এলআরবির সদস্যরা এত নিষ্ঠুর কীভাবে হয়: আইয়ূব বাচ্চুর মেয়ে

  



পিএনএস ডেস্ক: ‘মগবাজারে আইয়ূব বাচ্চুর চেহলাম আনুষ্ঠানে সর্বশেষ কথা হয় ব্যান্ডের সদস্যদের সঙ্গে। এরপর আর কোনো যোগাযোগ কিংবা কথা হয়নি।’ বললেন বাচ্চুর মেয়ে ফাইরুজ সাফরা।তিনি জানান, ‘এর মধ্যে একদিন ফেসবুক লাইভে জানতে পারি, এলআরবি ব্যান্ডে নতুন সদস্য নেওয়া হয়েছে!

নতুনভাবে এলআরবি গঠন করা হয়েছে। খুব অবাক হয়েছি। আম্মুও অবাক। আম্মুও জানে না। বন্ধুদের কাছ থেকে শুনেছি, এলআরবি নাকি অন্য ভোকাল নিয়ে পারফর্ম করছে। আমি মনে করি, ‘ভদ্রতা’ বলে একটা কথা আছে। সহ্যের বাইরে যখন চলে গেছে, তখন মনে হয়েছে এটা নিয়ে কথা বলা উচিত।

যারা এতদিন বাবার সঙ্গে কাজ করেছে তারা এত নিষ্ঠুর হয় কিভাবে! তাঁরা অন্তত আমাদের জানাতে পারত।তিনি জানান, তাপস চাচ্চুর (কৌশিক হোসেন তাপস) সঙ্গে কথা বলেছি। বাবা নেই। বাবা আমাদের জন্য কোনো ব্যবসা রেখে যাননি। আমরা বিদেশে আছি, কেউ একবারও জানতে চায়নি আমরা কীভাবে চলছি। এরপরও যখন জানতে চেয়েছেন, বলেছি, বাবার কথা ভেবে কাউকে অনুমতি দিতে পারছি না।

মঞ্চে যে কেউ বাবার গান গাইতে পারবে। তারা জিরো থেকে নতুন একটা ব্যান্ড গঠন করুক। তাতে আমাদের বাধা দেওয়ার কিছু নেই। যে যেভাবে বাবাকে চায়, ট্রিবিউট জানাতে পারবে, সেখানে আমরা বাধা দেওয়ার কেউ না।’তিনি উল্লেখ করেন, মা একা বাবার নতুন অফিস (এবি কিচেন) গুছিয়েছেন। বাড়ির মালিক অনেক দিন ধরে এবি কিচেনের আগের স্টুডিও সরিয়ে নেওয়ার জন্য অনুরোধ করছেন।

বিষয়টি জানার পর শামীম আংকেলসহ ব্যান্ডের সব সদস্যকে আম্মু বারবার অনুরোধ করেছেন, অফিস বদল করার সময় সঙ্গে থাকার জন্য। কিন্তু কেউ আসেনি। আম্মু আমাকে বলেছেন, সবাইকে ডাকি, কেউ তো আসে না। এবি কিচেন শিফট করতে আম্মুকে সহযোগিতা করেছেন আমাদের ড্রাইভার, বাবার অফিসের সহযোগী ছেলেটা, অফিস ব্যবস্থাপক আর বাবার বন্ধু দুলাল আংকেল। আর কেউ ছিল না।’

পিএনএস/হাফিজুল ইসলাম

 

@PNSNews24.com

আপনার মন্তব্য প্রকাশ করুন
Developed by Diligent InfoTech