বনশ্রীর খেলার মাঠ ও গোরস্থানের জায়গা পূণরূদ্ধারে প্রধানমন্ত্রীর হস্তক্ষেপ কামনা-

  

পিএনএস (মোঃ শাহাবুদ্দিন শিকদার) : জহিরুল ইসলাম। আবাসন শিল্পের মহান এক কারিগর। রাজধানীর বিভিন্ন প্রান্তে তিনি ভূমির উন্নয়ন করে প্লট আকারে তা বিক্রি করে মানুষের বসবাসের উপযোগী করেছিলেন। পর্যাপ্ত সংখ্যক ভবন করে এপার্টমেন্ট তৈরী করে সেগুলো বিক্রি করে নগরবাসীকে বসবাসের সুযোগ করে দিয়েছিলেন। এই মহান মানুষটির কারণেই রাজধানীতে নতুন নতুন আবাসিক এলাকা গড়ে উঠেছে। বলা যায়, আধুনিক ঢাকার অন্যতম কারিগর তিনি। তিনি মানুষের সুন্দর আবাসনের স্বপ্ন দেখেছিলেন- মানুষও সুখ স্বপ্নে বিভোর হয়েছিল। কিন্তু ভূমি খেকো দুষ্ট চক্রের কারণে মরহুম জহিরুল ইসলামের স্বপ্ন আজ ভেঙ্গে খান খান হয়ে যাচ্ছে। রাজধানীর বনশ্রী আবাসিক এলাকার কমন ফ্যাসিলিটিজের জায়গা ইষ্টার্ণ হাউজিং-এর প্রসপেক্টাসে পরিস্কার ভাবে উল্লেখ থাকলেও সে জায়গা আত্মসাতের পায়তারা চলছে। বনশ্রী প্রজেক্ট বাস্তবায়নের সময়ের লে-আউট প্ল্যানে জায়গা গুলো নির্দিষ্ট করা আছে। এই জায়গা গুলো উদ্ধার করা গেলে সেখানে খেলার মাঠ, কবরস্থান, কমিউনিটি সেন্টার, বাজার এবং স্কুল প্রতিষ্ঠা করা সম্ভব। কিন্তু ভূমি খেকোদের ষড়যন্ত্রের কারণে জমিগুলো হারাতে বসেছে। ছোট্র সোনামনিরা খেলতে পারছে না, মরে গেলে কবরের জায়গা পাচ্ছে না মানুষ। এ ব্যাপারে বনশ্রীর সাধারণ বাড়ীওয়ালারা অত্যন্ত সোচ্চার হলেও চিহ্নিত সুবিধাভোগীরা জমি আত্মসাতের চিন্তায় মশগুল।

বনশ্রীর ভূক্তভোগীমহল কমন ফ্যাসিলিটিজের জায়গা ফেরত পেতে নানামুখী কর্মসূচীর উদ্যোগ গ্রহণ করেছে। খুব সহসাই জাতীয় প্রেস ক্লাবে সংবাদ সম্মেলন আয়োজনের মাধ্যমে কমন ফ্যাসিলিটিজের জায়গা পূণরূদ্ধার করার উদ্যোগ গ্রহণ করা হয়েছে।

বনশ্রীর ভূক্তভোগীমহল এ ব্যাপারে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী, স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী এবং গৃহায়ণ ও গণপূর্ত মন্ত্রীর আশ্ত হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন। (চলবে)

 

@PNSNews24.com

আপনার মন্তব্য প্রকাশ করুন