অর্থপাচারকারীদের বাড়ির ইট খুলে জনগণকে দিতে চান নুর

  

পিএনএস ডেস্ক : ডাকসুর সাবেক ভিপি নুরুল হক নুর বলেছেন, ‘প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, যারা অর্থপাচার করে তাদের তালিকা ওনার হাতে আছে। আমি মনে করি, যারা অর্থপাচার করে তাদের বড় একটি অংশ বাজার সিন্ডিকেটের সঙ্গে জড়িত। আমি প্রধানমন্ত্রীকে বলব, দ্রুত এদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিন। আর আপনি যদি ব্যবস্থা নিতে অক্ষম হন তাহলে এদের তালিকা প্রকাশ করুন। আমরা জনগণকে সঙ্গে নিয়ে এদের বাড়ি-ঘরের ইট খুলে সাধারণ নাগরিকদের দিয়ে দেব।’

বৃহস্পতিবার রাজধানীর শাহবাগে বাংলাদেশ যুব অধিকার পরিষদ আয়োজিত দ্রব্যমূল্য বৃদ্ধির প্রতিবাদে আয়োজিত এক সমাবেশে তিনি এসব বলেন।

সভায় সভাপতিত্ব করেন যুব অধিকার পরিষদের আহ্বায়ক মুহাম্মদ আতাউল্লাহ।

নুর বলেন, ‘দেশে এখন অরাজকতা চলছে। চাল-তেলের দাম লাগামহীনভাবে বাড়ছে। এতদিন পেঁয়াজের চড়া দাম ছিল। এখন আবার ভারতীয় পেঁয়াজের আমদানিতে কৃষকরা পেঁয়াজের দাম পাচ্ছে না। এর মূলে রয়েছে একটি সিন্ডিকেট। এরাই দেশের সব অপকর্মের সঙ্গে জড়িত। দেশে জবাবদিহি না থাকায় এসব হচ্ছে। আর এই কাজে ব্যবহার করা হচ্ছে পুলিশকে। বিএনপিও একই কাজ করত। বিএনপি সরকারের সময় প্রয়াত আওয়ামী লীগ নেতা মোহাম্মদ নাসিম, সাহারা খাতুনদের নির্যাতন করেছিল। এখন আবার সেই পুলিশই বিএনপি নেতা মির্জা ফখরুলসহ অন্যদের পেটাচ্ছে। তাই আমি পুলিশ ভাইদের বলব, এরশাদের সময়ে যেমন আপনারা জনগণের মানসিকতা বুঝে স্বৈরাচারকে সমর্থন দেননি, এখনও তেমনি জগণের মনের কথা বুঝুন।’

যুব অধিকার পরিষদের সদস্য সচিব ফরিদুল হক বলেন, ‘চালের ব্যবসায়ী এখন খাদ্যমন্ত্রী। আমরা জানতে পেরেছি বর্তমান খাদ্যমন্ত্রীর স্বজনদের গুদামে লাখ লাখ টন চাল মজুত আছে। চাল আমদানিতে যাদের অনুমতি দেওয়া হয়েছে তাদেরও বড় একটি অংশ খাদ্যমন্ত্রীর শুভাকাঙ্ক্ষী। আর বাণিজ্যমন্ত্রীও নিজেই একজন ব্যবসায়ী নেতা। তাই এরা ব্যবসায়ীদের স্বার্থ দেখছেন, জনগণের না। আমরা এই ব্যর্থ বাণিজ্যমন্ত্রীর পদত্যাগ চাচ্ছি। একইসঙ্গে সব উপজেলায় খোলাবাজারে চাল বিক্রির দাবি জানাচ্ছি।’

অনুষ্ঠানে ছাত্র অধিকার পরিষদের আহ্বায়ক মোহাম্মদ রাশেদ খাঁন, শ্রমিক অধিকার পরিষদের আহ্বায়ক আবদুর রহমান, সদস্য সচিব আরিফ হোসেনসহ বিভিন্ন পর্যায়ের নেতাকর্মীরা বক্তব্য রাখেন।

পিএনএস/এসআইআর

 

@PNSNews24.com

আপনার মন্তব্য প্রকাশ করুন