খাশোগি খুনের চূড়ান্ত সত্য বের করার ঘোষণা দিয়েছেন এরদোয়ান

  

পিএনএস ডেস্ক : সৌদি আরবের খ্যাতনামা সাংবাদিক জামাল খাশোগির নিহতের ব্যাপারে চূড়ান্ত সত্য খুঁজে বের করা হবে বলে ঘোষণা দিয়েছেন তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রিসেপ তাইয়েপ এরদোয়ান।

গতকাল রবিবার ইস্তাম্বুলে এক সমাবেশে দেয়া ভাষণে এরদোয়ান বলেন, ‘আমরা সুবিচার খুঁজছি। খাশোগি হত্যায় যেনতেন পদক্ষেপ নয়, নগ্নসত্য প্রকাশে সর্বাত্মক পদক্ষেপ নেয়া হবে।’

সৌদি কনস্যুলেট ভবনে ব্যক্তিগত কাগজপত্র আনার প্রয়োজনে প্রবেশের পর সেখানেই খাশোগিকে হত্যা করা হয় বলে গত শনিবার স্বীকার করে সৌদি সরকার। এর একদিন পরই বিবৃতিতে এমন ঘোষণা দিলেন এরদোয়ান।

এদিকে গতকাল রবিবার সৌদি পররাষ্ট্রমন্ত্রী আবদেল আল জুবায়ের খাশোগি হত্যার ঘটনাকে ‘সাংঘাতিক ভুল’ বলে অভিহিত করে বলেন, ‘দুর্বৃত্তরা এই অভিযান চালিয়েছে।’

ফক্স নিউজকে দেয়া এক তিনি সাক্ষাৎকারে বলেন, ‘সৌদি যুবরাজ মোহাম্মদ বিন সালমানের নির্দেশে খাশোগিকে হত্যা করা হয়নি। আমরা জানি না খাশোগির মৃতদেহ কোথায়।’

তবে তুর্কি সরকারের দাবি, গত ২ অক্টোবর দুটি উড়োজাহাজে করে সৌদি আরব থেকে ১৫ জন ইস্তাম্বুলে আসেন। তারা খাশোগি হত্যায় জড়িত।

সৌদি যুবরাজ মোহাম্মদ বিন সালমানের কট্টর সমালোচক ছিলেন সাংবাদিক জামাল খাশোগি। আমেরিকায় স্বেচ্ছা-নির্বাসনে থাকা প্রথিতযশা এই সাংবাদিক তার তুরস্কে থাকা বান্ধবীকে বিয়ের জন্য প্রয়োজনীয় কাগজপত্র আনতে গত ২ অক্টোবর (মঙ্গলবার) তুরস্কের ইস্তাম্বুল শহরের সৌদি কনস্যুলেটে যান। কিন্তু সেখান থেকে তিনি আর ফিরে আসেননি। কনস্যুলেটে প্রবেশের পর খাশোগিকে নির্মমভাবে হত্যা করা হয়েছে বলে বিভিন্ন গণমাধ্যমে খবর বেরিয়েছিলো।

এরইমধ্যে ইস্তাম্বুলে সৌদি আরবের কনস্যুলেটের ভেতরে সাংবাদিক জামাল খাশোগি খুন হয়ে থাকলে সৌদি আরবকে কঠোর শাস্তি ভোগ করতে হবে বলে হুঁশিয়ারি দিয়েছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প।

উল্লেখ্য, সৌদি যুবরাজ সালমানের ক্ষমতা গ্রহণের পর থেকে খাশোগি শূল নজরে পড়েন। এক পর্যায়ে তিনি দেশ ছেড়ে স্বেচ্ছা নির্বাসনে চলে যান যুক্তরাষ্ট্রে। সেখানে থেকে সালমানের কুকীর্তি নিয়ে ওয়াশিংট পোস্টে একের পর এক কলাম লিখতে থাকেন সাংবাদিক খাশোগি।

পিএনএস/এএ

 

@PNSNews24.com

আপনার মন্তব্য প্রকাশ করুন
Developed by Diligent InfoTech