কুমিল্লায় বিভিন্ন স্কুলে ভর্তিতে অতিরিক্ত ফি আদায়ের অভিযোগ

  

পিএনএস ডেস্ক: কুমিল্লার বিভিন্ন উপজেলার কয়েকটি বেসরকারি হাই স্কুলে ছাত্র-ছাত্রী ভর্তির নামে অতিরিক্ত ফি আদায়ের অভিযোগ উঠেছে। পুনঃ ভর্তির ক্ষেত্রেও একইভাবে অতিরিক্ত ফি নিচ্ছে বিদ্যালয়গুলো। শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা বিভাগের বেসরকারি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে শিক্ষার্থী ভর্তি নীতিমালার তোয়াক্কা না করে চলতি শিক্ষাবর্ষে ষষ্ঠ শ্রেণি থেকে দশম শ্রেণিতে ভর্তির ক্ষেত্রে সেশন ফি এর নাম করে বাণিজ্য করছে বিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ।

চান্দিনা ডা. ফিরোজা পাইলট বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ে খোঁজ নিয়ে দেখা যায়, ৬ষ্ঠ শ্রেণিতে ভর্তির জন্য ছাত্রীদের কাছ থেকে ১হাজার ২শ টাকা থেকে ১হাজার ৫শ টাকা পর্যন্ত আদায় করা হয়েছে। পুনঃভর্তির ক্ষেত্রেও একই ফি আদায় করা হয়। ওই বিদ্যালয়ের ৭ম শ্রেণিতে পুনঃভর্তির জন্য জান্নাতুল ফেরদাউস নামের একজন ছাত্রীর নিকট থেকে ১হাজার ৪শ টাকা নেওয়া হয়েছে।

চান্দিনা পৌরসভার সাহাপাড়া এলাকার অভিভাবক ধনঞ্জয় মজুমদার ও চান্দিনা পশ্চিম বাজার এলাকার অভিভাবক আমেনা আক্তার জানান, তাদের সন্তানদের ষষ্ঠ শ্রেণিতে ভর্তির জন্য ১হাজার ৫শ টাকা করে নিয়েছে ওই বিদ্যালয়। অথচ নীতিমালা অনুযায়ী উপজেলা পর্যায়ের পৌরসভাধীন বেসরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলো শিক্ষার্থী ভর্তির ক্ষেত্রে সর্বোচ্চ ১হাজার টাকা নেওয়ার বিধান রয়েছে।

এ ব্যাপারে বিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষিকা সুমিতা রায় বলেন, ‘ভর্তি ও সেশন ফি এক হাজার টাকা করে নেওয়া হয়েছে।’ অভিভাবকদের কাছ থেকে অতিরিক্ত টাকা নেওয়ার প্রমাণ রয়েছে বললে তিনি বলেন, ‘অতিরিক্ত না, বেতন হিসেবে নেওয়া হয়েছে।’

এদিকে বড় গোবিন্দপুর আলী মিয়া ভূইয়া উচ্চ বিদ্যালয়ে সরেজমিনে গিয়ে জানা যায়, ভর্তি ও সেশন ফি মিলিয়ে ১হাজার ২শ ৬০ টাকা থেকে ১ হাজার ৪শ টাকা নিচ্ছে বিদ্যালয়টি। পুনঃভর্তির ক্ষেত্রেও একই চিত্র দেখা গেছে। বিদ্যালয়টিতে দশম শ্রেণির একজন ছাত্রের কাছ থেকে পুনঃভর্তি বাবদ ১ হাজার ২শ ৫০ টাকা নেওয়া হয়েছে। ষষ্ঠ, সপ্তম ও অষ্টম শ্রেণির কমপক্ষে ৮ জন ছাত্র-ছাত্রীর সাথে কথা বলে জানা গেছে, ১ হাজার ২শ ৬০ টাকা করে ভর্তি ও পুনঃভর্তি ফি নিয়েছে বিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ।

এ ব্যাপারে বড় গোবিন্দপুর আলী মিয়া ভূইয়া উচ্চ বিদ্যালয়ের দায়িত্বপ্রাপ্ত শিক্ষক মো. জাকির হোসেন খান বলেন, ‘আমি কোন তথ্য দিতে পারবো না। মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসে সব তথ্য দেওয়া আছে। ওখান থেকে সংগ্রহ করুন।’

মাধাইয়া বাজার ছাদিম উচ্চ বিদ্যালয়ে নীতিমালা অনুযায়ী ভর্তি ও সেশন ফি মিলিয়ে প্রতি ছাত্র-ছাত্রীদের নিকট থেকে সর্বোচ্চ ৫শ টাকা করে নেওয়ার কথা থাকলেও ১হাজার টাকা করে ভর্তি ফি নিয়েছে বিদ্যালয়টি। পুনঃভর্তির ক্ষেত্রেও ১হাজার টাকা করেই নিয়েছে বিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ। পরে অভিভাবকদের অভিযোগের প্রেক্ষিতে বিদ্যায়লয় কর্তৃপক্ষ আদায়কৃত অতিরিক্ত টাকা ফেরত দিতে বাধ্য হয়।

অপরদিকে উপজেলার বাড়েরা উচ্চ বিদ্যালয়, মহিচাইল উচ্চ বিদ্যালয়সহ কয়েকটি হাইস্কুলে খোঁজ নিয়ে জানা যায়, ওই প্রতিষ্ঠানগুলোও অতিরিক্ত ভর্তি ফি আদায় করেছে।

এ ব্যাপারে উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার কানিজ আফরোজ জানান, ‘পৌর এলাকার শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলো ভর্তি ও সেশন ফি মিলিয়ে সর্বোচ্চ ১হাজার টাকা নিতে পারবে। তদন্ত করে অতিরিক্ত ফি নেওয়ার প্রমাণ পেলে তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। অতিরিক্ত টাকাও ফেরত দিতে বাধ্য করা হবে।’ তিনি আরও বলেন, ‘পুনঃভর্তির জন্য কোন টাকা নেয়ার বিধান নেই।’

চান্দিনা উপজেলা নির্বাহী অফিসার স্নেহাশীষ দাশ বলেন, ‘এ বিষয়টি আমার জানা নেই। তদন্ত করে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’

পিএনএস/এএ

 

@PNSNews24.com

আপনার মন্তব্য প্রকাশ করুন