যে কারণে জাপানিদের প্রাপ্তবয়স্ক হওয়ার বয়সসীমা দুই বছর কমানো হলো!

  

পিএনএস ডেস্ক :জাপানে নতুন আইনে দুই বছর আগেই প্রাপ্তবয়স্ক হওয়ার সুযোগ পাচ্ছে তরুণ-তরুণীরা। দেশের সরকার ছেলে-মেয়েদের প্রাপ্তবয়স্ক হওয়ার বয়স ২০ বছর থেকে কমিয়ে ১৮ বছর করার বিল পাস করেছে। ২০২২ সাল থেকে কার্যকর হবে নতুন এ আইন। এতে সবচেয়ে বড় যে ব্যাপারটি ঘটবে তা হচ্ছে, ছেলে-মেয়েরা এখন ১৮ বছর বয়সেই বাবা-মায়ের অনুমতি ছাড়া বিয়ে করার এক্তিয়ার পাবে। ১৮৭৬ সালে জাপানে প্রাপ্তবয়স্ক হওয়ার বয়স নির্দিষ্ট করে দেওয়ার পর এই প্রথম তাতে পরিবর্তন আনা হল।

১৮ বছর বয়সীরা যেসব সুযোগ পাবে:
জাপানের বর্তমান আইন অনুযায়ী, ছেলেরা ১৮ বছরের পর এবং মেয়েরা ১৬ বছর বয়সের পর বিয়ে করতে পারে। কিন্তু সেজন্য তাদেরকে বাবা-মায়ের অনুমতি নিতে হয়। শুধুমাত্র ২০ বছর হওয়ার পর কেউ নিজের বিয়ের সিদ্ধান্ত নিজেই নিতে পারে। নতুন আইন কার্যকর হলে ১৮ বছর বয়সী সব ছেলে-মেয়েই নিজের বিয়ের সিদ্ধান্ত নিজে নেওয়ার সুযোগ পাবে।

এছাড়া, বাবা-মায়ের অনুমতি ছাড়া তারা চাইলে ক্রেডিট কার্ড বা ব্যাংক থেকে ঋণও নিতে পারবে। প্রাপ্তবয়স্ক হওয়ার পর তারা নিজেদের পাসপোর্ট পাবে, যার মেয়াদ হবে ১০ বছর।

জাপানে বর্তমানে অপ্রাপ্তবয়স্করা পাঁচ বছর মেয়াদে পাসপোর্ট পায় এবং এজন্য বাবা-মা বা আইনি অভিভাবকের স্বাক্ষর প্রয়োজন হয়।

নতুন আইন চালু হলে ‘জেন্ডার আইডেন্টিটি ডিসঅর্ডার’ এর চিকিৎসা চলছে এমন কেউ ১৮ বছর হওয়ার পর আইনগতভাবে নিজেদের লিঙ্গ পরিবর্তনের আবেদন করতে পারবে।

১৮ বছর বয়সীরা যা করতে পারবে না:
নতুন আইনে দুই বছর কমিয়ে প্রাপ্তবয়স্ক হওয়ার বয়স ১৮ করা হলেও কিছু কৌশলগত নিষেধাজ্ঞা আরোপ করা হয়েছে।

যেমন: ১৮ বছর হলেও তারা মদ্যপান, ধূমপান, জুয়া খেলা ও শিশু দত্তক নিতে পারবে না। এজন্য তাদের ২০ বছর বয়স হওয়া পর্যন্ত অপেক্ষা করতে হবে।

জনগণের প্রতিক্রিয়া:
নতুন বিলে প্রাপ্তবয়স্ক হওয়ার বয়স কমলেও কিছু নিষেধাজ্ঞা থাকায় সোশ্যাল মিডিয়াগুলিতে বিশেষ করে তরুণ প্রজন্ম এটা নিয়ে খুব একটা খুশি হতে পারেনি।

এক টুইটার ব্যবহারকারীর প্রশ্ন, ‘তাহলে আমি ১৮ বছরে পড়ব এবং প্রপ্তবয়স্ক হব। কিন্তু আমি মদ্যপান করতে বা জুয়া খেলতে পারব না? এটি কিছু হল না’।

অন্য একজন লেখেন, ‘১৮ বছর হলে আমি ঋণ করতে পারব। কিন্তু মধ্যপানের উপর তখনও নিষেধাজ্ঞা থাকবে!’ জাপানে প্রতিবছর জানুয়ারিতে প্রাপ্তবয়স্ক হওয়া উপলক্ষ্যে উৎসব আয়োজন করা হয়। ওইদিন ছুটি থাকে এবং ২০ বছরের তরুণরা তাদের প্রাপ্তবয়স্ক হওয়াকে স্বাগত জানায়।

কি কারণে এই পরিবর্তন:
গত কয়েক দশক ধরেই জাপানে প্রাপ্তবয়স্ক হওয়ার বয়স নিয়ে বিতর্ক চলছে। ২০০৯ সালে ‘লেজিসলেটিভ কাউন্সিল অব দ্য মিনিস্ট্রি অব জাস্টিস’ থেকে প্রাপ্তবয়স্ক হওয়ার বয়স কমিয়ে ১৮ করার পরামর্শ দেওয়া হয়।

জাপানে জন্মহারের নিম্নগতির কারণে দেশটির মোট জনসংখ্যায় ৬০ বছরের বেশি বয়সের মানুষের সংখ্যা বাড়ছে।

প্রাপ্তবয়স্ক হওয়ার বয়স কমিয়ে দেওয়ায় তরুণ বয়সীদের মধ্যে সন্তান জন্মদানে উৎসাহ বাড়বে বলে আশা করা হচ্ছে। ২০১৫ সালে দেশটিতে ভোটার হওয়ার বয়সও ২০ থেকে কমিয়ে ১৮ করা হয়।

পিএনএস/এএ

 

@PNSNews24.com

আপনার মন্তব্য প্রকাশ করুন
Developed by Diligent InfoTech