ভারতে লোকসভা নির্বাচনে সবচেয়ে বিত্তবান প্রার্থী

  


পিএনএস ডেস্ক: রমেশ কুমার শর্মা (৬৩)। তিনিই হলেন ভারতের চলমান সপ্তদশ নির্বাচনে সবচেয়ে ধনী প্রার্থী। স্থাবর ও অস্থাবর মিলিয়ে তার সম্পদের পরিমান শুনলে চোখ কপালে উঠতে বাধ্য। হলফনামা অনুযায়ী তার মোট সম্পদের পরিমাণ ১,১০৭ কোটি রুপি। বিহারের পালিতপুরা লোকসভা কেন্দ্র থেকে স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসাবে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন রমেশ কুমার। শেষ ধাপে আগামী ১৯ মে ভারতে যে ৫৯ টি কেন্দ্রে নির্বাচন হতে চলেছে তার মধ্যে অন্যতম এই পালিতপুরা লোকসভা কেন্দ্র। তার প্রধান প্রতিপক্ষ বিজেপির বর্তমান সাংসদ রাম কৃপাল যাদব ও রাষ্ট্রীয় জনতা দল প্রার্থী মিশা ভারতী (লালু প্রসাদের কন্যা)।

রমেশের সম্পদের বেশিরভাগটাই নিয়োজিত রয়েছে নবি মুম্বাইয়ে কৃষিজমিতে। পেশায় চার্টার্ড ইঞ্জিনিয়ার রমেশ একটি বেসরকারি সংস্থায় কর্মরত। ২০১৯ সালে আর্থিক বছরে চাকরি থেকে তার আয় ৫.৮১ লাখ রুপি, ২০১৮ সালে ৫.৯৩ লাখ, ২০১৭ সালে ৬.৯৫ লাখ, ২০১৬ সালে ৪.৬৫ লাখ এবং ২০১৫ সালে ৪.৭৮ লাখ রুপি।

তার ১,১০৭ কোটি সম্পদের মধ্যে অস্থাবর সম্পত্তির পরিমাণ ৭.০৮ কোটি রুপি, আর স্থাবর সম্পত্তির পরিমাণ ১,১০০ কোটি রুপি। অস্থাবর সম্পত্তি হিসাবে রমেশের হলফনামা অনুয়ায়ী নগদ অর্থ ৫৫ হাজার রুপি, ব্যাঙ্কে জমাকৃত অর্থ ১৪,৯৪৩ রুপি, স্থায়ী আমানত ১,৭৩ লাখ রুপি, ইক্যুইটি শেয়ার ২.৫ কোটি ৩.৫ কোটি রুপির মিউচ্যুয়াল ফান্ড।

স্থাবর সম্পদের মধ্যে নবি মুম্বাইয়ে রয়েছে প্রায় ৩৭ একরের কৃষি জমি। চাকরি থেকে রমেশের স্বল্প উপার্জনের কথা মাথায় রেখে অনেকই হয়তো ভাবতে পারেন যে তিনি হয়তো উত্তরাধিকার সূত্রে এই বিশাল পরিমাণ জমি পেয়েছেন কিন্তু আদৌ তা নয়। ৩৬.৯০ একর কৃষি জমির মধ্যে ৫.৪০ একর জমি উত্তরাধিকার সূত্রে পেয়েছেন রমেশ বাকী ৩১.৫০ একর জমি সম্পূর্ণ নিজের প্রচেষ্টায় একটু একটু করে তৈরি করেছেন তিনি।

হলফনামা অনুযায়ী, ১৯৯৭ থেকে ২০০২ সালের মধ্যে ১.৩১ কোটি রুপি দিয়ে এই বিপুল পরিমাণ জমি কেনে রমেশ। বর্তমানে যার বাজারমূল্য ১,০৭২ কোটি রুপি।

কৃষি জমি ছাড়াও মুম্বাইয়ে ছয়টি বাণিজ্যিক সম্পত্তি রয়েছে-১৯৮৪ থেকে ২০০৬ সালের মধ্যবর্তী সময়ে কেনা ওই সম্পত্তির মূল্য ছিল ১.২৯ কোটি রুপি-বর্তমানে যার বাজার মূল্য ১৬ কোটি রুপি। আছে তিনটি ফ্ল্যাট-এর মধ্যে দুইটি মুম্বাইয়ের ভাসি ও নবি মুম্বাই এলাকায়, একটি গুজরাটের ভাবনগরে। বর্তমানে এই তিনটি ফ্ল্যাটের বাজার মূল্য ১২.৫ কেটি রুপি।

রমেশ কুমারের নিজের গহনা বলতে ১৫ লাখ রুপির (৫০০ গ্রাম) স্বর্ণের বিভিন্ন অলঙ্কার। বিপুল সম্পদের এই মালিকের বিরুদ্ধে না আছে কোন এফআইআর, না কোন ফৌজদারি মামলা। কোনও দেনাও নেই। রমেশের মোট গাড়ির সংখ্যা নয়টি-যার কোনওটিই বিদেশ থেকে আমদানিকৃত নয়।

কিন্তু হঠাৎ করে তার নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করার ইচ্ছা প্রকাশ নিয়ে রমেশ কুমার জানান, প্রধানমন্ত্রীর পদ থেকে নরেন্দ্র মোদিকে সরানোরই তার প্রথম ও প্রধান লক্ষ্য। নোট বাতিলের নামে মোদি সাধারণ মানুষের কাছ থেকে অর্থ নিয়েছেন। দেশের সর্বত্রই অপরাধ সংগঠিত হচ্ছে এবং তারা রুপি লুট করছে। তাই আমি এই মিথ্যাবাদী মোদির বিরুদ্ধে লড়াই করছি।

এবার এই কেন্দ্র থেকে জয়ের ব্যাপারে শতভাগ আত্মবিশ্বাসী রমেশ। চলতি লোকসভা নির্বাচনে প্রথম পাঁচজন ধনী প্রার্থীর মধ্যে রমেশ শর্মা ছাড়া বাকি চারজনই কংগ্রেসের। তেলেঙ্গানার চেভেল্লা কেন্দ্রে কোন্ডা বিশ্বেশ্বর রেড্ডি (মোট সম্পদের পরিমাণ ৮৯৫ কোটি রুপি), মধ্যপ্রদেশের ছিন্দওয়ারা কেন্দ্রে নকুল নাথ (৬৬০ কোটি রুপি), তামিলনাড়ুর কন্যাকুমারীকা কেন্দ্রে বসন্তকুমার এইচ (৪১৭ কোটি রুপি), মধ্যপ্রদেশের গুনা কেন্দ্রে জ্যোতিরাদিত্য সিন্ধিয়া (৩৭৪ কোটি রুপি)।

পিএনএস/আনোয়ার

 

@PNSNews24.com

আপনার মন্তব্য প্রকাশ করুন