রামগঞ্জে গণধর্ষণের শিকার যুবতী, থানায় মামলা

  

পিএনএস, লক্ষ্মীপুর প্রতিনিধি : লক্ষ্মীপুর জেলার রামগঞ্জে দুই দিন আটক করে এক যুবতীকে গনধর্ষণের অভিযোগে রামগঞ্জ থানায় তিনজনের বিরুদ্ধে একটি ধর্ষনের মামলা করেছেন ভিকটিম নিজেই। সেই নিজেই বাদী হয়ে এ মামলা দায়ের করেন।

রামগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) তোতা মিয়া বৃহস্পতিবার দুপুরে মামলা দায়ের হওয়ার বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। মামলার প্রধান আসামী রাজমিস্ত্রি নোয়াখালীর আনোয়ার হোসেন, ৯ নম্বর ভোলাকোট ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান বশির আহম্মেদ মানিকের ছোট ভাই যুবলীগ নেতা এলজি নাছির ও পারভেজ।

ঘটনাটি ঘটেছে গতকাল বুধবার বিকেলে উপজেলার ৯নং ভোলাকোট ইউনিয়নের আথাকরা গ্রামের ঠাকুর বাড়ির আবদুর রশিদের ভাড়া বসত ঘরে।

স্থানীয় ভোলাকোট ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মোঃ বশির আহম্মেদ মানিকের ছোট ভাই ও স্থানীয় যুবলীগ কর্মী এলজি নাছির ও তার সহযোগী মোঃ পারভেজ ও আনোয়ার হোসেন সহ ৩ জন ওই যুবতীকে জোর করে তুলে নিয়ে কয়েক দফায় ধর্ষণ করে বলে অভিযোগ উঠে। পরে পুলিশের সহযোগীতায় স্থানীয় লোকজন ভিকটিম কে উদ্ধার করে রামগঞ্জ সরকারী হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

এ ঘটনায় স্থানীয়দের সহযোগীতায় পুলিশের হাতে আটকৃকত আনোয়ার হোসেন নোয়াখালী জেলার চরজব্বর থানার রসুলপুর গ্রামের জাহিরের বখাটে ছেলে।

স্থানীয় সূত্র জানায়, নোয়াখালী জেলার হাতিয়া উপজেলার সোনাদিয়া গ্রামের মোঃ আমিন গ্রামের ওই যুবতী কে প্রেমের সূত্রে আনোয়ার হোসেন মোবাইল ফোনে বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে গত ৯ অক্টোবর রাতে দেহলা বেপারী বাড়ির একটি পরিত্যাক্ত বসতঘরে নিয়ে আসে। পরে বিয়ের আশ্বাসে বেশ কয়েক বার আনোয়ার হোসেন ওই যুবতী কে জোর পূর্বক ধর্ষণ করে।

বিষয়টি বশির আহম্মেদ মানিকের ভাই এলজি নাছির ও তার সহযোগী পারভেজ জানতে পেরে ঘটনাস্থলে গিয়ে বিষয়টি সমাধানের কথা বলে আনোয়ার হোসেনের সহযোগীদায় মজির্নাকে গণধর্ষণ করে স্থানীয়দের অভিযোগ।

পরে আশপাশের লোকজনের কাছে জানাজানি হয়ে গেলে ভিকটিম কে বুধবার বিকেলে পার্শ্ববর্তী আথাকরা গ্রামের ঠাকুর বাড়ির আঃ রশিদের পরিত্যাক্ত বসতঘরে নিয়ে গিয়ে আবারো পালাক্রমে ধর্ষণ শুরু করলে যুবর্তীর আত্মচিৎকার স্থানীয় এলাকাবাসী এগিয়ে এসে তাকে উদ্ধার করে পরে রামগঞ্জ থানা পুলিশে খবর দেয়।

পুলিশ ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়ে আনোয়ার হোসেন নামের একজনকে গ্রেফতার করলেও এলজি নাছির ও পারভেজ পালিয়ে যেতে যায়। এদিকে মারাত্মক অসুস্থ্য মর্জিনা বেগমের চিকিৎসার জন্য পুলিশ তাকে রামগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসার জন্য ভর্তি করে।

পরে আজ বৃহস্পতিবার সকালে গণধষণের শিকার ১৬৪ ধারা জবানবন্দি দিয়ে আনোয়ার হোসেন, চেয়ারম্যানের ছোট ভাই বশির আহম্মেদের ছোট ভাই এল জি নাছির ও পারভেজকে আসামী করে মামলা দায়ের করেছেন।

রামগঞ্জ থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মোঃ তোতা মিয়া ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে জানান, এ ঘটনায় আনোয়ার হোসেন নামের একজনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। বাকী আসামীদের গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে।

পিএনএস/মোঃ শ্যামল ইসলাম রাসেল


 

@PNSNews24.com

আপনার মন্তব্য প্রকাশ করুন
Developed by Diligent InfoTech