চল্লিশ উপজেলার হাসপাতালে ৪০ অ্যাম্বুলেন্স হস্তান্তর

  

পিএনএস: গ্রামীণ মানুষের কাছে দ্রুত স্বাস্থ্য সেবা পৌঁছে দেওয়ার লক্ষ্যে দেশের আরও ৪০টি উপজেলার স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে অ্যাম্বুলেন্স হস্তান্তর করেছে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়।

এসব অ্যাম্বুলেন্সের মাধ্যমে জরুরি রোগীদের দ্রুত হাসপাতালে পৌঁছে দেওয়া হবে।

সোমবার রাজধানীর স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের কেন্দ্রীয় ঔষাধাগার প্রাঙ্গণে আয়োজিত এক অনুষ্ঠানে সংশ্লিষ্ট সংসদ সদস্যদের মাধ্যমে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স প্রতিনিধিদের হাতে অ্যাম্বুলেন্সের চাবি তুলে দেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিম।

অনুষ্ঠানের বক্তব্যে নাসিম বলেন, “বর্তমান সরকার দেশের সাধারণ মানুষের স্বাস্থ্য সুরক্ষাকে অগ্রাধিকার দিচ্ছে। স্বাস্থ্য সেবার অন্যতম প্রধান উপাদান অ্যাম্বুলেন্স। পর্যায়ক্রমে দেশের সকল উপজেলায় অ্যাম্বুলেন্স দেবে সরকার।”

এসব অ্যাম্বুলেন্স রক্ষণাবেক্ষণের জন্য একটি নীতিমালা তৈরি করা হবে বলে জানান স্বাস্থ্যমন্ত্রী।

অনুষ্ঠানে উপস্থিত সাংসদদের উদ্দেশে আওয়ামী লীগের এই নেতা বলেন, “এসব অ্যাম্বুলেন্স যেন কেউ ব্যক্তিগত কাজে ব্যবহার করতে না পারে। যদি কেউ করে তাহলে কঠোর ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

“জনগণের সেবা করুন, নির্বাচন আসলেতো তাদের কাছেই যেতে হবে। অ্যাম্বুলেন্স জনগণের সম্পদ মনে করে এর যত্ন নেবেন।”

মেডিকেল শিক্ষার মান রক্ষায় কোনো ছাড় দেওয়া হবে না মন্তব্য করে স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, “বার্নইউনিটের নার্সদের সিঙ্গাপুরে প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা করা হচ্ছে।”

“দেশের সকল হাসপাতালের অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ করা হয়েছে। শিগগির মহাখালীর অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ করা হবে।”

স্বাস্থ্য উন্নয়নে বাংলাদেশ আন্তর্জাতিক পুরস্কার পেয়েছে জানিয়ে স্বাস্থ্য প্রতিমন্ত্রী জাহিদ মালেক বলেন, “মা ও শিশু মৃত্যু কমিয়ে আনায় সফলতার জন্য পুরস্কৃত হয়েছেন প্রধানমন্ত্রী। দেশ ইতোমধ্যেই টিটানাস মুক্ত হয়েছে।

“দেশের স্বাস্থ্য খাতের আরও উন্নয়নের জন্য নতুন পাঁচটি মেডিকেল কলেজ স্থাপন করা হচ্ছে।”

দেশের বিপুল মানব সম্পদকে রক্ষা করা একটি বিশাল চ্যালেঞ্জ মন্তব্য করে এ খাতে বরাদ্দ বাড়ানো দরকার বলে মনে করেন প্রতিমন্ত্রী।

অনুষ্ঠানে সভাপতির বক্তব্যে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহা-পরিচালক ডা. আবুল কালাম আজাদ বলেন, “বর্তমান সরকার ক্ষমতায় আসার পর স্বাস্থ্য খাতের যে উন্নয়ন শুরু হয়েছিল এখন তা আরও বৃদ্ধি পেয়েছে।

“২০০৯ সাল থেকে ২০১৪ সাল পর্যন্ত পাঁচ বছরে উপজেলা পর্যায়ে অ্যাম্বুলেন্স দেওয়া হয়েছিল ১৫০টি। এরপর টানা দ্বিতীয় মেয়াদে ক্ষমতায় এসে মাত্র আড়াই বছরে এ পর্যন্ত ১৯১টি অ্যাম্বুলেন্স বিতরণ করা হয়েছে।”

শিগগির আরও ১৪টি অ্যাম্বুলেন্স বিতরণ করা হবে বলে জানান স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের এই মহাপরিচালক।

অনুষ্ঠানে অন্যদের মধ্যে ধর্মমন্ত্রী মতিউর রহমান, সাবেক তথ্যমন্ত্রী আবুল কালাম আজাদ, সংসদ সদস্য ইমরান আহমেদ, কেয়া চৌধুরী এবং বিরোধী দলীয় চিফ হুইপ সেলিম উদ্দিনসহ আরও অনেকে বক্তব্য রাখেন।


পিএনএস/বাকিবিল্লাহ্

 

@PNSNews24.com

আপনার মন্তব্য প্রকাশ করুন
Developed by Diligent InfoTech