কাপাসিয়ায় প্রতিবন্ধী কিশোরী ধর্ষণের ঘটনায় গ্রেফতার ১ - অপরাধ - Premier News Syndicate Limited (PNS)

কাপাসিয়ায় প্রতিবন্ধী কিশোরী ধর্ষণের ঘটনায় গ্রেফতার ১

  

পিএনএস, কাপাসিয়া প্রতিনিধি : গাজীপুরের কাপাসিয়া উপজেলার প্রত্যন্ত পল্লী গ্রামে দরিদ্র পিতার বাক প্রতিবন্ধী কিশোরী কন্যা (১২) ধর্ষণের ঘটনায় অবশেষে শুক্রবার রাতে প্রতিবেশী ভন্ড হাছেন আলী (৭৫) কে কাপাসিয়া থানা পুলিশ গ্রেফতার করেছে।

গত বৃহস্পতিবার রাতে ওই কিশোরী কন্যা ঘাগটিয়া ইউনিয়নের সিঙ্গুয়া গ্রামে ধর্ষণের শিকার হয় । ধর্ষিতার পরিবারের দারিদ্রতার সুযোগ নিয়ে প্রভাবশালী ধর্ষকের পক্ষ নিয়ে স্থানীয় ইউপি সদস্য ইদ্রিস আলী বিষয়টি কালক্ষেপন করে ধামাচাপা দেয়ার চেষ্টা করছিল বলে অভিযোগ উঠেছে। পরে স্থানীয় সাংবাদিকদের তৎপরতায় উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ মাকছুদুল ইসলামের নির্দেশে ও থানার ওসি’র সহযোগিতায় ধর্ষিতার মা আনোয়ারা বেগম বাদী হয়ে মামলা দায়ের করেছে। শনিবার দুপুরে ধর্ষিতাকে ডাক্তারী পরিক্ষার জন্য গাজীপুর সদর হাসপাতালে এবং ধর্ষককে কোর্টে পাঠানো হয়েছে।

জানাযায়, উপজেলার ঘাগটিয়া ইউনিয়নের সিঙ্গুয়া গ্রামের অন্ধ ভিক্ষুক মজলু মিয়া ও তার স্ত্রী আনোয়ারা উভয়েই গ্রামের বাড়ি বাড়ি ভিক্ষা করে সংসার চালায়। তাদের বারো বছর বয়সী বাক প্রতিবন্ধী কন্যাকে প্রতিদিনের মতো বাড়িতে রেখে গত বৃহস্পতিবার ভিক্ষে করতে বের হয়। সকাল সাড়ে ৮টার দিকে প্রতিবেশী হাছেন আলী ওই কিশোরীকে ফুসলিয়ে পাশ্ববর্তী আছান মাষ্টারের একটি পরিত্যক্ত ঘরে নিয়ে ধর্ষণ করে। এ সময় পাশের বাড়ির আবু সাঈদের স্ত্রী রিমা ও তাজউদ্দীন মাঝির স্ত্রী লাইলী বেগম বিষয়টি দেখে হাতে-নাতে ধর্ষককে ধরে ফেলে। এক পর্যায়ে ধর্ষক হাছেন আলী এলাকা ছেড়ে পালিয়ে যায়। ধর্ষক এলাকার প্রভাবশালী হওয়ায় ধর্ষিতার পরিবার ভয়ে তার বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নিতে পারছিল না। এছাড়া এলাকার স্থানীয় ইউপি সদস্য ইদ্রিস আলী ধর্ষকের পক্ষ নিয়ে বিষয়টি ধামাচাপা দেয়ার চেষ্টা করছিল বলে অভিযোগ উঠেছিল।

এব্যাপারে ঘাগটিয়া ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান শাহীনুর আলম টেলিফোনে জানান, প্রতিবন্ধী ধর্ষনের বিষয়টি তিনি আগে জানতেন না। তবে তিনি যে কোন আইনগত প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহনে সার্বিক সহযোগিতা করবেন বলে জানান।

অভিযুক্ত ইউপি সদস্য ইদ্রিস আলী বাক প্রতিবন্ধী কিশোরী ধর্ষনের ঘটনার সত্যতা স্বিকার করে বলেন, ঘটনাটি তার বাড়ির পাশে। তবে ধর্ষিতার পরিবার ঘটনার সাথে সাথে আইনের আশ্রয় না নেয়ায়, তাতে আমার কিছু করার ছিল না।
উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ মাকছুদুল ইসলাম জানান, প্রতিবন্ধী কিশোরী ধর্ষণের ঘটনাটি জানা ছিল না, সাংবাদিকদের মাধ্যমে জানার পর খোঁজখবর নিয়ে তাৎক্ষনিক বিষয়টি থানা পুলিশকে জানাই। পরে রাতেই ধর্ষককে গ্রেফতার করা হয়েছে।

কাপাসিয়া থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মোহাম্মদ আবুবকর সিদ্দিক জানান, প্রতিবন্ধী ধর্ষণের ঘটনাটি জানার পর তাৎক্ষনিক ব্যবস্থা নিয়ে ধর্ষককে গ্রেফতার করে কোর্টে পাঠানো হয়েছে। প্রতিবন্ধী কিশোরীর ডাক্তারী পরিক্ষার জন্য শনিবার দুপুরে গাজীপুর তাজউদ্দীন আহমদ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

পিএনএস/মো: শ্যামল ইসলাম রাসেল

 

@PNSNews24.com

আপনার মন্তব্য প্রকাশ করুন
Developed by Diligent InfoTech