পাকিস্তানের অর্থমন্ত্রীর বিরুদ্ধে জামিনঅযোগ্য গ্রেপ্তারি পরোয়ানা

  


পিএনএস ডেস্ক: পাকিস্তানের অর্থমন্ত্রী ইসহাক দারের বিরুদ্ধে জামিনঅযোগ্য গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি করেছেন দেশটির একটি দুর্নীতিবিরোধী আদালত। দেশটির বর্ষীয়ান এই রাজনীতিক কয়েক দফায় আদালতে শুনানিতে হাজিরা না দেয়ায় মঙ্গলবার এই পরোয়ানা জারি করা হয়।

আন্তর্জাতিক বাজার থেকে পাকিস্তান যখন বাড়তি একশ কোটি ডলার ঋণ নেয়ার চেষ্টা করছে, তখন এই পরোয়ানা জারি করা হলো। ধারণা করা হচ্ছে, দেশটির সরকারের এই প্রচেষ্টায় অর্থমন্ত্রীর বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানার প্রভাব পড়তে পারে।

ইসহাক দারের বিরুদ্ধে আয় বহির্ভূত সম্পদ অর্জনের অভিযোগে দুর্নীতিবিরোধী সংস্থা ন্যাশনাল অ্যাকাউন্টিবিলিটি ব্যুরোর (ন্যাব) আদালতে শুনানি অনুষ্ঠিত হয়।

আদালতের এক বিবৃতি বলা হয়, ক্রমাগত অনুপস্থিতির কারণে বিচারক মোহাম্মদ বশির এই পরোয়না জারি করেন। টানা তিন সপ্তাহ শুনানিতে আদালতে অনুপস্থিত ছিলেন দার।

তবে সব অভিযোগ অস্বীকার করেছেন দার। তিনি এখন চিকিৎসার জন্য লন্ডনে রয়েছেন। পাকিস্তানে ফিরলেই তাকে গ্রেপ্তার করা হতে পারে।

এদিকে আগামী ২১ নভেম্বর পর্যন্ত মামলার কার্যক্রম স্থগিত করা হয়েছে।

দার পাকিস্তানের সাবেক প্রধানমন্ত্রী নওয়াজ শরিফের ঘনিষ্ঠজন বলে পরিচিত। দারের ছেলের সঙ্গে নওয়াজ শরিফের মেয়ের বিয়ে হয়েছে।

গত জুলাইয়ে পাকিস্তান সুপ্রিম কোর্ট দুর্নীতির অভিযোগে নওয়াজকে অযোগ্য ঘোষণা করলে তিনি প্রধানমন্ত্রী পদ থেকে সরে দাঁড়ান। দুর্নীতি মামলায় নওয়াজ শরিফসহ তার পরিবারের কয়েকজনের বিরুদ্ধে মামলা চলছে।

পাকিস্তানের অর্থনীতির খারাপ সময়ে ইসহাক দারের জন্য এই আইনি সংকট সৃষ্টি হলো। ইতোমধ্যে বিভিন্ন মহল থেকে তার পদত্যাগের দাবি উঠলেও এখন পর্যন্ত তিনি তা প্রত্যাখ্যান করে চলেছেন।

বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ হ্রাস এবং ক্রমবর্ধমান বাজেট ঘাটতির কারণে আন্তর্জাতিক ঋণ পরিশোধের ক্ষেত্রে সঙ্কটে পড়েছে পাকিস্তান।

গত এক বছরে ব্যাষ্টিক অর্থনীতির চাপ সামাল দিতে মুদ্রা রুপি অবমূল্যায়ন করতে অস্বীকৃতি জানানোর কারণেও দারকে সমালোচনার মুখে পড়তে হয়। তার বিরুদ্ধে কেন্দ্রীয় ব্যাংকের স্বাধীনতায় হস্তক্ষেপেরও অভিযোগ রয়েছে।

পিএনএস/আনোয়ার

 

@PNSNews24.com

আপনার মন্তব্য প্রকাশ করুন
Developed by Diligent InfoTech