বাণচাল হয়ে যাচ্ছে বিআইডব্লিউটিএ’র প্রকল্পঃ স্থবিরতার মুখোমুখি পুরো সংস্থা-

  

পিএনএস (মোঃ শাহাবুদ্দিন শিকদার) : বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌ-পরিবহন কর্তৃপক্ষ (বিআইডব্লিউটিএ) স্থবির হয়ে পড়েছে। সংস্থায় প্রেষণে নিয়েজিত একজন বিদায়ী শীর্ষ কর্মকর্তার দায়িত্বে অবহেলা, গোয়ার্তুমি, উন্নয়ন সহযোগী ও ঠিকাদারদের সাথে দুর্ব্যবহার, কাজ-কর্মে জটিলতা সৃষ্টি, নতুন প্রকল্প সৃষ্টির প্রতি অনীহা, বিদ্যমান প্রকল্প বাস্তবায়নে নানামুখী জটিলতা সৃষ্টির কারণে পুরো সংস্থাটি নিথর হয়ে পড়েছে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা যখন নদী বাঁচাতে ও নদীর নাব্যতা রক্ষায় নানামুখী যুগান্তকারী সিদ্ধান্ত গ্রহণের পক্ষপাতী তখন সদ্য বিদায়ী এই শীর্ষ কর্মকর্তা বিভিন্ন প্রকল্পের লাগাম টেনে ধরেছেন। ৩৫ ড্রেজার ক্রয় হিসাবে পরিচিত ড্রেজার কেনার প্রকল্পটি এক চুলও এগোয়নি। বিআইডব্লিউটিএ’র সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা এই প্রকল্পের TOR এবং স্পেসিফিকেশান নিয়ে রহস্যময় কারণে নানা সিদ্ধান্তহীনতায় ভুগছেন। পুরো প্রকল্প এখন এক্সপেরিমেন্টাল গিনিপিগ। ইচ্ছা মতো কাটা ছেড়া করছেন। একবার প্যাকেজ ভেঙ্গেঁ টুকরো টুকরো করছেন আবার কখনো কখনো টুকরোগুলিকে জোড়া লাগিয়ে বিশাল প্যাকেজ করছেন। এই জোড়া লাগানো আর ভাঙ্গার খেলা চলছে দিনের পর দিন। TOR এবং স্পেসিফিকেশান এর পরিবর্তন, সংযোজন, বিয়োজন চলছে সমান তালে। এগুলো কখন কার স্বার্থে, কার প্রয়োজনে করা হচ্ছে তা একমাত্র তারাই জানেন। অথচ এই প্রকল্পের কাজ এক ইঞ্চিও এগোয়নি। দেশী-বিদেশী আগ্রহী ঠিকাদার ও সরবরাহকারীরা নাজেহাল হচ্ছে। ভুগছে সিদ্ধান্তহীনতায়। কিসের প্রয়োজনে, কোন কারণে এই রকম করা হচ্ছে তারও কোন সদুওর নেই। এ ব্যাপারে মন্ত্রণালয়ের মনিটরিং যথাযথ পর্যায়ে আছে কিনা তা নিয়েও প্রশ্ন রয়েছে।

পর্যবেক্ষকদের মতে, চলমান ড্রেজিং কাজ কতোটা যথাযথভাবে হচ্ছে সে প্রশ্ন উত্থাপন করার চাইতে এই প্রশ্নই অধিকতর যুক্তিসঙ্গত যে, কতোগুলো নদীপথ মরতে বসেছে বা নাব্যতা হারিয়েছে। যে সমস্ত নদীপথে বিপুল পরিমাণ অর্থ খরচ হয়েছে সেগুলোর বর্তমান অবস্থাও নৌ-পরিবহন মন্ত্রণালয় সরেজমিনে প্রত্যক্ষ করতে পারে। নৌ-পথ কথিত পূণরূদ্ধারের পর নদী গুলোতে নৌকা চলছে নাকি গরুর গাড়ি চলছে তাও নৌ-পরিবহন মন্ত্রণালয়, পরিকল্পনা মন্ত্রণালয়, আইএমইডি সর্বোপরি প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় খতিয়ে দেখতে পারে। হাওড় অঞ্চলে নদীর নাব্যতা রক্ষার নামে কতোটা কাজ হয়েছে তা যাচাইয়ের স্বার্থে প্রকল্পগুলো পর্যবেক্ষণ, পরিবীক্ষণ ও মূল্যায়ণ করাও জরুরী হয়ে পড়েছে।

অভিজ্ঞমহল মনে করেন, বিআইডব্লিউটিএ’র কার্যক্রম যথাযথভাবে হচ্ছে কিনা এবং মাননীয় প্রধানমন্ত্রী প্রতিশ্রুত প্রকল্প বাস্তবায়নের গতি এতো ধীর কেন তা খতিয়ে দেখতে উচ্চ পর্যায়ের কমিটি করা প্রয়োজন।

 

@PNSNews24.com

আপনার মন্তব্য প্রকাশ করুন
Developed by Diligent InfoTech