পণ্যমূল্য বৃদ্ধিতে বেপরোয়া এক শ্রেণীর ব্যবসায়ী

  

পিএনএস (মোহাম্মদ জাহাঙ্গীর আলম প্রধান) : বাজারে কোনো পণ্যের ঘাটতি নেই, নেই কমতি; অথচ মূল্য ঊর্ধ্বমুখী। তরকারির মূল্যে আগুন লেগেছে বললে কমই বলা হবে। রোজায় খবরদারি হতে পরে, সে জন্য রোজার আগেই বাড়তি দাম আদায় করে নিচ্ছে অসাধু ব্যবসায়ীরা।

ব্যবসা মানব সেবার একটা বড় সুযোগ। ব্যবসা রাসুলের সুন্নাত। যে কারণে ব্যবসাকে হালাল বলা হয়। ফলে মুসলমানদের জন্য বৈধ ব্যবসায় পুণ্য রয়েছে। এমনকি হিন্দু ব্যবসায়ীরা ব্যবসাবৃত্তিকে লক্ষ্মী মনে করে। সততার কারণে অতীতে ব্যবসাবৃত্তিকে ও ব্যবসায়ীকে ভক্তির সঙ্গে দেখা হতো।

হালে দেশে ব্যবসা প্রসার ঘটেছে। ব্যবসায়ীদের সংখ্যা বৃদ্ধি ও ব্যবসায়ে অতিরিক্ত মুনাফা অর্জনের ক্ষেত্রে এখন সেই দৃষ্টিভঙ্গি অনেকটা পাল্টে গেছে।অতি মুনাফা একশ্রেণীর ব্যবসায়ীকে পেয়ে বসেছে। ফলে তারা ব্যবসার নামে যা করছে, সেটা অনেকটা দিনদুপুরে ডাকাতির শামিল।

গরু-খাসি-মুরগির কেজিপ্রতি দাম অনেক ছড়া। রমজানে বেশি প্রয়োজন ভোজ্য তেল ছাড়া এমন সব পণ্যের দাম বেড়েছে। বেড়েছে চিনির দামও। অথচ চিনিকলে অবিক্রীত চিনির পাহাড় জমেছে।বিক্রি না হওয়ায় কয়েক কোটি টাকা বকেয়া পড়েছে আখ চাষিদের।

তিতা করলার কেজি ৮০ থেকে ১০০ টাকা। ৬০ টাকা কেজি সসা। পোটল, ঢেঁড়স, জিঙ্গা ৬০ টাকা কেজির নিচে কোনো তরকারি বাজারে মিলছে না। অথচ উৎপাদনকারী কৃষক কত টাকা কেজিতে পান, সে প্রশ্ন সামনে চলে আসে। মধ্যসত্বভোগীরা এ ক্ষেত্রে অধিক মুনাফা লুটছে।

রমজানে দ্রব্যমূল্য নিয়ন্ত্রনে কাঁচাবাজারে নজরদারি জোরদার করা হবে, খুব ভালো কথা। কিন্তু এখন যারা ইচ্ছেমতো আগাম বাড়িয়ে নিচ্ছে, তাদের ব্যাপারে কিছুই কি করণীয় নেই? এদের এখনই শায়েস্তা করা না গেলে পরে কষ্টকর হবে বৈকি।কষ্ট বাড়বে ক্রেতা সাধারণের।

পচাবাসি ও মানহীন খাবার সর্বোপরি ফরমালিন যুক্ত পণ্যের ব্যাপারে এখনই কড়াকড়ি আরোপ করা দরকার। কদিন আগে কয়েক টন পচা খেজুর উদ্ধারের খবর পাওয়া গেছে। আরো কত জায়গায় এমন খাবার অনুপযোগী অখাদ্য খেজুর মজুদ আছে, সেগুলো খুঁজে বের করা দরকার। অন্যথায় এগুলো কমদামে কিনে খেয়ে বিপাকে পড়তে পারে মানুষ।

রমজানে রোজাদারদের মানহীন ইফতারি পণ্য যেন বাজারাত করা না হয় এবং কাপড়ের ক্ষতিকর রং খাবারে যেন না মেশানো হয়, সেদিকে সংশ্লিষ্টদের বিশেষ দৃষ্টি দিতে হবে। সবচেয়ে বেশি নজরদারি রাখতে হবে পণ্যমূল্য বৃদ্ধি যে না ঘটানো হয়, সেদিকে। অধিক মোনাফা লোভীদের নিয়ন্ত্রণে সাঁড়াশি অভিযান পরিচালনা সময়ের দাবি।


প্রতিবেদক : বিশেষ প্রতিনিধি- পিএনএস

 

@PNSNews24.com

আপনার মন্তব্য প্রকাশ করুন
Developed by Diligent InfoTech