রমজান উপলক্ষে বেনাপোল বন্দরে বেড়েছে তিনগুন পেয়াজ আমদানি

  

পিএনএস, বেনাপোল প্রতিনিধি : আসন্ন রমজান মাস উপলক্ষে ভারত থেকে বেনাপোল স্থলবন্দর দিয়ে পেয়াজ আমদানি বেড়েছে তিনগুন। ১৩টাকা কেজি দরে আমদানি করা হচ্ছে ভারতীয পেয়াজ। স্থানীয় বাজারে ভারতীয় পেয়াজের দাম স্থিতিশীল থাকলেও দেশী পেয়াজের দাম বাড়ছে বলে জানান ক্রেতারা। এপ্রিল-২০১৮ গত এক মাসে বেনাপোল বন্দর দিয়ে ১৫ হাজার ৭শ ৩৯ মে: টন পেয়াজ আমদানি করা হলেও চলতি মাসে গত ১৩ দিনে এসেছে ১৩ হাজার ২শ মে: টন পেয়াজ।

দেশীয় মসলা পেয়াজের চাহিদা ও ঘাটতি মেটানো হয় উৎপাদিত পেয়াজসহ আমদানিকৃত পেয়াজ দিয়ে। বেনাপোল ও ভোমরা শুল্ক ষ্টেশন দিয়ে ভারত থেকে অধিকাংশ পেয়াজ আমদানি করা হয়। রমজান মাসে পেয়াজের চাহিদা বাড়ায় বেনাপোল স্থলপথে বাড়ছে আমদানি।

ক্রেতা আজমিরা বেগম ও কুদরত আলী বলেন, দেশী পেয়াজের দাম বাড়লেও ভারতীয় পেয়াজের দাম বাড়ে নি, ব্যসায়ীদের কারসাজিতে বাড়ছে দাম। বাজার মনিটরিং সহ ব্যবসায়ীদের প্রতি প্রশাসনিক নজরদারী থাকলে রমজানে মানুষ স্বস্তিতে থাকবে। বাড়বে না দাম। ক্রেতারা হবেন উপকৃত।

বেনাপোল নাভারন শার্শা ও বাগআচড়া সহ স্থানীয় বাজারে ১৮ থেকে ২২ টাকায় বিক্রি হচ্ছে ভারতীয় পেয়াজ-আর দেশী পেয়াজ বিক্রি হচ্ছে ৩০ থেকে ৪০টাকায়। কেজিতে দাম বেড়েছে ৫ থেকে ১০টাকা। পেয়াজ আমদানি অব্যাহত থাকলে দাম কমবে বলে জানান ব্যবসায়ীরা।

ভারত থেকে আসা অরবিন্দও কাত্তিক দে জানান, বন্দরে দ্রুত পেয়াজের চালান খালাস হচ্ছে এতেই খুশি ট্রাক ডাইভার ও খালাসিরা।

২৪ঘন্টা চলছে বেনাপোল বন্দরে আমদানি রফতানি। পেয়াজ খালাস চলছে জোর গতিতে বন্দর ও কাষ্টম সংশ্লিষ্টরা পেয়াজের চালান দ্রুত গতিতে খালাস দিতে করছেন কাজ। পেয়াজের ঘাটতি মেটাতে আমদানি বাড়ছে বলে জানান বন্দর সংশ্লিষ্টরা।

বেনাপোল বন্দর পরিদর্শক মনির হোসেন জানান, দিন দিন বাড়ছে পেয়াজের আমদানি- গত ৪৩ দিনে এ বন্দর দিয়ে এসেছে ৩৯হাজার মে: টন ভারতীয় পেয়াজ । ২৪ ঘন্টা বন্দর খোলা থাকায় ব্যবসায়ীরা হচ্ছেন উপকৃত। কাচামাল খালাস রাতে দিনে চলছে সমান গতিতে। বন্দর ও কাষ্টম কর্তৃপক্ষ আমদানি রফতানি বানিজ্যে দ্রুত পণ্য খালাসের চেষ্টা করছেন বলে জানান তিনি।

পিএনএস/মোঃ শ্যামল ইসলাম রাসেল

 

@PNSNews24.com

আপনার মন্তব্য প্রকাশ করুন
Developed by Diligent InfoTech