এবার ট্রাম্পের ইউটিউব চ্যানেল এক সপ্তাহ স্থগিত

  

পিএনএস ডেস্ক : যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের ইউটিউব চ্যানেল অন্তত ৭ দিনের জন্য স্থগিত করেছে গুগল। তাদের নিয়ম ভেঙে সন্ত্রাসকে উস্কে দেয়ার অভিযোগে তার চ্যানেলটি বন্ধ করে দেয়া হয়। এ স্থগিতের সময় বাড়তে পারে বলে মঙ্গলবার জানিয়েছে প্রতিষ্ঠানটি। সিএনএন।

ইউটিউবের এক বিবৃতিতে মঙ্গলবার বলা হয়, সম্ভাব্য সহিংসতার আশঙ্কায় আমরা ডোনাল্ড ট্রাম্পের চ্যানেলে আপলোড করা নতুন ভিডিও সরিয়ে দিয়েছি। চ্যানেলটিতে সাময়িকভাবে নতুন কোনো কিছু আপলোড করা যাবে না। তবে ৭ দিন পর চ্যানেলটি চালু রাখার বিষয়টি বিবেচনা করা হবে।

এর আগে, সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুক, টুইটার ও ইন্সটাগ্রাম ট্রাম্পের অ্যাকাউন্ট বন্ধ করে দেয়। দেশটির পার্লামেন্ট ভবনে ট্রাম্প সমর্থকদের নজিরবিহীন হামলার ঘটনার পরপরই সোশ্যাল মিডিয়ায় তৎপর হন ট্রাম্প। বিক্ষোভকারীদের উদ্দেশ্যে ভিডিও বার্তায় ট্রাম্প বলেন, ‘আমি তোমাদের ভালোবাসি।’ এর পরপরই ফেসবুক ও টুইটার কর্তৃপক্ষ ট্রাম্পের অ্যাকাউন্ট বন্ধ করে দেয়। আর ভিডিও সরিয়ে নেয় ইউটিউব।

পার্লামেন্ট ভবনে ট্রাম্প সমর্থকদের নজিরবিহীন হামলা ও বিক্ষোভের ঘটনার মধ্যেই সোশ্যাল মিডিয়ায় কার্যত নিষ্ক্রিয় হয়ে পড়লেন বিদায়ী মার্কিন প্রেসিডেন্ট। ফেসবুক ও টুইটার কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের পোস্টের মাধ্যমে সহিংসতা উস্কে দেয়া হয়েছে। এমনই অভিযোগ করছে ব্যবহারকারীরা। এজন্য ট্রাম্পের টুইটার ১২ ঘণ্টা এবং ফেসবুক ২৪ ঘণ্টা বন্ধ রাখা হয়েছে। তবে টুইটার এক্ষেত্রে আরো কঠোর বার্তা দিয়েছে। কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, যদি ট্রাম্প বিতর্কিত টুইটগুলো মুছে না ফেলে তবে তার টুইটার অ্যাকাউন্ট সবসময়ের জন্য মুছে ফেলা হবে।

অপরদিকে ফেসবুক কর্তৃপক্ষ ট্রাম্পের পোস্ট সরানোর বিষয়ে জানিয়েছে, ওয়াশিংটনে সহিংস বিক্ষোভ দেশটির জন্য অপমানজনক। আমরা সবসময় উস্কানি নিষিদ্ধ করি এবং সহিংসতা বন্ধের আহ্বান জানাই। এজন্য প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের পোস্টটি সরিয়ে নেয়া হয়েছে। তার অ্যাকাউন্ট ২৪ ঘণ্টা বন্ধ রাখা হয়েছে। এতে চলমান সহিংসতার ঝুঁকি হ্রাস হবে।

পিএনএস-জে এ

 

@PNSNews24.com

আপনার মন্তব্য প্রকাশ করুন