ধর্ষণের মূলহোতা সেনা সদস্য

  



পিএনএস ডেস্ক: ভারতের হরিয়ানা রাজ্যের একটি কোচিং সেন্টার থেকে বাড়ি ফেরার পথে বুধবার গণধর্ষণের শিকার হয়েছিল মাধ্যমিক পরীক্ষায় (সিবিএসই) সর্বোচ্চ নম্বরধারী ছাত্রী। তার বয়স ১৯ বছর।

২০১৫ সালে সিবিএসইতে দেশসেরা নম্বর পায় মেয়েটি। রাষ্ট্রপতি নিজ হাতে সম্মানিত করেছিলেন তাকে। প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদিও তার সঙ্গে সাক্ষাৎ করেছিলেন।

সে সময় তার বাবা-মাকে মোদি বলেছিলেন, ‘বেটি পড়াও, বেটি বাঁচাও’। সেই ‘বেটি’ ধর্ষণের ঘটনায় চাঞ্চল্যকর তথ্য প্রকাশ পেয়েছে।

হরিয়ানার ডিজিপি সন্ধু জানিয়েছেন, ওই তরুণীকে গণধর্ষণের ঘটনায় প্রধান অভিযুক্তে দেশটির সেনাবাহিনীর একজন সদস্য (জওয়ান)।

অভিযুক্ত সেনা সদস্য বর্তমানে রাজস্থানে কর্মরত। ডিজিপি আরও জানিয়েছেন, ওই জওয়ানের বিরুদ্ধে ওয়ারেন্ট জারির চেষ্টা করছে পুলিশ।

এছাড়াও অভিযুক্তকে গ্রেফতারের জন্য পুলিশের একটি দল ইতিমধ্যে রাজস্থানের উদ্দেশে রওনা দিয়েছে।

ডিজিপি জানিয়েছেন, এই ন্যক্কারজনক ঘটনায় জড়িত বাকি আরও দুই অভিযুক্তকেও গ্রেফতার করা হবে খুব শীঘ্রই। ওই অভিযুক্তদের খোঁজ দিতে পারলে এক লাখ টাকা পুরস্কার দেয়া হবে।

জানা যায়, দ্বিতীয় বর্ষের কলেজছাত্রী কোচিং সেন্টারে যাওয়ার সময় তিনজন ব্যক্তি তাকে অপহরণ করে একটি মাঠের মধ্যে নিয়ে যায়। সেখানে তাকে একের পর এক ধর্ষণ করা হয়।

মাঠে আগে থেকেই আরও কয়েকজন উপস্থিত ছিল; তারাও এসে ধর্ষণ করে ওই কলেজপড়ুয়াকে। নির্যাতিতার গ্রামেরই বাসিন্দারা তাকে ধর্ষণ করে এবং মুখ না খোলার হুমকি দেয় বলে পুলিশের কাছে জানায় সে।

পিএনএস/হাফিজুল ইসলাম

 

@PNSNews24.com

আপনার মন্তব্য প্রকাশ করুন
Developed by Diligent InfoTech