এক মুলা ৮ কেজি

  

পিএনএস ডেস্ক:সোনাহদ গ্রামের অবসরপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ আমজাদ হোসেন বলেন, হাফিজুর রহমান গত বছরও মুলার আবাদ করে যার মধ্যে একটি মুলার ওজন হয়েছিল প্রায় ৯ কেজি

রাজশাহীর বাঘায় আড়ানী ডিগ্রি কলেজের মনোবিজ্ঞানের অবসরপ্রাপ্ত শিক্ষক হাফিজুর রহমানের জমিতে ৮ কেজি ৫৭ গ্রাম ওজনের একটি মুলার ফলন হয়েছে। শনিবার (১৩ ফেব্রুয়ারি) সকালে জমি থেকে মুলাটি তোলেন তিনি।

স্থানীয়রা জানায়, উপজেলার আড়ানী ইউনিয়নের সোনাদহ গ্রামের হাফিজুর রহমান চলতি বছরের ৩০ ডিসেম্বর অবসর গ্রহণ করেন। তারপর অবসর সময়ের শখ করে তিনি বাড়ির পাশের ফাঁকা জমিতে মুলার চাষ শুরু করেন। সম্প্রতি বাগানের অন্য মুলাগুলো তুলে নিলেও একটি মুলা তিনি আলাদাভাবে পরিচর্যা করতে থাকেন।

এ বিষয়ে সোনাহদ গ্রামের অবসরপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ আমজাদ হোসেন বলেন, "হাফিজুর রহমান গত বছরও মুলার আবাদ করে। যার মধ্যে একটি মুলার ওজন হয়েছিল প্রায় ৯ কেজি।"

এত বড় আকারের মুলা চাষের পিছনের গল্প জানতে চাইলে হাফিজুর রহমান বলেন, "আমি ছোট থেকে নিজের জমিতে বিভিন্ন সবজির আবাদ করি। গত বছর থেকে জমিতে দুই-একটি মুলা রেখে দিয়ে বিশেষভাবে যত্ন নিতে থাকি। এতো বড় আকারের মুলা হতে পারে এটা আমার জানা ছিল না। কোথাও কৃষি মেলা হলে সেখানে নিয়ে যাবার ইচ্ছা ছিল। যদিও করোনাভাইরাসের কারনে এবছর মেলা না হওয়ায় নিয়ে যেতে পারিনি।"

এ বিষয়ে বাঘা উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা শফিউল্লাহ সুলতান বলেন, "বিশেষ পরিচর্যা নিলে ও জমির উর্বরতার বেশি থাকলে কখনও কখনও বৃহৎ আকারের সবজি উৎপাদন সম্ভব।"

পিএনএস/এএ

 

@PNSNews24.com

আপনার মন্তব্য প্রকাশ করুন