করোনার চিকিৎসায় ভারতে ডেক্সামেথাসনের অনুমোদন

  

পিএনএস ডেস্ক : প্রাণঘাতী করোনাভাইরাসে আক্রান্তদের চিকিৎসায় স্টেরয়েড ডেক্সামেথাসন ওষুধ ব্যবহারের অনুমোদন দিয়েছে ভারত। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা অনুমোদিত এ ওষুধটি করোনার চিকিৎসায় বেশ কার্যকর ও সাশ্রয়ী হওয়ায় এটি ব্যবহারে ছাড়পত্র দিয়েছে দেশটির কেন্দ্রীয় সরকার।

এতদিন আথ্রাইটিসের মতো জটিল রোগীদের যন্ত্রণা উপশমে ব্যবহৃত হতো ডেক্সামেথাসন। এছাড়া ক্যান্সারে আক্রান্তদেরও এ ওষুধটি দেয়া হয়ে থাকে। এবার সে ডেক্সামেথাসন প্রয়োগ করা হবে করোনায় আক্রান্তদের ওপর। তবে কর্তৃপক্ষের বরাত দিয়ে এনডিটিভি ও টাইমস অব ইন্ডিয়া জানিয়েছে, মাঝারি ও বেশি মাত্রায় অসুস্থদের ক্ষেত্রেই এ স্টেরয়েড ব্যবহার করা যাবে।

এর আগে প্রাণঘাতী এ ভাইরাসে আক্রান্তদের চিকিৎসায় রেমডেসিভির ব্যবহারের অনুমোদন দেয় ভারত। অ্যান্টিভাইরাল রেমডেসিভিরের ভারতীয় সংস্করণ ‘কোভিফর’ ইতিমধ্যে দেশটির সংক্রমণপ্রবণ কয়েকটি রাজ্যে পৌঁছেছে। দ্বিতীয় পর্যায়ে এ ওষুধ কলকাতায় আসার কথা।

রেমডেসিভিরের পর এবার ডেক্সামেথাসন ব্যবহারের সিদ্ধান্ত হয়েছে। তবে এ দুটি ওষুধের কোনোটিই সরাসরি করোনার ওষুধ নয়। যদিও ওষুধ দুটি আক্রান্তদের ওপর প্রয়োগ করে আশাব্যঞ্জক ফল মিলেছে বলে জানিয়েছেন চিকিৎসা বিজ্ঞানীরা।

যুক্তরাজ্যের ১৭৫টি হাসপাতালে সাড়ে ১১ হাজার রোগীর ওপর ডেক্সামেথাসন প্রয়োগের গবেষণা চালিয়ে বেশ সাফল্যের মুখ দেখেছে অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়।

দেখা গেছে, অনেক কোভিড-১৯ রোগীর ক্ষেত্রে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতার অতিসক্রিয়তাও মৃত্যুর কারণ হয়েছে। এসব ক্ষেত্রে ‘ইমিউনো সাপ্রেসিভ’ হিসেবে কাজ করবে ডেক্সামেথাসন। অক্সফোর্ডের গবেষণায় ২৮ দিনে ১৭ ভাগ মৃত্যুহার কমাতে পেরেছে এ স্টেরয়েড।

পিএনএস/জে এ

 

@PNSNews24.com

আপনার মন্তব্য প্রকাশ করুন