রাবিতে ভর্তি জালিয়াতির অভিযোগে যুবক আটক

  

পিএনএস, রাবি প্রতিনিধি : রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের (রাবি) ২০১৮-১৯ শিক্ষাবর্ষে প্রথম বর্ষ স্নাতক (সম্মান) ভর্তি পরীক্ষায় জালিয়াত সন্দেহে একজনকে আটক করেছে পুলিশ। বৃহস্পতিবার বিকালে বিশ্ববিদ্যালয়ের শহীদ হবিবুর রহমান হলের সামনে থেকে তাকে আটক করে নগরীর মতিহার থানা পুলিশ।

আটককৃত যুবক গোলাম রাব্বানি রাজধানীর একটি বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় থেকে স্নাতক সম্পন্ন করেছেন। বর্তমানে সে রাজশাহী সিটি কলেজে বিবিএস কোর্সে পড়ালেখা করছেন। তার বাড়ি রাজশাহীর বাগমারায়।

ক্যাম্পাস সূত্রে জানা যায়, রাবির ২০১৮-১৯ শিক্ষাবর্ষের ভর্তি পরীক্ষায় জালিয়াতির মাধ্যমে রিফাত আরা মুনকে জালিয়াতির মাধ্যমে ভর্তির করিয়ে দেয়ার প্রতিশ্রুতি দেয় রাব্বানি। বৃহস্পতিবার দুপুরে প্রতিশ্রুতির অগ্রিম ২০হাজার টাকা নিতে বিশ্ববিদ্যালয়ে আসে রাব্বানি। রাব্বানিকে প্রতারক বুঝতে পেরে মুন তার কয়েকজন বন্ধুর সহয়তায় তাকে আটক করে পুলিশে খবর দেয়। পরে পুলিশ এসে তাকে আটক করে।

রিফাত আরা মুনের বরাত দিয়ে তার বন্ধু সৌরভ জানান, এক মাস আগে বাসে তাদের পরিচয় হয়। সেখানে টাকার বিনিময়ে প্রশ্ন দেয়া ও বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি করে দেয়ার মতো লবিং আছে বলে রিফাত আরা মুনকে জানায় গোলাম রাব্বানী। সেই সূত্র ধরে এক সপ্তাহ আগে রিফাত আরাকে ফোন করেন গোলাম রাব্বানী। তখন গোলাম রাব্বানী রিফাত আরাকে জানায়, ‘যদি তুমি আমাকে ৫০ হাজার টাকা দাও, তাহলে আমি পরীক্ষার আগের রাতে প্রশ্ন পাবে। আর দেড় লাখ টাকা দিলে সরাসরি ভর্তি হতে করিয়ে দিতে পারবো। পরে রিফাত আরা বিষয়টি তার বন্ধু সৌরভকে বিষয়টি জানায়। রাব্বানিকে প্রতারক হিসেবে বুঝতে পেরে তাকে পুলিশে দেয়া হয়।

সৌরভ বলেন, ‘আমি ও রিফাত আরা দুজনেই এবার রাবিতে ভর্তি পরীক্ষা দিব। কিছুদিন আগে মুন আমাকে জানায় তাকে রাব্বানী নামের একজন টাকার বিনিময়ে প্রশ্ন দিবে। রিফাত আরার কাছ থেকে রাব্বানীর ফোন নম্বর নিয়ে আমি যোগাযোগ করি। গত চার মাসে তার সঙ্গে আমার কয়েকবার কথা হয়েছে। সে আজকে (বৃহস্পতিবার) অগ্রিম ২০ হাজার টাকা নিতে এসেছিল। সেই সঙ্গে আমাদের সার্টিফিকেট সঙ্গে নিতে চেয়েছিল। পরীক্ষার আগের রাতে আমাদেরকে নিয়ে গিয়ে তার কাছে রাখবে বলে আমাকে জানিয়েছিল।

নগরীরর মতিহার থানায় গিয়ে গোলাম রাব্বানীর সঙ্গে কথা হলে তিনি ঘটনার সত্যতা স্বীকার করেন। তিনি বলেন, আমি মুঠোফোনে তাদের টাকার বিনিময়ে প্রশ্ন দেয়া ও সরাসরির ভর্তি কথা বলেছিলাম। কিন্তু তাদের সঙ্গে সেটা আমি এমনি বলেছিলাম। আমি তাদের মায়ের সঙ্গে কথা বলতে এসেছিলাম, আসলে আমি এগুলো করি না, এসব ভুয়া।

বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর অধ্যাপক লুৎফর রহমান বলেন, ‘জালিয়াতির সঙ্গে গোলাম রাব্বানির কোন সম্পৃক্ততা আছে কিনা তা খুঁজে বের করার জন্য আইনশৃঙ্খলা বাহিনীকে নির্দেশ দিয়েছি।’

এ বিষয়ে জানতে চাইলে নগরীর মতিহার থানার ওসি শাহাদৎ হোসেন বলেন, রাব্বানিকে আটক করে থানায় নিয়ে আসা হয়েছে। প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে তিনি এ ঘটনায় জড়িত থাকার কথা অস্বীকার করেছে। জিজ্ঞাসাবাদের পর ঘটনার সত্যতা মিললে আমরা প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নেবো।’

পিএনএস/মোঃ শ্যামল ইসলাম রাসেল

 

@PNSNews24.com

আপনার মন্তব্য প্রকাশ করুন
Developed by Diligent InfoTech