অবশেষে এনআরসি নিয়ে মুখ খুললেন নরেন্দ্র মোদি - আন্তর্জাতিক - Premier News Syndicate Limited (PNS)

অবশেষে এনআরসি নিয়ে মুখ খুললেন নরেন্দ্র মোদি

  

পিএনএস ডেস্ক :এনআরসি নিয়ে দেশবাসীকে আশ্বস্ত করে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি বলেছেন, এনআরসি তালিকায় একজন ভারতবাসীর নামও বাদ পড়বে না।

আসামের এনআরসি তালিকা প্রকাশের পরই বিরোধী শাসক বিরোধ চরমে। বিরোধী দলগুলি বিজেপির বিরুদ্ধে একের পর এক অভিযোগ এনেছে। পাশাপাশি যে ৪০ লাখ ভারতীয় নাগরিক স্থান পাননি ওই তালিকায়। তাদেরকে হাতিয়ার করেই দেশের শাসক দলের বিরুদ্ধে একের পর এক অভিযোগ তুলেছে বিরোধী দলগুলো। যার মধ্যে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় একটি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা গ্রহণ করেন।

ভারতীয় গণমাধ্যম এএনআইকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কেও একহাত নেন মোদি। বলেন, যারা নিজেদের উপর আস্থা হারিয়ে ফেলছেন। তারাই এনআরসি তালিকাকে হাতিয়ার করে নিজেদের ভোটব্যাঙ্ক ভরাতে চাইছে। কিন্তু আমি দেশবাসীকে আশ্বস্ত করছি, একজন ভারতীয় নাগরিকের নামও এনআরসি তালিকা থেকে বাদ পড়বে না। যারা এই দেশের বাসিন্দা। তাদেরকে এই দেশ ছেড়ে যাওয়ার কোনও প্রয়োজন নেই। তাই এই তালিকা নিয়ে উদ্বেগ অপ্রয়োজনীয়।

শুধু জাতীয় নাগরিকপঞ্জী নিয়েই নয়। দেশে শ্লীলতাহানি কিংবা মহিলাদেরকে ধর্ষণের ঘটনা ক্রমশ বেড়ে চলেছে। এছাড়াও মাঝেমধ্যেই সংবাদ শিরোনামে উঠে আসে গণপিটুনির ঘটনা। সেই সমস্ত বিষয় নিয়েও এদিন সরব হলেন মোদি।

বলেন, এই ধরণের ঘটনাগুলি খুবই দুর্ভাগ্যজনক। রাজনীতির লড়াই থেকে বিরত থেকে সমাজের সকলকে জোটবদ্ধ হয়ে এই সমস্ত ঘটনাগুলির প্রতিবাদ করা উচিত।

২০১৯ সালের লোকসভা নির্বাচনে বিজেপিকে রুখতে ফেডারেল ফ্রন্ট। গঠনের পথে বিরোধী দলগুলো। তবে, তা নিয়ে একেবারেই ভীত নয় বিজেপি।

মোদির কথায়, কয়েকটি দল ছন্নছাড়া ভাবে জোট গঠনের পরিকল্পনা করছে। এটি কোনোদিনই সম্ভব নয়। রাজ্যসভার ডেপুটি চেয়ারম্যান পদ নিয়ে হওয়া ভোটাভুটিতেই বিষয়টি স্পষ্ট হয়ে গেছে যে, বিরোধী দলগুলোর মধ্যে কোনও পারস্পরিক সমঝোতাই নেই।

দেশজুড়ে কর্মসংস্থানে ব্যর্থ হয়েছে মোদি সরকার। একাধিকবার এই বিষয়টি নিয়ে বিরোধীদের তোপের মুখে পড়েছে বিজেপি।

মোদি বলেন, গত বছর ১ কোটি কর্মসংস্থান হয়েছে। এভাবেই আসতে আসতে কর্মসংস্থান আরও বাড়বে দেশজুড়ে। দেশের আর্থিক পরিস্থিতির বৃদ্ধি হয়েছে। জিএসটি লাগু হওয়ার পর জিডিপির হার বাড়ছে। তবুও গব্বর সিং ট্যাক্স বলে কটাক্ষ বিরোধীদের। জিএসটির পর ঘুরে দাঁড়িয়েছে আর্থিক বৃদ্ধি। কর ফাঁকি দেওয়ার প্রবণতাও এখন কমেছে।

পিএনএস/এএ

 

@PNSNews24.com

আপনার মন্তব্য প্রকাশ করুন
Developed by Diligent InfoTech