যা যা বলেছেন খালেদা জিয়া

  

পিএনএস: জিয়া চ্যারিটেবল ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় ঢাকার বকশীবাজারে আলিয়া মাদ্রাসা মাঠে স্থপিত বিশেষ আদালতে আজ বৃহস্পতিবার ফৌজদারী কার্যবিধির ৩৪২ ধারায় জবানবন্দী দিয়েছেন বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া।

তার জবানবন্দী হুবহু তুলে ধরা হলোঃ ‘বিসমিল্লহির রাহমানির রাহিম।’

‘মাননীয় আদালত।’
‘আসসালামু আলাইকুম।’
‘আমাদের স্বাধীনতা যুদ্ধে বিজয়ের মাস ডিসেম্বরের শুরুতে মহান শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে, বীর মুক্তিযোদ্ধাদের অবদানের কথা স্মরণ করে আমার কথা শুরু করছি।’

‘এদেশের জনগণের জন্য সাম্য, মানবিক মর্যাদা ও সামাজিক ন্যায়বিচার প্রতিষ্ঠা ছিল আমাদের স্বাধীনতার লক্ষ্য।’

‘শহীদ জিয়াউর রহমান সেই সব লক্ষ্য বাস্তবায়নের জন্যই স্বাধীনতার ঘোষণা দিয়েছিলেন।’

‘সেই সকল লক্ষ্য অর্জনের জন্য মানুষ অকাতরে জীবন দিয়ে স্বাধীনতার জন্য লড়াই করেছে।’

‘স্বাধীনতার সেই সব লক্ষ্য আজ পদদলিত।’

‘সারা জাতি আজ লাঞ্ছিত ও নির্যাতিত।’

‘সমগ্র বাংলাদেশকেই আজ এক বিশাল কারাগার বানানো হয়েছে।’

‘সবখানেই চলছে অস্থিরতা ও গভীর অনিরাপত্তাবোধ।’

‘মিথ্যা ও সাজানো মামলায় বিরোধী দলের হাজার হাজার নেতা-কর্মী এই মুহূর্তে কারাগারে বন্দী।’

‘বিএনপি’র প্রায় ৭৫ হাজার নেতা-কর্মী বিভিন্ন মেয়াদে কারা নির্যাতন ভোগ করেছেন।’

‘আমাদের দলের ৪ লাখের বেশি নেতা-কর্মীর বিরুদ্ধে ২৫ হাজারের মতো মামলা দায়ের করা হয়েছে।’

‘নির্যাতন, হয়রানি ও গ্রেপ্তারের ভয়ে বহু নেতা-কর্মী বাড়ি-ঘরে থাকতে পারেন না। পালিয়ে বেড়াচ্ছেন।’

‘গুম, খুন, অপহরণ ও নির্যাতনের শিকার হয়েছেন বিরোধী দলের অসংখ্য নেতা-কর্মী। তাদের ঘরে ঘরে আজ কান্নার রোল।’

‘এখন সংবিধান ও মুক্তিযুদ্ধের চেতনার কথা বড় বেশি বলা হয়। কিন্তু কোথায় আজ সাংবিধানিক শাসন’?

‘আমাদের সংবিধান নাগরিকদেরকে যে-সব অধিকার দিয়েছে, কোথায় আজ সে-সব অধিকার?’

‘কোথায় আজ সাম্য, মানবিক মর্যাদা ও সামাজিক ন্যায়বিচার।’

খালেদা জিয়া জবানবন্দী শুরু করার কিছুক্ষণ পরে সেটা পরবর্তী তারিখে অব্যাহত রাখার জন্য সুযোগ ও সময় চাইলে আদালত তা মঞ্জুর করে আগামী ৮ ডিসেম্বর পরবর্তী তারিখ নির্ধারণ করেন।

পিএনএস/মো: শ্যামল ইসলাম রাসেল

 

@PNSNews24.com

আপনার মন্তব্য প্রকাশ করুন
Developed by Diligent InfoTech