও দিয়েছে।

তিনি বলেন, এবার আমাদের এই উপজেলায় সরিষা চাষের লক্ষ্যমাত্রা ছিলো ৮২০ হেক্টর। লক্ষ্যমাত্রা ছাড়িয়ে এর চাষ হয়েছে ৮২৫ হেক্টর জমিতে। ইতিমধ্যে কৃষকরা সরিষা কাটা শুরু হয়েছে, ফলনও ভালো পাচ্ছে। আশা করছি বাজারে ভালো দামও পাবেন তারা।

পিএনএস/এসআইআর

 

@PNSNews24.com

আপনার মন্তব্য প্রকাশ করুন