‘সেক্সারসাইজ নয়, এক্সারসাইজেই গ্লো করছি’

  

পিএনএস ডেস্ক: সোশ্যাল মিডিয়ায় ফের বোমা ফাটালেন শ্রীলেখা মিত্র। যোগার পশ্চারের সঙ্গে আন ফিল্টারড ছবি মিশিয়ে পোস্ট করে দাবি অভিনেত্রীর, ‘সেক্সারসাইজ নয় এক্সারসাইজেই গ্লো করছি।’

পোস্ট দেখে বাড়ছে লাইক। সঙ্গে প্রশ্নও ঘুরছে, হঠাৎ কেন ‘সেক্সারসাইজ’, ‘এক্সারসাইজ’ নিয়ে মাথাব্যথা শ্রীলেখার? আনন্দবাজারকে শ্রীলেখা বলেন, আমার ডাক্তারবাবু বলেছিলেন, যৌনতা নিয়ে আমাদের দেশে হাজার ট্যাবু। কিন্তু রোজের যৌনতারও প্রয়োজন আছে। শারীরিক মিলন অবসাদ মুছিয়ে হ্যাপি হরমোনের ক্ষরণ বাড়ায়। তাই যৌনতার পর মানুষ অনেকটাই রিল্যাক্স হন। একই উপকার মেলে নিয়মিত শরীরচর্চা করলেও। আমি চেষ্টা করি নিয়মিত ঘণ্টাখানেক কি দেড়েক যোগাভ্যাসের। তার জন্যই এখনও ঝলমলে, সতেজ। এই কথাটাই বলতে চেয়েছি।

শ্রীলেখা আছেন, সেক্স নেই! সত্যি? এখানেও রাখঢাক নেই অভিনেত্রীর। তার দাবি, তিনি মানুষের সঙ্গে দূরত্ব বাড়িয়ে কাছে টেনে নিয়েছেন সারমেয় পোষ্যদের। পার্টি করেন না। বয়স বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে বায়নাক্কা বেড়েছে। চাওয়ার ধরনও বদলেছে। সেই সব চাহিদার সঙ্গে মানিয়ে নেওয়া সবার পক্ষে সম্ভব নয়। তিনি বিবাহিত পুরুষের সঙ্গেও প্রেম করবেন না। সব মিলিয়ে ‘সেক্সারসাইজ’ সত্যিই নেই তিনি।
একই সঙ্গে শ্রীলেখা খুশি, স্বজনপোষণ নিয়ে মুখ খোলার জন্য। এতে নাকি অনেকের মুখোশ খুলে গিয়েছে। জানান, ভাগ্যিস কথাগুলো বলেছিলাম! অনেক অবাঞ্ছিতরা সরে গিয়েছেন। আমার চারপাশে এখন যাঁরা আছেন তাঁরা সাচ্চা। ফলে, চারপাশে শুধুই পজিটিভ ভাইবস। সেই ইতিবাচক মন নিয়েই গোটা নভেম্বর শ্রীলেখা ব্যস্ত থাকবেন ওয়েব সিরিজের শ্যুটিংয়ে। তার পর হাত দেবেন তার প্রাথমিক স্তরের চিত্রনাট্য ঘষামাজা করতে। পুজোর আগে গিয়েছিলেন সুন্দরবন। সেখানে ত্রাণ বিলির পাশাপাশি পড়ালেন স্থানীয় ছেলেপুলেদের।

খুব ভালো লাগলো এই কাজ করে। রিফ্রেশ হলাম। সুযোগ পেলে আবার আসব, জানাতে ভুললেন না তিনি।

পিএনএস/এএ

 

@PNSNews24.com

আপনার মন্তব্য প্রকাশ করুন