শেখ হাসিনা সহ বিশ্বের বিভিন্ন দেশের রাষ্ট্রপ্রধানরা কে কত বেতন পায়?

  

পিএনএস ডেস্ক: বারাক ওবামা: মার্কিন প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামার বার্ষিক বেতন ৪ লাখ মার্কিন ডলার বা ৩ দশমিক ১৭ কোটি টাকা। আগামী বছর ২০ জানুয়ারি হোয়াইট হাউস ছেড়ে যাবেন ওবামা। ২০০১ সালে জর্জ ডব্লিউ বুশের আমলেই মার্কিন প্রেসিডেন্টের বেতন দ্বিগুণ হয়েছে। আর ওবামা অতিরিক্ত করমুক্ত ৫০ হাজার ডলার পান ব্যয় হিসেবে। অর্থাৎ প্রতি মাসে পান ২৬ লাখ ৬৬ হাজার টাকা। ২০০৯ সালের ২০ জানুয়ারি থেকে তিনি যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন। প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের আগে তার পেশা ছিল আইনের অধ্যাপনা, আইনজীবী এবং লোখালেখি। দায়িত্ব শেষে তিনি হয়তো তার আগের পেশায় ফিরে যাবেন। তার নিট সম্পদের পরিমাণ ৭ মিলিয়ন ডলার।

জাস্টিন ট্রুডো: বেতনের দিক দিয়ে ওবামার পরই রয়েছেন কানাডার প্রধানমন্ত্রী জাস্টিন ট্রুডো। তিনি বারাক ওবামার চেয়ে ১ লাখ ৪০ হাজার ডলার কম বেতন পান। জাস্টিন ট্রুডো বছরে পান ২ লাখ ৬০ হাজার মার্কিন ডলার বা ২ দশমিক শূন্য ৬ কোটি টাকা। ফুলটাইম এই রাজনীবিদের অন্যতম পেশা শিক্ষকতা। তার নিট সম্পদের পরিমাণ ১ দশমিক ২ মিলিয়ন ডলার।

আঙ্গেলা মেরকেল: গত বছর টাইমের বর্ষসেরা ব্যক্তিত্ব হয়েছেন জার্মানির চ্যান্সেলর আঙ্গেলা মেরকেল। ট্রুডোর পরই রয়েছে তার অবস্থান। পদার্থবিদ আঙ্গেলা মেরকেল ২০০৫ সালের ২২ নভেম্বর থেকে জার্মানির চ্যান্সেলর হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন। সাম্প্রতিক জার্মানির চ্যান্সেলর ও মন্ত্রীদের বেতন ২ দশমিক ২ শতাংশ বেড়েছে। এ হিসাবে বর্তমানে তার বার্ষিক বেতন ২ লাখ ৩৪ হাজার ৪০০ ডলার বা ১ দশমিক ৮৮ কোটি টাকা। মাসিক বেতন ১৫ লাখ ৬২ হাজার টাকা। তার নিট সম্পদের পরিমাণ ১১ দশমিক ৫ মিলিয়ন ডলার।

জ্যাকব জুমা: দক্ষিণ আফ্রিকার প্রেসিডেন্ট জ্যাকব জুমার বার্ষিক বেতন ২ লাখ ২৩ হাজার ৫০০ ডলার বা ১ কোটি ৭৮ লাখ ৮০ হাজার টাকা। মাসিক বেতন ১৪ লাখ ৯০ হাজার টাকা। ২০০৯ সাল থেকে দক্ষিণ আফ্রিকার বর্তমান প্রেসিডেন্টের দায়িত্ব পালন করছেন। রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট এবং জাপান ও যুক্তরাজ্যের প্রধানমন্ত্রীর চেয়ে বেশি বেতন পান জুমা। তার নিট সম্পদের পরিমাণ ২০ মিলিয়ন ডলার। তিনি কোনো প্রাতিষ্ঠানিক শিক্ষালাভ করতে পারেননি। জুমা এ পর্যন্ত ছয়বার বিয়ে করেছেন। ডেইলি টেলিগ্রাফের মতে, জ্যাকব জুমার ২০টি সন্তান রয়েছে।

২০০৯-১০ অর্থবছরে জুমা ১ দশমিক ২ মিলিয়ন ব্রিটিশ পাউন্ড স্ত্রীদের ভরণ-পোষণ বাবদ তিনি গ্রহণ করেছেন। এ পরিমাণ অর্থ পূর্ববর্তী
প্রেসিডেন্টদের কার্যকালীন সময়ে গৃহীত ভাতার দ্বিগুণ।

শিনজো আবে: শিনজো আবে জাপানের প্রধানমন্ত্রী। বেতনের দিক দিয়ে তার অবস্থান পঞ্চম। তিনি দায়িত্ব পালন করছেন ২০১২ সালের ২৬ ডিসেম্ব^র থেকে। তার বার্ষিক বেতন ২ লাখ ৩ হাজার ডলার বা ১ দশমিক ৬০ কোটি টাকা। মাসিক বেতন ১৩ লাখ ৫১ হাজার টাকা। পুরোপুরি এই রাজনীতিবিদের নিট সম্পদের পরিমাণ ১০ মিলিয়ন ডলার।

ফ্রাঁসোয়া ওলাঁদ: বিশ্বাস না হলেও এটাই সত্যি যে, ফ্রান্সের প্রেসিডেন্ট ফ্রাঁসোয়া ওলাঁদ তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রিসেপ তাইয়েপ এরদোগানের চেয়েও কম বেতন পান। বছরে ১ লাখ ৯৪ হাজার ডলার বা ১ দশমিক ৫৪ কোটি টাকা বেতন পান ওলাঁদ। মাসিক বেতন ১২ লাখ ৯৫ হাজার টাকা। ২০১২ সালের ১৫ মে মাসে দায়িত্ব নেওয়ার পর দেশটির আগের প্রেসিডেন্ট থেকে ৩০ শতাংশ কম তার বেতন ধার্য করেন। তবে আগের প্রেসিডেন্ট নিকোলাস সারকোজি নিতেন বার্ষিক ২ লাখ ৫৫ হাজার ৬০০ ডলার, যা ছিল দ্বিতীয় সর্বোচ্চ। বর্তমানে ফুলটাইম রাজনীতিবিদ একসময় পেশায় ছিলন ম্যাজিস্ট্রেট ও উকিল। তার নিট সম্পদের পরিমাণ ২ মিলিয়ন ডলার।

ভ্লাদিমির পুতিন: বিশ্বের অন্যতম ক্ষমতাধর দেশ রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন। তবে সরকার ও রাষ্ট্রপ্রধানদের মধ্যে বেতন পাওয়ার ক্ষেত্রে অন্য অনেকের চেয়েই পিছিয়ে আছেন তিনি। রাশিয়ার প্রেসিডেন্টের বেতন অন্যদের তুলনায় খুব একটা বেশি নয়। রাশিয়ায় অর্থনৈতিক মন্দা চলছে। এ কারণে গত বছর দেশটির প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন তার বেতন ১০ শতাংশ কমিয়েছেন। বর্তমানে তার বেতন বার্ষিক ১ লাখ ৩৬ হাজার ডলার বা ১ কোটি ৮ লাখ ৮০ হাজার টাকা। মাসিক বেতন ৯ লাখ ৬ হাজার টাকা। উন্নত অর্থনীতির দেশের সরকারপ্রধানদের মধ্যে বেতনের অঙ্কে তার অবস্থান অষ্টম। তার সম্পদের পরিমাণ নিয়ে রয়েছে ধোয়াশা। কোনো কোনো সূত্রমতে, তার পরিমাণ ৪০-২০০ বিলিয়ম ডলারের।

রিসেপ তাইয়েপ এরদোগান: তুরস্কের প্রেসিডেন্টের বছরে বেতন ১ লাখ ৯৭ হাজার ডলার বা ১ দশমিক ৫৬ কোটি টাকা। জাপানের প্রধানমন্ত্রী শিনজো আবের পরই বেতন পান তুরস্কের প্রেসিডেন্ট। বিতর্কিত এ রাজনীতিবিদের নিট সম্পদের পরিমাণ ২ বিলিয়ন ডলার। প্রেসিডেন্টের দায়িত্ব গ্রহণের আগেও ২০০৩ থেকে ২০১৪ সাল পর্যন্ত তুরস্কের প্রধানমন্ত্রী হিসেবে এবং তার আগে ১৯৯৪ থেকে ১৯৯৮ সাল পর্যন্ত ইস্তাম্বুলের মেয়র হিসেবে তিনি দায়িত্ব পালন করেন।

তেরেসা মে: ক্ষমতাধর দেশ যুক্তরাজ্য। দেশটির প্রধানমন্ত্রী তেরেসা মে। বছরে বেতন পান ১ লাখ ৭৮ হাজার ২৫০ ডলার। তার স্বামী ক্যাপিটাল ইন্টারন্যাশনালে কর্মরত বিনিয়োগকারী ব্যাংকার ফিলিপ জন মে। ফিলিপ জন মে ১ দশমিক ৪ ট্রিলিয়ন ডলার নিয়ন্ত্রণ করেন। ফুলটাইম রাজনীতিতে জড়িয়ে পড়ার আগে তিনি ব্যাংক অব ইংল্যান্ডে চাকরি করতেন তেরেসা মের। তার নিট সম্পদের পরিমাণ ৩ মিলিয়ন ব্রিটিশ পাউন্ড বা ৩ দশমিক ৮ মিলিয়ন ডলার। ২০১৬ সালের ১৩ জুলাই রানি দ্বিতীয় এলিজাবেথের কাছ থেকে প্রধানমন্ত্রী ডেভিড ক্যামেরনের স্থলাভিষিক্ত হন।

মাত্তেও রেনজি: বামপন্থি রাজনীতিক মাত্তেও রেনজি ইতালির সর্বকনিষ্ঠ প্রধানমন্ত্রী হিসেবে শপথ নিয়েছিলেন ২০১৪ সালের ২২ ফেব্রুয়ারি। বেতন পাওয়ায় তার অবস্থান নবম। বার্ষিক বেতন ১ লাখ ২৪ হাজার ৬০০ ডলার বা ৯৯ লাখ টাকা। ফুলটাইম এ রাজনীতিবিদের সম্পদের পরিমাণ ২৪৫ মিলিয়ন ডলার।

শি জিনপিং: বিশ্বের দ্বিতীয় বৃহত্তম অর্থনীতির দেশ চিনের প্রেসিডেন্ট শি জিনপিংয়ের বেতন বিশ্বের অনেক ছোট অর্থনীতির দেশের সরকার ও রাষ্ট্রপ্রধানের চেয়েও কম। তবে চলতি বছর ৬০ শতাংশ বাড়ার পরও তার বার্ষিক বেতন দাঁড়িয়েছে ২২ হাজার ডলার বা ১৭ লাখ ৬০ হাজার টাকা। মাসিক বেতন ১ লাখ ৪৬ হাজার টাকা। তিনি দেশটির প্রেসিডেন্ট হিসেবে তিনি দায়িত্ব নেন ২০১২ সালের ১৫ নভেম্বর। সাবেক এই রাসায়নিক প্রকৌশলীর পরিবারের কাছে রয়েছে নিট ১ বিলিয়ন ডলারের সমপরিমাণ সম্পদ।

নরেন্দ্র মোদি: সম্প্রতি ৫০০ ও ১ হাজার রুপির নোট বাতিল করে সমালোচকদের কাছে তুঙ্গে থাকলেও বেতনের দিক দিয়ে তার অবস্থান অনেকেরই পেছনে। তিনি ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। বছরে ৩০ হাজার ৩০০ ডলার বা ২৪ লাখ টাকা বেতন পান তিনি। মাসিক বেতন ২ লাখ ২ হাজার টাকা। ১ দশমিক ৪ কোটি টাকার সম্পদ রয়েছে তার। নরেন্দ্র মোদি ছিলেন গুজরাটের মুখ্যমন্ত্রী। ডানপন্থি দল বিজেপির টিকিটে হয়েছেন ভারতের ১৫তম প্রধানমন্ত্রী। ২০১৪ সালের ২৬ মে থেকে এ দায়িত্ব পালন করছেন তিনি।

শেখ হাসিনা: চলতি বছর বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রীর মাসিক বেতন ৫৮ হাজার ৬০০ থেকে বাড়িয়ে ১ লাখ ১৫ হাজার টাকা করা হয়। মে মাসে এ সংক্রান্ত একটি বিল পাস হয়। বেতন বাড়ার পর বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রীর বছরে মোট বেতন দাঁড়িয়েছে ১৩ লাখ ৮০ হাজার টাকা বা ১৭ হাজার ৫০০ ডলার। ২০১৩-১৪ অর্থবছরের আয়কর বিবরণীতে দেখা যায়, তার নিট সম্পদ ৫ কোটি ৫৬ লাখ ৪৬ হাজার ৩৯ টাকার।

পিএনএস/আলআমীন

 

@PNSNews24.com

আপনার মন্তব্য প্রকাশ করুন
Developed by Diligent InfoTech