আমাকে ধর্ষণ করে আমার কাপড়ও ফেরত দিত না

  


পিএনএস ডেস্ক: তালেবান জঙ্গি গোষ্ঠী হাক্কানি নেটওয়ার্কের ডেরায় আটক ছিলেন পাঁচটি বছর! এসময় ধর্ষণের স্বীকার হয়েছেন বহুবার। জোর করে করানো হয়েছে গর্ভপাত। ক’দিন আগেই সেই ভয়াল বন্দিদশা থেকে মুক্তি পাওয়া মার্কিন নারী কেইটল্যান বয়েল জানালেন তার উপর চালানো জঙ্গিদের পাশবিক নির্যাতনের কথা।

২০১২ সালে বিয়ের পর স্বামী জশুয়া বয়েলকে নিয়ে ঘুরতে গিয়েছিলেন আফগানিস্তানে। সেখানেই জঙ্গিরা তুলে নিয়ে যায় এই দম্পতি। এরপর বন্দিশালায় কাটাতে হয় পাঁচটি বছর। বন্দি অবস্থাতেই তিন সন্তানের মা হয়েছেন কেইটল্যান।

সম্প্রতি নিজের উপর চলা নির্যাতনের কথা বর্ণনা দিতে গিয়ে তিনি বলেন, ‘‘ওরা আমার ওপর, আমার স্বামী, ছেলেমেয়েদের ওপর যে নির্মম অত্যাচার করেছে, তা বলার নয়। ওরা শিশুদেরও রেহাই দেয় না। আমাকে প্রচণ্ড মারধর করা হত। মার খেয়ে আমার সারা গায়ে কালশিটে পড়ে গিয়েছিল। ঘরে ঢুকে আমাকে নিয়ে যেন লোফালুফি করত জঙ্গিরা। এখান থেকে তুলে এক জঙ্গি আমাকে ঘরের অন্য প্রান্তে ছুড়ে দিচ্ছে তো ওখান থেকে আমাকে ছুড়ে ফেলে দিচ্ছে আরেক জঙ্গি।’

জঙ্গিদের মারের হাত থেকে নিজের সন্তানদের বাঁচাতে গিয়ে চিবুকের হাড় ও হাতের তিনটি আঙুল ভেঙেছে বলেও জানান তিনি।

একবার ধর্ষণের পর কেইটল্যানের কাপড়ও ফেরত দেয়নি জঙ্গিরা।

সেদিনের কথা মনে করে তিনি বলেন, ‘ঘরে এসে আমার স্বামীকে জোর করে বাইরে নিয়ে যায় তারা। একজন এসে আমাকে ক্রমাগত মারতে থাকে। বারবার বলতে থাকে, আমাকে নাকি মেরে ফেলবে ওরা! এরপরই দুজন পুরুষ এসে আমাকে ধর্ষণ করে। পরে ওই পশুগুলো আমাকে আমার কাপড়ও ফেরত দেয়নি।’

কিছুদিন আগে যুক্তরাষ্ট্রের সহায়তায় আফগান সীমান্ত থেকে এই দম্পতিকে উদ্ধার করে পাকিস্তানি সেনাবাহিনী। এখন কানাডায় ফের স্বাভাবিক জীবনে ফিরে যাওয়ার চেষ্টা করছেন তারা। সূত্র : এনডিটিভি

পিএনএস/কামাল

 

@PNSNews24.com

আপনার মন্তব্য প্রকাশ করুন
Developed by Diligent InfoTech