চলন্ত ট্রেনে ছয় নরপশু লালসার শিকার তরুণী!

  

পিএনএস ডেস্ক : তরুণীকে গণধর্ষণের পর চলন্ত ট্রেন থেকে ছুঁড়ে ফেলে দেওয়ার অভিযোগ উঠল ভারতের বিহারে। আশঙ্কাজনক অবস্থায় পাটনা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসা চলছে তার। বিহারের লখিসরাই জেলার লাখোচক গ্রামের বাসিন্দা ওই কিশোরী ক্লাস টেনের ছাত্রী।

পরিবার ও পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, শৌচকাজ করতে বৃহস্পতিবার রাতে বাড়ির বাইরে বেরোয় সে। তখন পরিচিত ছ’জনের একটি দল তাকে তুলে নিয়ে যায় বংশীপুর রেল স্টেশনে। তারপর তোলা হয় লোকাল ট্রেনে। চলন্ত ট্রেনে গণধর্ষণ করা হয়। শুক্রবার ভোরবেলা কিউল জংশনের কাছে চলন্ত ট্রেন থেকে ছুঁড়ে ফেলে দেওয়া হয়। স্থানীয়রা উদ্ধার করে কাছাকাছি একটি মেডিক্যাল সেন্টারে নিয়ে যান। খবর পেয়ে বিকেলে সেখানে পৌঁছয় পরিবার। অবস্থার অবনতি হতে থাকায় রেফার করা হয় পটনা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে।

কিন্তু সেখানেও চূড়ান্ত অব্যবস্থা। ওই অবস্থায় প্রায় ১৪ ঘণ্টা তাকে মেঝেতে ফেলা রাখা হয় বলে অভিযোগ। সংবাদমাধ্যমে বিষয়টি নিয়ে সরব হওয়ায় পর নির্যাতিতার চিকিৎসা শুরু হয়। শনিবার গভীর রাতে তাকে বেড দেওয়া হলেও, চিকিৎসার জন্য ঘুষ চাওয়া হয় বলে অভিযোগ।

পুলিশ জানিয়েছে ধর্ষকরা প্রত্যেকেই নির্যাতিতার পূর্ব পরিচিত। অভিযুক্তদের একজন ক্লাস নাইনের ছাত্র। বাকিরা তারা ক্লাসফ্রেন্ড। পুলিশের কাছে জবানবন্দিতে কয়েকজনের নাম জানিয়েছে ওই নাবালিকা। পুলিশ আপাতত তিনজনকে আটক করেছে, বাকিদের খোঁজ চলছে।

এদিকে এই ঘটনার পর পরই মুখ্যমন্ত্রী নীতিশ কুমার তদন্তের নির্দেশ দিয়েছেন। অপরাধীদের পাকড়াও করে উপযুক্ত শাস্তিরও নির্দেশ দিয়েছেন বিহারের মুখ্যমন্ত্রী।

পিএনএস/জে এ /মোহন

 

@PNSNews24.com

আপনার মন্তব্য প্রকাশ করুন
Developed by Diligent InfoTech