ভেঙে যাচ্ছে ছাত্র অধিকার পরিষদ

  

পিএনএস ডেস্ক : বাংলাদেশ সাধারণ ছাত্র অধিকার পরিষদে অভ্যন্তরীণ কোন্দল দেখা দিয়েছে। এরই মধ্যে ধর্ষণের অভিযোগ ওঠায় সংগঠনের আহ্বায়ক হাসান আল মামুনকে সংগঠন থেকে অব্যাহতি দেয়া হয়েছে। এছাড়া নেতৃত্বকে কেন্দ্র করে সংগঠনের মধ্যে বেশ কয়েকটি গ্রুপ তৈরি হয়েছে।

সংগঠনের নীতি নির্ধারণী পর্যায়ের একাধিক নেতা জানান, সাধারণ ছাত্র অধিকার পরিষদের নেতৃত্ব নিয়ে বেশ কিছু দিন ধরে সংগঠনটির অভ্যন্তরে অস্থিরতা বিরাজ করছে। বেশ কিছু দিন ধরে সংগঠনের সদ্য বহিষ্কৃত আহ্বায়ক হাসান আল মামুনের সাথে ডাকসুর সাবেক ভিপি নুরুল হক নূরের দূরত্ব সুষ্টি হয়েছে। এছাড়া নূরের একক প্রধান্যকে অনেকেই সহজভাবে নিতে পারছেন না। ফলে নুর বিরোধী একটি প্লাটফর্ম গড়ে উঠেছে।

জানা গেছে, সাধারণ ছাত্র অধিকার পরিষদের যুগ্ম-আহ্বায়ক ছিলেন নুর। তবে তিনি সংগঠনে একক নিয়ন্ত্রণ প্রতিষ্ঠায় প্রচেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন। সংগঠনের এরই মধ্যে নুর একটি বলয় গড়ে তুলেছেন। হাসান আল মামুনকে বহিষ্কার করায় সংগঠনের শীর্ষ পদ দখলে নিতে পারেন নুর। তবে হাসান আল মামুনের অনুসারীরা আলাদাভাবে একত্রিত হওয়ার চেষ্টা করছেন। হাসান আল মামুন দোষী শাব্যস্ত হলে তার জায়গায় নতুন নেতৃত্ব খোঁজা হচ্ছে।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক সাধারণ ছাত্র অধিকার পরিষদের এক নেতা জানান, সংগঠনের বেশিরভাগ নেতাকর্মী নিজেদের মত করে সংগঠনকে পরিচালনা করতে চায়। তবে নুর সেটা চান না। তিনি নিজের আধিপত্য ধরে রাখতে প্রভাব বিস্তার করে চলেছেন।

সংগঠনের ওই নেতা আরো বলেন, হাসান আল মামুনের নামে যে মেয়েটি মামলা করেছেন, তার সাথে মামুনের প্রেমের সম্পর্ক ছিলো। নুরসহ সংগঠনের শীর্ষ নেতারা সেটা জানতেন। নুরসহ তার অনুসারীরা বিভিন্নভাবে ওই মেয়েটিকে মামুনের সাথে বিয়ে দেয়ার জন্য প্ররোচিত করতেন। সম্প্রতি মেয়েটি মামুনকে বিয়ের জন্য চাপ দিলে মামুন বিয়ে করতে অস্বীকৃতি জানায়। এতে মেয়েটি ক্ষিপ্ত হয়ে মামুনসহ বেশ কয়েক জনের বিরুদ্ধে মামলা করে। মামুনপন্থীরা বিষয়টি সমাধানের চেষ্টা করলেও নুরের কারণে সমাধান না হয়ে মামলা পর্যন্ত গড়িয়েছে। ফলে সংগঠনে ভাঙন সৃষ্টি হয়েছে।

পিএনএস/এসআইআর


 

@PNSNews24.com

আপনার মন্তব্য প্রকাশ করুন