পাকিস্তানি ড্রোন ঠেকাতে মরিয়া ভারত, মাঠে নেমেছে ৫০০০ ফোর্স

  

পিএনএস ডেস্ক : গত সেপ্টেম্বর থেকে লাগাতার ড্রোন উড়িয়ে পাঞ্জাবে অস্ত্রশস্ত্র ফেলার ঘটনায় পুরোপুরি পাকিস্তানের হাত রয়েছে, এই বিষয়ে ভারতের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রণালয়কে সম্প্রতি রিপোর্ট দিয়েছে তাদের গোয়েন্দা সংস্থা। পাকিস্তান মদদপুষ্ট জঙ্গি সংগঠনগুলো পাঞ্জাবের খলিস্তানপন্থী জঙ্গি সংগঠনের সঙ্গে যোগাযোগ রাখছে এই বিষয়েও সতর্কতা জারি করেছে ভারতের জাতীয় তদন্তকারী সংস্থা (এনআইএ)। খবর দ্য ওয়ালের।

সম্ভাব্য জঙ্গি নাশকতার আশঙ্কায় শুক্রবার থেকেই পাঞ্জাব জুড়ে নিরাপত্তা আরও বাড়িয়ে দেওয়া হয়েছে। পাঠানকোট ও গুরদাসপুরের সীমান্তবর্তী এলাকায় জারি হয়েছে চূড়ন্ত সতর্কতা। পাকিস্তানের ড্রোন ঠেকাতে চিরুনি তল্লাশি শুরু করেছে প্রায় পাঁচ হাজার ফোর্স। যাদের মধ্যে রয়েছে পুলিশকর্মী, বিমানবাহিনীর সদস্য, সেনাবাহিনীর সদস্য, সীমান্তরক্ষী বাহিনী বিএসএফ এবং এনআইএ-র অফিসাররা।

পাঞ্জাব পুলিশের অ্যাডিশনাল ডিরেক্টর ঈশ্বর সিং এবং এডিজিপি (স্পেশাল অপারেশন গ্রুপ এবং কমান্ডো) রাকেশ চন্দ্রের তত্ত্বাবধানে তল্লাশি অভিযান শুরু হয়েছে রাজ্য জুড়ে। পাঞ্জাব পুলিশের প্রধান দীনকর গুপ্ত জানিয়েছেন, ড্রোন উড়িয়ে পাঞ্জাবে গত মাসে দশটি অস্ত্র ফেলা হয়েছিল। জঙ্গিদের হাতে পৌঁছে দেওয়ার লক্ষ্যেই ওই সব আধুনিক আগ্নেয়াস্ত্র ফেলা হয়েছিল। যাতে জঙ্গিরা ওই অস্ত্রশস্ত্র নিয়ে জম্মু-কাশ্মীরে হামলা চালাতে পারে। তিনি জানিয়েছেন, শনিবার দিনভর অভিযান চালাবে বিমানবাহিনী, বিএসএফ ও ভারতের গোয়েন্দা সংস্থাগুলো।

এর আগে, গত বুধবার সন্ধ্যাবেলা পাঞ্জাবের ফিরোজপুরের আকাশে বিএসএফ এই ড্রোন দেখতে পান। বুধবার সন্ধ্যা ৭টা ২০ মিনিটে হাজারসিংওয়ালা গ্রামের আকাশে ওই ড্রোন দেখা যায়। তারপর রাত ১০টা ১০ মিনিটে ফের টেন্ডিওয়ালা গ্রামের আকাশেও ড্রোন উড়তে দেখা গিয়েছে। এর আগে, সোমবার রাতে তিনবার ড্রোন দেখা যায়। মাঝরাতের দিকে অবশ্য উধাও হয়ে যায় ড্রোনটি। ওই একই রাতে বিএসএফ সীমান্তের কাছে আরও ড্রোন লক্ষ্য করেন। এক সপ্তাহের মধ্যে এতবার পাকিস্তানি ড্রোন দেখা যাওয়ায় সতর্কবার্তা জারি করা হয় সীমান্তে।

পিএনএস/মো. শ্যামল ইসলাম রাসেল

 

@PNSNews24.com

আপনার মন্তব্য প্রকাশ করুন