বাংলাদেশের সীমান্ত ঘেঁষে কাঁটা তারে বিদ্যুৎ সংযোগ দিচ্ছে মিয়ানমার

  

পিএনএস ডেস্ক: বাংলাদেশের সীমান্ত ঘেঁষে এবার নতুন করে কাঁটা তারের বেড়া নির্মান করছে মিয়ানমার সেনাবাহিনী।

গত দু’দিন ধরে বান্দরবানের নাইক্ষ্যংছড়ি উপজেলার অন্তত তিনটি পয়েন্টে সেনা সদস্যদের উপস্থিতিতে কাঁটাতারের বেড়া স্থাপন করছে মিয়ানমারের শ্রমিকরা।

সে সাথে ওই কাঁটা তারের বেড়ায় বিদ্যুৎ সংযোগ দেয়া হচ্ছে বলে অভিযোগ সীমান্তবর্তী বাংলাদেশী এবং রোহিঙ্গাদের। আর এটিকে চরম মানবাধিকার লংগন হিসেবে দেখছেন মানবাধিকার কর্মীরা।

বাংলাদেশ-মিয়ানমার সীমান্তের বান্দরবানের নাইক্ষ্যংছড়ি উপজেলার ঘুমধুম এবং তমব্রু সীমান্ত ঘেঁষে কয়েকটি পয়েন্টে গত দু’দিন ধরে কাঁটাতারের বেড়া স্থাপন করছে মিয়ানমারের সীমান্তরক্ষী বাহিনী।

শুক্রবার ঘুমধুম সীমান্তে কাঁটাতারের বেড়া স্থাপন করার পর শনিবার সকাল থেকে আমতল সীমান্তে কাঁটাতারের বেড়া স্থাপনের কাজ শুরু করে তারা। এসময় পাশ্ববর্তী একটি পাহাড়ে অবস্থান নিয়েছিলো মিয়ানমার বাহিনীর কয়েকজন সদস্য।

মেরামতের নামে নতুন করে কাঁটাতারের বেড়া স্থাপন এবং সেখানে বিদ্যুৎ সংযোগ দেয়া হচ্ছে বলে অভিযোগ স্থানীয় বাংলাদেশী এবং রোহিঙ্গাদের।

গত ২৩ আগষ্ট মিয়ানমারে সংঘাত শুরু হলেও ২৫শে আগষ্ট থেকে রোহিঙ্গারা বাংলাদেশে আসতে শুরু করে। এর মাঝে সাড়ে চার লাখের বেশি রোহিঙ্গা বাংলাদেশে অনুপ্রবেশ করলেও কিছু কিছু রোহিঙ্গা এখনো জিরো পয়েন্টে অবস্থান নিয়ে আছে।

কাঁটাতারের বেড়াকে বিদ্যুৎ তাড়িত করায় স্থানীয়দেরকেই সবচেয়ে বেশি ক্ষতির মুখে পড়তে হবে। এছাড়া বিষয়টি চরম অমনাবিক বলে মন্তব্য করেছেন সীমান্ত পরিদর্শনে আসা এ মানবাধিকার কর্মী।

কাঁটাতারের বেড়াকে বিদ্যুৎ তাড়িত করার ব্যাপারে কোনো মন্তব্য না করলেও মিয়ানমারের এ আচরণের উপর কড়া নজর রাখছে বাংলাদেশের সীমান্ত রক্ষী বাহিনী বিজিবি।

বাংলাদেশ-মিয়ানমারের ২০৮ কিলোমিটার সীমান্তের কিছু কিছু আংশে আগে থেকেই কাঁটাতারের বেড়া থাকলে তেমন তদারকি ছিলো না। কিন্তু রোহিঙ্গারা বাংলাদেশে চলে আসার পর সীমান্তে নিরাপত্তা জোরদার করে মিয়ানমার বাহিনী।

পিএনএস/হাফিজুল ইসলাম

 

@PNSNews24.com

আপনার মন্তব্য প্রকাশ করুন
Developed by Diligent InfoTech