ডিমলায় পাষন্ড স্বামীর নির্যাতনের স্বীকার অন্তঃসত্ত্বা নারী

  

পিএনএস, ডিমলা প্রতিনিধি: ডিমলায় পাষন্ড স্বামীর নির্যাতনের স্বীকার অন্তঃসত্ত্বা নারী। ঘটনাটি ঘটেছে নীলফামারী ডিমলা উপজেলার ৮ নং ঝুনাগাছ চাপানী ইউনিয়নের পশ্চিম ছাতুনামা গ্রামে। অভিযোগে প্রকাশ একই গ্রামের স্থায়ী বাসিন্দা মোঃ নাবির উদ্দিনের ছেলে জয়নাল আবেদীন (৩৭) এর সঙ্গে মোঃ মনির উদ্দিনের মেয়ে মোছাঃ মঞ্জিলা বেগমের বিবাহ হয় সংসার জীবনে সে ০৩ সন্তানের জননী।

বর্তমানে সে ০৯ মাসের অন্তঃসত্ত্বা মঞ্জিলা বেগম এ প্রতিবেদক কে বলেন আমার স্বামী আমাকে বিভিন্নভাবে নির্যাতন করত কথায় বলে বনে আগুন লাগলে দেখা যায় কিন্তু মনে আগুন দেখা যায় না এমনটি হয়েছে আমার জীবনে। বাঙ্গালী নারী হিসেবে সর্বদায় ভাবতাম বিয়েতো মানুষের জীবনে এক বারেই হয়। এই ভেবে তার অমানুষিক নির্যাতন সহ্য করতাম তারপরেও তার মন পেলাম না । দুই সপ্তাহ আগে আমার অগোচরে পাষন্ড স্বামী পার্শ্ববর্তী গ্রামের এক মেয়েকে বিয়ে করে বাড়ীতে নিয়ে আসে, এরপর গত ০৪ ডিসেম্বর সকাল সাড়ে ১১ টার সময় তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে আমার সঙ্গে আমার শ্বশুড় নাবির উদ্দিন হুকুম দিয়ে বলে বেটিকে মেরে লাশ বানাও এবং বাড়ী থেকে বের করে দাও ।

তার হুকুম পাওয়া মাত্র শ্বাশুড়ী মজিদা বেগম দেবর রুবেল হোসেন ডাং- মার, কিল, ঘুষি মারে এবং ধাক্কাধাক্কি করে আমি নিজেকে রক্ষা করার চেষ্টা করায় আমার স্বামী জয়নাল আবেদীন লাঠি দ্বারা এলোপাতাড়ি মার-ডাং করে এতে নিজেকে বাঁচানোর জন্য চিৎকার করলে স্বামীর বাড়ীর সকলে গলা ধাক্কা দিয়ে বাড়ী থেকে বের করে দিয়ে বলে বাবার বাড়ী থেকে ২ লক্ষ টাকা যৌতুক আনতে পারলে এই বাড়ী আসবি অন্যথায় আসবি না এরপরেও যতি আসো তাহলে বিষ মুখে ঢেলে দিয়ে গলায় ফাঁস দিয়ে মেরে ফেলিবে বলে হুমকি দেন।

এলাকাবাসীর মুঠোফোনে আমার বাবাকে ফোন করিলে তিনি আসিয়া আমার অবস্থা বেগতিক দেখে অটো যোগে ডিমলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স এ ভর্তি করায় । এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত মেডিকেল এ ভর্তি আছেন । এ ব্যাপারে থানায় অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে । অভিযোগের বিষয়টি নিশ্চিত করে ডিমলা থানা অফিসার ইনচার্জ মফিজ উদ্দিন শেখ ।

পিএনএস/এএ

 

@PNSNews24.com

আপনার মন্তব্য প্রকাশ করুন
Developed by Diligent InfoTech