ভারতের সংসদে নজিরবিহীন ঘটনা, আক্রমণের পর আলিঙ্গন - আন্তর্জাতিক - Premier News Syndicate Limited (PNS)

ভারতের সংসদে নজিরবিহীন ঘটনা, আক্রমণের পর আলিঙ্গন

  

পিএনএস ডেস্ক : ভারতের সংসদে আজ নজিরবিহীন ঘটনা ঘটেছে। প্রথমে কঠোর সমালোচনা পরে গোটা সংসদ ভবনকে হতচকিত করে দিয়ে রাহুল গান্ধী সংসদের অধিবেশন চলাকালীন আলিঙ্গন করেন নরেন্দ্র মোদীকে।

রাহুলের বক্তব্যের শেষটা ছিল এমন, আপানার আমাকে পাপ্পু বলে ডাকতে পারেন। কিন্তু আপনাদের জন্য আমার মনে এক ফোঁটাও ঘৃণা নেই। আমি কখনো আপনাদের জন্য ঘৃণার উদগীরণ করি না।

একজন হিন্দু বলতে এটাই বোঝায়। তবে রাহুলের এদিনের বক্তব্যের অনেকটা জুড়েই ছিল ব্যক্তিগত আক্রমণ। অন্যদিকে, লোকসভায় অনাস্থা প্রস্তাবের শুরুতেই বড় ধাক্কা খেল বিজেপি। রাহুলের এমন আচরণের কারণে তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে যাচ্ছে বিজেপি। তবে ঠিক কী ব্যবস্থা নেওয়া হবে সে প্রসঙ্গে এখনো কিছু জানায়নি দলটি।

ভারতের সংসদে আজকের গুরুত্বপূর্ণ ১১ তথ্য ১. রাহুল গান্ধী আজ তীক্ষ্ণতম আক্রমণের গোলা মোদীর দিকে ছুঁড়ে দেন। রাহুল বলেন, মোদী ভোটে জিতে বলেছিলেন তিনি দেশের মানুষের চৌকিদার। আর এখন তিনি ‘ভাগীদার’ হয়েছেন। রাহুল আরও বলেন, আমরা প্রত্যেকেই জানি ও বুঝতে পারি কয়েকজন ব্যবসায়ীর সঙ্গে মোদীজির কতটা ঘনিষ্ঠ সম্পর্ক।

রাফাল চুক্তি তেমন একজন ব্যবসায়ীর হাতেই তুলে দেওয়া হয়েছিল। যার ফলে তার কয়েক হাজার কোটি টাকা লাভ হয়। আমি দেখতে পাচ্ছি উনি (প্রধানমন্ত্রী) হাসছেন। কিন্তু, সেই হাসিতেও আতঙ্কের ছোঁয়া এবং এখন আর উনি আমার চোখের দিকে তাকাতে পারছেন না।

২. বিজেডি ও শিবসেনা ভোটদান থেকে বিরত থাকায় সাংসদদের সংখ্যা কমে দাঁড়াল ৪৯৫। সংখ্যাগরিষ্ঠতার জন্য আসন দরকার ২৪৯টি।

৩. সকালে টুইট করে আজকের বিতর্ককে ভারতীয় সংবিধানের একটি গুরুত্বপূর্ণ দিন বলে অভিহিত করেন মোদী।

৪. কংগ্রেস নেতা আনন্দ শর্মা বলেন, অনাস্থা ভোটের মঞ্চটি কেবলমাত্র সংখ্যার ওপর ভিত্তি করে দাঁড়িয়ে নেই। এই সরকারের ব্যর্থতা নিয়ে আলোচনাও এর একটি বড়ো উদ্দেশ্য। মানুষকে সত্যিটা জানানোই আমাদের লক্ষ্য।

৫. বিজেডির কক্ষত্যাগের পর তাদের এক সাংসদ তথাগত শথপথি বলেন, একদমই ঠিক সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। এছাড়া আমাদের আর কোনও উপায় ছিল না। আমরা বিজেপিকে সাহায্য করছি না।

৬. অনাস্থা প্রস্তাবের পক্ষে প্রথমে বলা শুরু করে তেলুগু দেশম। তবে কংগ্রেসের প্রধান বক্তা হলেন রাহুল গান্ধী।

৮. অতি গুরুত্বপূর্ণ এই অনাস্থা প্রস্তাব বিতর্কে প্রত্যেক বক্তাকে বক্তব্য পেশ করার জন্য অন্তত আধা ঘন্টা সময় দেওয়া উচিত বলে দাবি করেন কংগ্রেসের মল্লিকার্জুন খারগে।

৯. বিজু জনতা দলের পিনাকী মিশ্র বলেন, তারা সম্ভবত অনাস্থা ভোট থেকে নিজেদের দূরে সরিয়ে রাখবেন।

১০. অর্থনীতির সম্প্রসারণের ফলে যে সুবিধা পাওয়ার দাবি করেছিল অন্ধ্রপ্রদেশ, অনাস্থা ভোটের জন্য ওই বিষয়টি নিয়ে আলোচনা নির্ধারিত সময় থেকে সরিয়ে বুধবারই করে নেওয়া হয়।

১১. বিরোধী পক্ষের তরফ থেকে আসা অনাস্থা প্রস্তাবের বিরোধিতা এর আগে করলেও, এবারে বিজেপি কোনও বাধা দেয়নি।

সূত্র: এনডিটিভি

পিএনএস/জে এ

 

@PNSNews24.com

আপনার মন্তব্য প্রকাশ করুন
Developed by Diligent InfoTech