গফরগাঁওয়ে মাদ্রাসা ছাত্রীকে গলা কেটে খুন করার ভয় দেখিয়ে ধর্ষণ, আটক ১

  

পিএনএস, ময়মনসিংহ প্রতিনিধি : ময়মনসিংহের গফরগাঁওয়ে মাদ্রাসা ছাত্রীকে গলা কেটে খুন করার ভয় দেখিয়ে ধর্ষণের অভিযোগে দবির উদ্দিন (৫২) নামের ব্যক্তিকে আটক করেছে গফরগাঁও থানা পুলিশ। ঘটনার পর পরই মাদ্রাসায় উপস্থিত ছাত্রীরা ধর্ষকের বিচার ও শাস্তির দাবিতে ক্লাস বর্জন করে বিক্ষোভ প্রর্দশন করে।

সোমবার (১৫ এপ্রিল) বিকেল সাড়ে ৩টার দিকে অভিযুক্ত দবির উদ্দিনকে গফরগাঁও উপজেলার ধোপাঘাট গ্রামের নিজ বাড়ি থেকে আটক করে থানায় নিয়ে আসে পুলিশ।

ধর্ষণের শিকার ছাত্রী, তার পরিবার ও এলাকাবাসী সূত্রে জানা গেছে, গফরগাঁও উপজেলার রাওনা বালিকা দাখিল মাদ্রাসার সপ্তম শ্রেণির ছাত্রী (১৩) ও ধোপাঘাট গ্রামের ওই মেয়েকে মাদ্রাসায় যাতায়তের পথে উত্যক্ত করতো একই গ্রামের দবির উদ্দিন। এক পর্যায়ে গত সপ্তাহে মাদ্রাসায় যাওয়ার পথে ওই ছাত্রীকে ছুরি দেখিয়ে জিম্মি করে গফরগাঁও-শিবগঞ্জ সড়কের ধোপাঘাট গ্রামের একটি নির্জন এলাকায় একটি বন্ধ মার্কেটের এক কক্ষে নিয়ে যায়। গলা কেটে খুন করার ভয় দেখিয়ে ওই মাদ্রাসা ছাত্রীকে ধর্ষণ করে দবির উদ্দিন।

সোমবার (১৫ এপ্রিল) সকালে দবির উদ্দিন আবারো ওই মাদ্রাসা ছাত্রীকে ছুরি দিয়ে ভয় দেখিয়ে বন্ধ মার্কেটের কক্ষে ঢুকিয়ে ধর্ষণের চেষ্টাকালে মাদ্রাসা ছাত্রীর চিৎকারে পথচারীরা এগিয়ে আসেন। এ সময় ধর্ষক দবির উদ্দিন পালিয়ে যায়। পরে পথচারীরা মাদ্রাসা ছাত্রীকে উদ্ধার করে মাদ্রাসায় নিয়ে যায়। ঘটনা শোনা মাত্র মাদ্রাসায় উপস্থিত ছাত্রীরা ধর্ষকের বিচার ও শাস্তির দাবিতে ক্লাস বর্জন করে বিক্ষোভ প্রর্দশন করে।

পরে দ্রুত খবর পেয়ে গফরগাঁও থানা পুলিশ সোমবার বিকেল সাড়ে ৩টার দিকে অভিযুক্ত দবির উদ্দিনকে ধোপাঘাট গ্রামের নিজ বাড়ি থেকে আটক করে থানায় নিয়ে আসে।

রাওনা বালিকা দাখিল মাদ্রাসার অধ্যক্ষ মোঃ আখতারুজ্জামান বলেন, এ ঘটনায় ধর্ষক দবির উদ্দিনের সর্বোচ্চ শাস্তি দাবি করছি।

গফরগাঁও থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা(ওসি) মোহাম্মদ আব্দুল আহাদ বলেন, ‘অভিযুক্ত ব্যক্তিকে আটক করে থানায় আনা হয়েছে এবং ঘটনার তদন্ত চলছে।’

পিএনএস/মো: শ্যামল ইসলাম রাসেল

 

@PNSNews24.com

আপনার মন্তব্য প্রকাশ করুন
Developed by Diligent InfoTech