বুয়েটে ভর্তি পরীক্ষা উপলক্ষে আন্দোলন ২ দিন শিথিল

  

পিএনএস ডেস্ক : বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ে (বুয়েট) ১৪ অক্টোবরের ভর্তি পরীক্ষাকে সামনে রেখে দুই দিন আন্দোলন শিথিলের ঘোষণা দিয়েছেন আন্দোলনকারী শিক্ষার্থীরা। ১৩ ও ১৪ অক্টোবর আন্দোলন কর্মসূচি শিথিল থাকবে। এর ফলে ১৪ অক্টোবর নির্ধারিত তারিখে বুয়েটের ভর্তি পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে।

আজ শনিবার বেলা আড়াইটার দিকে বুয়েটের শহীদ মিনারের সমাবেশ থেকে এ ঘোষণা দেন আন্দোলনরত শিক্ষার্থীরা। তাঁরা বলেন, বুয়েট প্রশাসন ইতিমধ্যে আন্দোলনকারীদের ৫ দফা দাবি মেনে নিয়ে বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করেছে। এটা আন্দোলনের প্রাথমিক বিজয়। এ কারণে ১৩ ও ১৪ অক্টোবর চলমান আন্দোলন শিথিল করার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। তাঁরা আশা করেন, এই সময়ের মধ্যে সব দাবি মানার সিদ্ধান্ত দৃশ্যমান করবে বুয়েট প্রশাসন।


আন্দোলনকারীরা বলেন, ১৪ অক্টোবর বুয়েটের ভর্তি পরীক্ষা। ভর্তি পরীক্ষা নির্বিঘ্নে অনুষ্ঠিত হোক, সেটা আমরা চাই। পরীক্ষা বানচালের দায় আমরা নিতে চাই না। এর সঙ্গে তাঁরা যোগ করেন, প্রধানমন্ত্রীর প্রতি আস্থা আছে। ভিসি স্যারকেও ধন্যবাদ। দাবি বাস্তবায়ন শুরু হওয়ায় আন্দোলন আপাতত শিথিল। পরীক্ষার্থীদের নিরাপত্তা নিশ্চিত করার অংশ হিসেবে এই সিদ্ধান্ত।

৫ দফা দাবির বিষয়ে অগ্রগতি হচ্ছে বলে মন্তব্য করেন আন্দোলনকারী শিক্ষার্থীরা। তাঁদের ৫ দফা দাবিগুলো হলো—হত্যাকারীদের বুয়েট থেকে আজীবন বহিষ্কার করা হবে এ মর্মে নোটিশ দেওয়া, সাংগঠনিক রাজনীতি নিষিদ্ধের জন্য অবৈধ ছাত্রদের সিট বাতিল করা, সাংগঠনিক অফিস সিলগালা করা, ফাহাদের মামলার খরচ দেওয়ার নোটিশ দেওয়া ও ভিন্নমত দমানোর নামে নির্যাতন বন্ধে প্রশাসনের সক্রিয় ভূমিকা নিশ্চিত করা এবং এ ধরনের ঘটনা প্রকাশে একটি কমন প্ল্যাটফর্ম ব্যবহার করে সব হলের সিসিটিভির ফুটেজে সার্বক্ষণিক মনিটরিং করা।

আন্দোলনকারীরা বলেন, তাঁদের পাঁচ দফা দাবি মেনে নিয়ে আনুষ্ঠানিকভাবে বুয়েট কর্তৃপক্ষ আজ দুপুরে বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করেছে। হত্যাকাণ্ডে জড়িত সবাইকে সাময়িক বহিষ্কার করা হয়েছে এবং পরে অভিযোগপত্রে যাঁদের নাম আসবে, তাঁদের স্থায়ীভাবে বিশ্ববিদ্যালয় থেকে বহিষ্কার করার দাবিও কর্তৃপক্ষ মেনে নিয়েছে। বুয়েটে সব রাজনৈতিক সংগঠন এবং এর কার্যক্রম নিষিদ্ধ করা হয়েছে। এরই অংশ হিসেবে বিভিন্ন হলে অবৈধ ছাত্রদের দখলে থাকা কক্ষ সিলগালা করা হয়েছে। হলে হলে সিসিটিভি ফুটেজ লাগানোর কাজ চলছে। আর বুয়েটে র‌্যাগের নামে নির্যাতনের ঘটনাসংক্রান্ত অভিযোগ প্রকাশের জন্য একটি ওয়েব পোর্টাল তৈরির ব্যাপারে কাজ শুরু হয়েছে। তবে এতে কিছুটা সময় লাগবে বলে মনে করেন শিক্ষার্থীরা। তবে ১০ দফা দাবিতে আন্দোলন চলবে।

পিএনএস/জে এ

 

@PNSNews24.com

আপনার মন্তব্য প্রকাশ করুন
Developed by Diligent InfoTech