‘সেক্স প্রতিটি ব্যক্তির মৌলিক অধিকার’

  

পিএনএস ডেস্ক : আগামী মাসে ভারেতর গুজরাটে নির্বাচন৷ এই নির্বাচনকে ঘিরে সরকার দল ও বিরোধী দলের মধ্যে চলছে সেয়ানে সেয়ানে লড়াই৷ বিরোধীদলের নেতারা জানিয়েছেন, সেক্স ভিডিও নিয়ে একটা নোংরা রাজনীতি করার চেষ্টা করছে বিজেপি৷ এমনটাই মত বিরোধী দলের৷ যদিও এই অভিযোগটি একেবারেই অস্বীকার করেছে কেন্দ্রের সরকার দল৷ বিজেপি নেতা মনসুখ মন্দাভিয়া পাল্টা প্রশ্ন ছুঁড়ে দিয়েছেন হার্দিক প্যাটেলকে৷ তিনি বলেন, যদি এই সেক্স টেপের ভিডিওটি একেবারেই মিথ্যে হয় তাহলে কেন পুলিশে অভিযোগ দায়ের করছেন না হার্দিক পটেল?

তবে, এটিই প্রথম নয়৷ এর আগেও হার্দিক পটেলের একটি বিতর্কিত ভিডিও প্রকাশ্যে এসেছিল৷ বন্ধুদের সঙ্গে মদ্যপান করতে দেখা গিয়েছে তাকে ওই ভিডিওটিতে৷ গুজরাট যেখানে ড্রাই স্টেট সেখানে কিভাবে হার্দিক বন্ধুদের সঙ্গে বসে এভাবে মদ্যপান করলেন?

বিভিন্ন মহলে এই নিয়ে শুরু হয়ে যায় নানা তর্ক বিতর্ক৷ গত মে মাসে এই ভিডিওটিতে সোশ্যাল মিডিয়াতে ভাইরাল হয়ে গিয়েছিল৷ ঠিক ওই সময়তেই হার্দিক পটেল এবং তাদের বন্ধুরা ‘পটেল আন্দোলন’ নিয়ে উঠে পড়ে লেগেছিলেন৷ সেক্ষেত্রে মদ্যপানের এই ভিডিওটিও যে বিরোধীদের একটি চক্রান্ত সেই বিষয়টি নিয়ে বেশ কিছুটা হলেও নিশ্চিত ছিলেন হার্দিক৷

গতকাল প্রকাশ্যে এসেছিল হার্দিক পটেলের সেক্স ভিডিও৷ এই ভিডিও ছড়িয়ে পড়ার পর, হার্দিক পটেল ট্যুইট করে জানিয়েছিলেন, ‘নোংরা রাজনীতি শুরু হল। অপবাদ দিতে পারেন, তবে কোনও ফারাক পড়বে না। গুজরাটের মহিলাদের অপমান করা হল।’ এই ভাইরাল ভিডিও প্রসঙ্গে, কেন্দ্রীয় মন্ত্রী প্রকাশ জাভড়েকর কোনও মন্তব্য করতে অস্বীকার করেন। তিনি বলেন, ‘এটা ব্যক্তিগত জীবনে হস্তক্ষেপ। হার্দিক সিঙ্গল, তার ব্যক্তিগত জীবন রয়েছে। সে যদি কোনও মহিলাকে জোর না করে তাহলে তাকে আক্রমণ করা উচিৎ নয়।’

পিএনএস/জে এ /মোহন

 

@PNSNews24.com

আপনার মন্তব্য প্রকাশ করুন
Developed by Diligent InfoTech