যেভাবে গ্রেপ্তার হলেন রিফাত ফরাজী!

  

পিএনএস ডেস্ক : রগুনায় শাহনেওয়াজ রিফাত শরীফ হত্যা মামলার ২ নম্বর আসামি রিফাত ফরাজীকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। বুধবার ভোরে তাকে গ্রেপ্তার করে সকাল সাড়ে ৯টায় বরগুনার পুলিশ সুপারের কার্যালয়ে এ সংবাদ সম্মেলন করেন বরিশাল রেঞ্জের ডিআইজি মো. শফিকুল ইসলাম।

সংবাদ সম্মেলনে ডিআইজি বলেন, মঙ্গলবার রাত ২টার দিকে গোপন সংবাদের ভিত্তিতে রিফাত ফরাজীকে গ্রেপ্তার করা হয়। আজ তাকে আদালতে তোলা হবে।

তবে তাকে কোথা থেকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে সে বিষয়ে কথা বলতে রাজি হয়নি পুলিশ। তবে বরগুনার পুলিশ সুপার মো. মারুফ হোসেন বলছেন, তদন্তের স্বার্থে এ বিষয়ে এখন কিছু বলা যাবে না।

এদিকে এ নিয়ে রিফাত শরীফ হত্যা মামলার এজাহারভুক্ত ৫ জন এবং সন্দেহভাজন হিসেবে ৫ জনকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। এছাড়া এ মামলার প্রধান অভিযুক্ত নয়ন বন্ড পুলিশের সঙ্গে বন্দুকযুদ্ধে নিহত হয়েছেন।

এ মামলার এজাহারভুক্ত গ্রেপ্তাররা হলেন, মামলার ২ নম্বর আসামি রিফাত ফরাজি (২৩), ৪ নম্বর আসামি চন্দন (২১), ৯ নম্বর আসামি মো. হাসান (১৯), ১১ নম্বর আসামি মো. অলিউল্লাহ অলি (২২) ও ১২ নম্বর আসামি টিকটক হৃদয় (২১)।

এছাড়া রিফাত শরীফ হত্যাকাণ্ডে সংশ্লিষ্টতার অভিযোগে ভিডিও ফুটেজ ও অন্যান্য তথ্যের ভিত্ততে গ্রেপ্তাররা হলেন, মো. নাজমুল হাসান (১৯), তানভীর (২২), মো. সাগর (১৯), কামরুল হাসান সাইমুন (২১) ও রাফিউল ইসলাম রাব্বি।

গ্রেপ্তারদের মধ্যে চন্দন ও হাসান ৭ দিনের এবং সাগর, সাইমুন ও নাজমুল ৫ দিনের রিমান্ডে রয়েছেন। আর রিফাত হত্যাকাণ্ডে সরাসরি জড়িত থাকার কথা স্বীকার করে আদালতে জবানবন্দি দিয়েছেন মামলার ১১ নম্বর আসামি অলি ও ফুজেট দেখে সন্দেহভাজন হিসেবে আটক হওয়া অভিযুক্ত তানভীর।

প্রসঙ্গত, গত ২৬ জুন সকাল সাড়ে ১০টার দিকে বরগুনা সরকারি কলেজ এলাকায় প্রকাশ্যে স্ত্রীর সামনে শাহ নেওয়ার রিফাত শরীফকে (২৫) রামদা দিয়ে কুপিয়ে জখম করা হয়। ওই দিন বিকেলেই বরিশাল শের-ই-বাংলা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে রিফাতের মৃত্যু হয়।

হামলার ঘটনার একটি ভিডিও ভাইরাল হলে ব্যাপক আলোড়ন তৈরি হয়। ভিডিওটিতে দেখা যায়, সন্ত্রাসী দুই যুবক উপর্যুপরি কোপাচ্ছে রিফাতকে। রিফাতের স্ত্রী আয়েশা সিদ্দিকা মিন্নি সন্ত্রাসী দুই যুবককে বারবার প্রতিহত করার চেষ্টা করেও ব্যর্থ হন।

নিহত রিফাত শরীফ সদর উপজেলার বড় লবণগোলা গ্রামের আব্দুল হালিম দুলাল শরীফের ছেলে। ওই দিনই তিনি ১২ জনকে আসামি করে এবং অজ্ঞাতপরিচয় আরো পাঁচ-ছয়জনকে আসামি করে একটি মামলা করেন। মামলায় প্রধান আসামি করা হয় সাব্বির আহমেদ নয়নকে। আসামির তালিকায় এর পরই রয়েছে রিফাত ফরাজী ও তাঁর ভাই রিশান ফরাজী।

পরে স্থানীয় লোকজন রিফাত শরীফকে গুরুতর আহত অবস্থায় উদ্ধার করে বরগুনা জেনারেল হাসপাতালে নিয়ে যায়। পরে বরিশাল শের-ই-বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেয়া হলে রিফাত শরীফের মৃত্যু হয়।

পিএনএস/এএ

 

@PNSNews24.com

আপনার মন্তব্য প্রকাশ করুন
Developed by Diligent InfoTech