বিবিসি'কে সাক্ষাৎকার দেয়ার পরদিনই কাশ্মীরী নেতাকে আটক

  

পিএনএস ডেস্ক : ভারত শাসিত কাশ্মীরের একজন সুপরিচিত রাজনীতিবিদ শাহ ফয়সালকে দিল্লি থেকে গ্রেপ্তার করে কাশ্মীরে পাঠানো হয়েছে। এক সময় আগে কূটনীতিক হিসাবে কাজ করা এই নেতা ব্রিটিশ সংবাদ মাধ্যম বিবিসিকে সাক্ষাৎকার দেয়ার পরই গ্রেপ্তার করা হয়েছে বলে অভিযোগ উঠেছে।

শাহ ফয়সালকে বুধবার দিল্লি বিমানবন্দরে আটক করা হয়। সেসময় তিনি একটি বিমানে উঠতে যাচ্ছিলেন। ইতিমধ্যে কাশ্মীর অঞ্চলে আটক করা হয়েছে শত শত নেতা-কর্মীকে। অবশেষে ওই তালিকায় যুক্ত হলেন শাহ ফয়সালও। কাশ্মীরের বিশেষ মর্যাদা বাতিল করার সিদ্ধান্ত ঘোষণার আগেই এসব নেতাদের অধিকাংশকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।

ভারতের কর্তৃপক্ষ অবশ্য দাবি করেছে, ওই অঞ্চলে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে রাখতে কাশ্মীরি নেতাদের বিরুদ্ধে এ ধরনের অভিযান পরিচালনা করতে হয়েছে।

এদিকে কাশ্মীরের বিশেষ মর্যাদা কেড়ে নেয়ায় ভারতের সমালোচনা করেছে পাকিস্তান। ভারতের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান বলেছেন, জাতিসংঘের প্রতিশ্রুতি বাস্তবায়নে ব্যর্থ হওয়ার ফলে যুদ্ধের পরিস্থিতি তৈরি হলে তার জন্য দায়ী থাকবে বিশ্বের পরাশক্তিগুলো।

ভারতীয় কর্তৃপক্ষের বরাত দিয়ে সংবাদ সংস্থা পিটিআই জানায়, বুধবার দিল্লি থেকে তুরস্কে যাওয়ার উদ্দেশ্যে একটি বিমানে ওঠার সময় গ্রেপ্তার হন শাহ ফয়সাল। ভারত শাসিত কাশ্মীরের কোন অঞ্চলে তাকে নিয়ে যাওয়া হয়েছে, তা এখনো নিশ্চিতভাবে জানা যায়নি। তবে স্থানীয় গণমাধ্যম থেকে বলা হচ্ছে তাকেও গৃহববন্দি করা হয়েছে। কিন্তু বিবিসি এই তথ্য যাচাই করতে সক্ষম হয়নি।

মঙ্গলবার বিবিসি'র হার্ডটক অনুষ্ঠানের সাথে কথা বলার সময়ই গ্রেপ্তার হওয়ার আশঙ্কা প্রকাশ করেছিলেন ফয়সাল। তিনি বলেন, ‘আমি লজ্জিত যে, এমন একটা সময় আমি বাইরে রয়েছি যখন কাশ্মীরের সব নেতাই জেলে রয়েছেন।’

ওই অনুষ্ঠানে তিনি ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির সমালোচনা করে বলেছিলেন, জম্মু ও কাশ্মীরের বিশেষ মর্যাদা কেড়ে নিয়ে মোদি প্রকাশ্য দিবালোকে সংবিধানকে হত্যা করেছেন।

২০০৯ সালে ভারতের সিভিল সার্ভিস পরীক্ষায় প্রথম স্থান অর্জন করে প্রথমবার আলোচনায় আসেন শাহ ফয়সাল। প্রথম কাশ্মীরী হিসেবে তিনি ঐ পরীক্ষায় প্রথম স্থান অর্জন করেন।

এবছরের জানুয়ারি মাসে তিনি তার সরকারি চাকরি থেকে ইস্তফা দেন এবং নিজের রাজনৈতিক দল জম্মু অ্যান্ড কাশ্মীর পিপলস মুভমেন্ট গঠন করেন।

বিবিসি জানায়, কাশ্মীরের ওপর থেকে ৩৭০ ধারা বিলোপের আগে ও পরে কেবল রাজনৈতিক নেতাই নয়, বহু মানবাধিকার কর্মী, শিক্ষক এবং ব্যাবসায়ীদেরও আটক করা হয়েছে।

সূত্র: বিবিসি বাংলা

পিএনএস/জে এ

 

@PNSNews24.com

আপনার মন্তব্য প্রকাশ করুন
Developed by Diligent InfoTech