শেখ আব্দুল্লাহ বিন আলী আল থানীর মধ্যস্থতায় কাতার-সৌদির সম্পর্ক স্বাভাবিক হতে চলছে

  

পিএনএস, সৌদিআরব প্রতিনিধি : কাতার-সৌদির আকাশে জমে থাকা কালো মেঘ কেটে যাওয়ার কিছু আভাস পাওয়া যাচ্ছে। শেখ আব্দুল্লাহ বিন আলী আল থানী যার দাদা ছিলেন কাতারের তৃতীয় শাসক। তার বাবা ছিলেন চতুর্থ শাসক আর তার ভাই ছিলেন পঞ্চম শাসক। কাতারের শাসক পরিবারের অতি বুদ্ধিমান ভদ্রজন হিসেবে পরিচিত এই ব্যক্তির উদ্যোগে হটাৎ করেই সৌদি শাসকদের মন গলে গেছে। উনি প্রথমে এলেন মুহাম্মদ বিন সালমানের সাথে সাক্ষাত করতে। এরপর ছুটে গেলেন মরক্কোয় অবকাশকালীন ছুটিতে থাকা বাদশাহ সালমানের প্রাসাদে।

বাদশাহ সালমান শেখ আব্দুল্লাহ আল থানীর এই বিনয়বনত আগমণকে স্বাগত জানালেন। ঘোষণা দিলেন, হজ্জ পারমিট ছাড়াই কাতারী জনগণ হজ্জ করবেন। সৌদি এয়ারলাইনস কাতার থেকে ফ্রি হাজী নিয়ে আসবেন। সকল কাতারী হাজীদের এক রিয়ালও খরচ করতে হবে না। সবাই বাদশাহ সালমানের খরচে হজ্জ করবেন রাষ্ট্রীয় অতিথি হিসেবে।

সালওয়া বর্ডার দিয়ে ইতিমধ্যে ১০০ হাজী প্রবেশ করেছেন। তাদেরকে বরণ করা হয়েছে সুন্দরভাবে. শেখ আবদুল্লাহ বলেন, সৌদি বাদশা সালমান বীন আব্দুল আজি কাতারী হাজীদের জন্য বিনা করছে দম্মম ও আল-আহসা আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর থেকে সব কাতারি হজ যাত্রীদের পরিবহণের জন্য আদেশ দেন, দোহা বিমানবন্দর থেকে সৌদি এয়ারলাইন্স এর মাধ্যমে জেদ্দা আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে পরিবহনের নির্দেশ দেন সৌদি বাদশা সালমান। তিনি আরো বলেন সৌদি বাদশার এই মহানুভবতা সৌদি ও কাতারি জনগনের এবং কিংডম নেতৃত্ব এবং কাতার মধ্যে রাজকীয় পরিবার মধ্যে ভ্রাতৃত্বের গভীর সম্পর্ক নিশ্চিত হবে।


সৌদি বাদশার আমন্ত্রণে ডিনারে অংশগ্রহণ করেন শেখ আব্দুল্লা বীন আল থানী সেই সময় আরো অনেক মন্ত্রীদের এবং ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা গন ডিনারে অংশগ্রহণ করেন বলে জানিয়েছেন সৌদি প্রেস এজেন্সি (এসপিএ)আমরা আশা করছি, হজ্জের ওছিলা করে সম্পর্ক উন্নয়নের এই যাত্রা যেন আবার থেমে না যায়। আরব রাষ্ট্রগুলো এখন ইতিহাসের সবচেয়ে ক্রান্তিকাল অতিক্রম করছে। সকল আরব রাষ্ট্রগুলো ঐক্যবদ্ধ থাকা গোটা মুসলিম উম্মাহর জন্য একান্ত জরুরী.

পিএনএস/মোঃ শ্যামল ইসলাম রাসেল




 

@PNSNews24.com

আপনার মন্তব্য প্রকাশ করুন
Developed by Diligent InfoTech