বিকাশ-নগদের আচরণে চটেছে কেন্দ্রীয় ব্যাংক

  

পিএনএস ডেস্ক : নগদের একটি বিজ্ঞাপন প্রচার, বিকাশ ও এর প্রধান নির্বাহীকে জড়িয়ে বিভিন্ন ভিডিও চিত্র তৈরি, নগদের সেবার বিরুদ্ধে সারা দেশে পোস্টার ছড়ানোর মত ঘটনা ঘটেছে। এ জন্য অজ্ঞাত ১০ হাজার জনের বিরুদ্ধে মামলা করাও হয়েছে। তবে আর্থিক খাতে এমন আচরণ বরদাশত করা হবে না বলে জানিয়েছে বাংলাদেশ ব্যাংক।

গত বুধবার ব্র্যাক ব্যাংকের সহযোগী প্রতিষ্ঠান বিকাশ ও ডাক বিভাগের ডিজিটাল সেবা নগদের সঙ্গে অনুষ্ঠিত আলোচনায় দুই প্রতিষ্ঠানকে নির্দেশনা দেয় কেন্দ্রীয় ব্যাংক। নির্দেশনায় মোবাইলে আর্থিক সেবাদাতা (এমএফএস) বিকাশ ও নগদকে সুশৃঙ্খলভাবে কার্যক্রম পরিচালনা করতে বলা হয়েছে। প্রতিষ্ঠান দুটি যাতে একে অপরের বিরুদ্ধে অপপ্রচার না চালায়, মৌখিকভাবে সেই নির্দেশনাও দেওয়া হয়েছে।

বাংলাদেশ ব্যাংক সূত্র জানায়, কেন্দ্রীয় ব্যাংকের নিয়ন্ত্রণ কাঠামোর মধ্যে থেকেই সব পক্ষকে কার্যক্রম পরিচালনা করতে হবে। দুই প্রতিষ্ঠানকে আর্থিক বাজারে সুশৃঙ্খল পরিবেশ ফেরানোর পরামর্শও দেওয়া হয়েছে। তাদের সতর্ক করে বলা হয়, জনগণের টাকার নিরাপত্তা দিতে কেন্দ্রীয় ব্যাংক নতুন সিদ্ধান্ত নিতে পিছপা হবে না। তাই যেকোনো প্রচারণা ও কার্যক্রম চালানোর আগে তা বিশ্লেষণ করে দেখতে হবে।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে কেন্দ্রীয় ব্যাংকের এক কর্মকর্তা বলেন, মোবাইলে আর্থিক সেবা বাজারের পুরো নিয়ন্ত্রণ কেন্দ্রীয় ব্যাংকের। তাই জনগণ যাতে সহজে সেবাটি পায় ও টাকার নিরাপত্তা থাকে, এ জন্য প্রতিনিয়ত চেষ্টা করা হচ্ছে। এমন কিছু সহ্য করা হবে না, যা আর্থিক সেবার বাজারের জন্য খারাপ হয়। প্রয়োজনে এজেন্ট নিয়োগ, বিজ্ঞাপনের বিষয়বস্তু নির্ধারণ, নতুন সেবাসহ সবকিছুর জন্য অনুমোদনের বাধ্যবাধকতা আরোপ করা হবে।

নগদ ডাক বিভাগের সেবা হলেও কেন্দ্রীয় ব্যাংকের অনুমোদনের চেষ্টা করছে। এ জন্য প্রতিষ্ঠানটিতে অন্তর্র্বতীকালীন অনুমোদনও দিয়েছে। পাশাপাশি নগদের জমা টাকার লেনদেনে ডাক বিভাগের পুরো নিয়ন্ত্রণ আরোপ করতে বলেছে কেন্দ্রীয় ব্যাংক।

নগদের একজন মুখপাত্র এ বিষয়ে জানান, বিজ্ঞাপন প্রচারের বিষয়ে বাংলাদেশ ব্যাংক থেকে এখনো আনুষ্ঠানিক কোনো নির্দেশনা তাঁরা পাননি। তবে আজ রোববারের পর নগদের ওই বিজ্ঞাপন আর প্রচার হবে না।

বর্তমানে বাংলাদেশ ব্যাংকের অধীনে ১৫টি প্রতিষ্ঠান মোবাইলে আর্থিক সেবা দিচ্ছে। এর নিবন্ধিত গ্রাহক প্রায় ১০ কোটি। গত ডিসেম্বরে লেনদেন হয়েছে ৫৬ হাজার ৫৫৬ কোটি টাকা।

পিএনএস/এসআইআর

 

@PNSNews24.com

আপনার মন্তব্য প্রকাশ করুন