যক্ষ্মা সম্পূর্ণভাবে নির্মূল করতে যা যা করবেন!

  

পিএনএস ডেস্ক : স্বাস্থ্য ডেস্ক : গত দুই শতকে সম্মিলিতভাবে ম্যালেরিয়া, প্লেগ, ইনফ্লুয়েঞ্জা, কলেরা, এইডস রোগে যত মানুষ মারা গিয়েছে, এর চেয়েও বেশি মানুষ মারা গিয়েছে যক্ষ্মার কারণে। এমনকি এইডসের চেয়েও মারাত্মক সংক্রামক রোগ হয়ে দাঁড়িয়েছে এই যক্ষ্মা।

প্রায় ৯৭ বছর আগে এই মারাত্মক রোগের ভ্যাক্সিন তৈরি হয়েছে। এর মানে সাশ্রয়ী মূল্যের ওষুধের সহজলভ্যতা যক্ষ্মা দূরীকরণে আমাদের সহায়তা করতে পারে। তবে দরিদ্র দেশগুলোতে বিত্তবানরা স্বাস্থ্য সুবিধা নিতে পারলেও দরিদ্ররা বেশিরভাগ সময়ই স্বাস্থ্যসেবার বাইরে রয়ে যায়। এর ফলে তারা কষ্টকর পরিণতি বরণ করতে বাধ্য হয়।

অধিকাংশ ক্ষেত্রেই প্রাপ্তবয়স্কদের মাঝেই এই ভয়াবহ রোগের প্রকোপ বেশি হয়ে থাকে। ফলে তাদের রোগাক্রান্ত হয়ে পরার কারণে পুরো পরিবারই ক্ষতির মুখে পরে। আর রোগাক্রান্ত হয়ে মৃত্যুর কারণে পুরো পরিবারই অসহায় অবস্থায় পরে যায়।

অধিকাংশ ক্ষেত্রেই দরিদ্র লোকজন প্রাথমিক অবস্থায় ডাক্তারের কাছে যাওয়া শুরু করলেও পরবর্তীতে তারা নানা কারণে চিকিৎসা চালিয়ে যেতে পারেন না। যক্ষ্মা রোগের চিকিৎসা দীর্ঘমেয়াদী সময় পর্যন্ত চালিয়ে যেতে হয় বলে দরিদ্র লোকদের পক্ষে ওষুধের খরচ চালিয়ে যাওয়া কষ্টকর হয়ে পরে।

তাছাড়া কয়েকদিন পর একটু সুস্থ বোধ করলে অনেকেই পুরো কোর্স সম্পূর্ণ না করে কোর্স বন্ধ করে দেন। এটি তাদেরকে মারাত্মক পরিণতির দিকে ঠেলে দেয়। আর এটি ওষুধ সহিষ্ণু যক্ষ্মার জীবাণু তৈরি করে যা আরও বেশি ক্ষতিকর। তাই পুরো কোর্স অবশ্যই শেষ করার পরামর্শ দেন ডাক্তাররা।

আর তাছাড়া সারা দেশে ডটস সেন্টারে বিনা মূল্যে যক্ষ্মার ওষুধ দেওয়া হয়। তাই রোগের লক্ষণ দেখা দিলে অবিলম্বে চিকিৎসকের পরামর্শ নেয়ার তাগিদ দেন বিশেষজ্ঞরা।

প্রসঙ্গত, যক্ষ্মা রোগের একমাত্র টিকার বয়স ১০০ পার হতে চলেছে৷ তবে ইউরোপীয় ইউনিয়নের একটি গবেষণা প্রকল্পে একটি নতুন, ‘জীবন্ত’ টিকা তৈরি নিয়ে কাজ চলেছে৷

পিএনএস/এএ

 

@PNSNews24.com

আপনার মন্তব্য প্রকাশ করুন
Developed by Diligent InfoTech