বাগেরহাটে মেরিন টেকনোলজির অধ্যক্ষের বিরুদ্ধে তদন্ত

  

পিএনএস ডেস্ক: বাগেরহাটের ইনস্টিটিউট অব মেরিন টেকনোলজির ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ মো. সিরাজুল ইসলামের বিরুদ্ধে নানা অনিয়ম ও স্বেচ্ছাচারিতার অভিযোগের তদন্ত শুরু হয়েছে। রোববার ঘটনা তদন্তে আসেন জনশক্তি কর্মসংস্থান ও প্রশিক্ষণ ব্যুরোর পরিচালক প্রশিক্ষণ সাজ্জাদ হোসাইন। তিনি বাগেরহাটের ইনস্টিটিউট অব মেরিন টেকনোলজির সম্মেলন কক্ষে সাড়ে চার ঘণ্টা ধরে শিক্ষার্থী ও শিক্ষকদের কাছে অভিযোগের বিষয়ে লিখিত ও মোখিক তথ্য সংগ্রহ করেন। সোমবারও তদন্তের কাজ চলবে বলে জানিয়েছেন সংশ্লিষ্টরা।

আগামী ২৮ ফেব্রুয়ারি প্রথম ও তৃতীয় পর্বের পরিপূরক পরীক্ষা হবার কথা রয়েছে। তবে ক্যাম্পাস ও হল বন্ধ থাকায় শিক্ষার্থীরা আশপাশের বিভিন্নস্থানে আশ্রয় নিয়ে কষ্টে দিন অতিবাহিত করছে। বাগেরহাট জেলার ইনস্টিটিউট অব মেরিন টেকনোলজিতে দেশের প্রায় ৪০টিরও বেশি জেলার শিক্ষার্থীরা অধ্যনরত।


ইনস্টিটিউটের তৃতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী খালিদ হাসান বাপ্পী বলেন, তদন্ত টিমের প্রধানের কাছে আমরা অধ্যক্ষের নানা অনিয়ম ও দুর্নীতির তথ্য তুলে ধরেছি এবং লিখিত দিয়েছি। আশাকরি তদন্ত শেষে প্রতিষ্ঠান প্রধানের অনিয়মের বিষয়ে কর্তৃপক্ষ ব্যবস্থা গ্রহণ করবেন।

তিনি আরও বলেন, হোস্টেলে নিম্নমানের খাবার সরবরাহ, হোস্টেল কক্ষ শিক্ষার্থীদের না দিয়ে বাইরের লোকের কাছে ভাড়া দেয়া, টাকার বিনিময়ে শিক্ষার্থী ভর্তি, সরকারি এক লাখ ৮৪ হাজার টাকা আত্মসাৎ করে শিক্ষার্থীদের কাছ থেকে গ্যাসের বিলের জন্য জোরপূর্বক টাকা আদায়, হলের পরিচ্ছন্ন কর্মী নিয়োগ না দিয়েও কাগুজে লোক দেখিয়ে মাসে মাসে টাকা উত্তোলনসহ প্রতিষ্ঠান প্রধানের বিরুদ্ধে নানা অনিয়ম-দুর্নীতির সুনির্দিষ্ট অভিযোগ তুলে ধরা হয়েছে।

ইনস্টিটিউটের তৃতীয় বর্ষের ছাত্রী উম্মে কুলসুম বলেন, এক তরফা সিদ্ধান্ত নিয়ে ক্যাম্পাস বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছে। এ অবস্থার মধ্যে আগামী ২৮ ফেব্রুয়ারি প্রথম ও তৃতীয় পর্বের পরিপূরক পরীক্ষা হবার কথা রয়েছে তা না হলে শিক্ষার্থীরা পিছিয়ে পড়বে।

নানা অনিয়ম ও দুর্নীতির অভিযোগে ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ মো. সিরাজুল ইসলামের অপসারণ ও নতুন অধ্যক্ষ পদায়নের দাবিতে সব ধরনের ক্লাস-পরীক্ষা বর্জন করে আন্দোলন শুরু করেন শিক্ষার্থীরা। এক পর্যায়ে ১৫ ফেব্রুয়ারি অনির্দিষ্টকালের জন্য ইনস্টিটিউট বন্ধ ঘোষণা করেছে জনশক্তি কর্মসংস্থান ও প্রশিক্ষণ ব্যুরো। পরে সংশ্লিষ্ট দপ্তর জনশক্তি কর্মসংস্থান ও প্রশিক্ষণ ব্যুরোর পরিচালক প্রশিক্ষণ সাজ্জাদ হোসাইনকে প্রধান করে একটি তদন্ত কমিটি গঠন করেন।

পিএনএস/হাফিজুল ইসলাম

 

@PNSNews24.com

আপনার মন্তব্য প্রকাশ করুন
Developed by Diligent InfoTech