বিয়ের ১৪দিন পর স্বামী জানলেন তার 'স্ত্রী' পুরুষ!

  

পিএনএস ডেস্ক : উগান্ডার একটি মসজিদের ইমাম ছিলেন তিনি। তার নাম মহম্মদ মুতুম্বা। দুই সপ্তা আগে মহাধুমধামে বিয়ে করেছিলেন তিনি। এমনকি নতুন বউয়ের সঙ্গে সংসারও করছিলেন। কিন্তু সম্প্রতি সে সংসার ভেঙে যায়।

কারণ তার ‘বউ’ আসলে একজন পুরুষ! আর এ কারণেই এই বিয়ে ভেঙে যাওয়া বলে দাবি করছেন ওই ইমাম। ব্রিটিশ ট্যাবলয়েড ডেইলি মেইলের প্রতিবেদনে এ কথা বলা হয়েছে।

‘বউ’ যে নারী নন, তা বুঝতেই পারেননি বলে দাবি করেছেন মুতুম্বা। কিন্তু তিনি ধরা পড়ে যান এক প্রতিবেশীর কাছে। অভিযোগ, তার স্ত্রী এক প্রতিবেশীর ঘরে চুরি করতে যান। চুরি কার শেষে পাঁচিল টপকানোর সময় তাকে দেখে ফেলেন প্রতিবেশীরা। এ ঘটনাটি স্থাণীয় থানায় অভিযোগ করা হয়। সেখানেই এক নারী কনস্টেবল তার দেহ তল্লাশি করতে গিয়ে দেখেন হিজাব পরা ইমামের ‘বউ’ আসলে একজন পুরুষ।

বিষয়টি নিয়ে মুতুম্বা সংবাদমাধ্যমে জানিয়েছেন, বিয়ের আগে মসজিদেই কাজ করতেন তার ‘স্ত্রী’। তার গলার স্বর অন্যান্য নারীদের মতোই ছিল। হিজাব পরতেন তিনি। এমনকি চালচলনেও নারীদের সঙ্গে কোনও পার্থক্য ছিল না তার। মুতুম্বার এই ঘটনায় তাজ্জব বনে যান তার বন্ধু ও প্রতিবেশীরাও।
কিন্তু বিয়ের পরও কেন মুতুম্বা বুঝলেন না তার স্ত্রী মহিলা নয়? এ ব্যাপারে তার এক বন্ধু জানিয়েছেন, বিয়ের পরও স্বামীর সঙ্গে ঘনিষ্ঠ হতে চাইতেন না তিনি। বিয়ের পর মুতুম্বাকে তিনি বলেছিলেন, ঋতুস্রাবের সমস্যা থাকায় ঘনিষ্ঠ হতে পারবে না। এ কথাই সরল মনে বিশ্বাস করেছিলেন মুতুম্বা।

পুলিশের জেরার মুখে অভিযুক্ত তার আসল নাম জানিয়েছেন। তিনি এও জানিয়েছে, মুতুম্বার অর্থ হাতানোর জন্যই তাকে বিয়ে করেছিলেন তিনি। আর এই ঘটনার জেরে ইমামের পদও হারাতে হয়েছে মুতুম্বাকে।

পিএনএস/মোঃ শ্যামল ইসলাম রাসেল


 

@PNSNews24.com

আপনার মন্তব্য প্রকাশ করুন