বরিশালে গৃহকর্মীকে ধর্ষণ, গৃহকর্তাসহ গ্রেফতার ৩

  

পিএনএস, বরিশাল :বরিশাল নগরীতে ১৪ বছর বয়সী এক গৃহকর্মীকে মারধর ও ধর্ষণের অভিযোগ পাওয়া গেছে। এই ঘটনায় বরিশাল মেট্রোপলিটন বিমানবন্দর থানা পুলিশ গৃহকর্তাসহ ৩ জনকে গ্রেপ্তার করেছে।

বুধবার (১৩ ফেব্রুয়ারি) রাতে শহরের ২৯ নম্বর ওয়ার্ডের লুৎফর রহমান সড়কের বাসিন্দা মো. মজিবর রহমানের বাসা থেকে ওই গৃহকর্মীকে উদ্ধার করা হয়।

সেই সাথে গ্রেপ্তার করা হয়েছে গৃহকর্তা মো. মজিবর রহমান (৫০), স্ত্রী মোসা. সায়লা রহমান (৩০) এবং তাদের দোকান কর্মচারী মো. মাসুম। তাদের মধ্যে দোকান কর্মচারী মাসুমের বিরুদ্ধে গৃহপরিচারিকাকে ধর্ষণের অভিযোগ রয়েছে বলে জানিয়েছে পুলিশ।

বরিশাল মেট্রোপলিটন বিমানবন্দর থানা পুলিশের ওসি (তদন্ত) আব্দুর রহমান মুকুল জানিয়েছেন, গত ১ বছর আগে ১৪ বছর বয়সের ওই শিশু মেয়েকে তার চাচার কাছ থেকে গৃহের কাজে নিয়ে আসেন মো. মজিবর রহমান হাওলাদার ও তাঁর স্ত্রী মোসা. সায়লা রহমান (৩০)। কিন্তু কাজে কোন ত্রুটি হলে গৃহকর্তা ও তাঁর স্ত্রী প্রায় সময়ই ভিকটিমকে মারধর করে জখম করতেন।

এমনকি কোন কাজে ভুল করলে সায়লা গরম খুন্তি দিয়েও পিটিয়ে শরীরের বিভিন্ন স্থানে জখম করেন। গৃহকর্তা মো. মজিবর রহমান হাওলাদার গরম আয়রণ (ইস্ত্রি) দিয়ে ভিকটিমের বাম গালে ছ্যাকা দেন। এতে তার গালের চামড়া পুড়ে যায়। তাছাড়া ভিকটিমকে চাহিদা মত খাবারও দেওয়া হতো না। সর্বশেষ ১২ ফেব্রুয়ারি শিশুটির কাজে ভুল ধরে লাঠি দিয়ে এলোপাতাড়ি পিটুনি, চর থাপ্পর মেরে সমস্ত শরীরের বিভিন্ন স্থানে জখম করে।

অবশ্য এর আগে গৃহকর্মীকে মজিবর রহমান ও তার স্ত্রী বাসায় রেখে বাইরে যাওয়ার সুযোগ নিয়ে তাদের দোকান কর্মচারী মাসুম শিশুটিকে একাধিকবার ধর্ষণ করেন। যে বিষয়টি মজিবর রহমান ও তার স্ত্রীকে নালিশ আকারে অবহিত করলে মাসুমের বিরুদ্ধে কোন ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়নি। বরং শিশুটিকে মারধর করে বিষয়টি কারও কাছে বলতে নিষেধ করা হয়।

এই পুরো ঘটনাটি সম্পর্কে নিশ্চিত হয়ে থানা পুলিশ বুধবার রাতে অভিযান চালিয়ে শিশুটিকে উদ্ধার ও গৃহকর্তাসহ ৩ জনকে গ্রেফতারর করে।

এ ঘটনায় ওই থানায় নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনের ৯(১)/৩০ ও ২০১৩ সালের শিশু আইনের ৭০ ধারায় একটি মামলা নথিভুক্ত করা হয়েছে বলে জানান ওসি।

পিএনএস/এএ

 

@PNSNews24.com

আপনার মন্তব্য প্রকাশ করুন
Developed by Diligent InfoTech