নিখোঁজ হওয়ার পর লেকহেডের মালিক গ্রেপ্তার

  


পিএনএস ডেস্ক: রাজধানীর লেকহেড গ্রামার স্কুলের মালিক খালেদ হাসান মতিনকে মহানগর গোয়েন্দা পুলিশ (ডিবি) গ্রেপ্তার করেছে। রবিবার বিকালের মধ্যে তাকে আদালতে তোলা হবে মহানগর গোয়েন্দা পুলিশ জানিয়েছে।

রবিবার দুপুরে ডিবি পুলিশ সংবাদ মাধ্যমকে এ তথ্য নিশ্চিত করেছে। পুলিশের দাবি, ধর্মীয় উগ্রবাদে অনুপ্রেরণা দেওয়া, জঙ্গি কার্যক্রমে পৃষ্ঠপোষকতা, স্বাধীনতাবিরোধী কার্যক্রম পরিচালনাসহ নানা অভিযোগ থাকায় তাকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।

এরআগে শনিবার বিকেল থেকে খালেদ হাসান মতিনকে খুঁজে পাওয়া যাচ্ছিল না। ওই ঘটনায় নিখোঁজ তার অফিসের স্টাফ ইদ্রিস আলী সন্ধ্যা সাড়ে সাতটার দিকে গুলশান থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি (জিডি নম্বর-১৩৭৮) করেন। গতক শনিবার বিকেল ৪টার দিকে সাদা পোশাকে সাত-আটজন তাকে গুলশানের কার্যালয় থেকে তুলে নিয়ে যায় বলে থানায় অভিযোগ করা হয়েছে।

জিডিতে অভিযোগ করা হয়, বিকেল চারটার দিকে সাদা পোশাকে সাত থেকে আটজন লোক এসে গুলশানের লেকহেড গ্রামার স্কুলের সামনে থেকে মতিনকে তুলে নিয়ে যায়।

প্রসঙ্গত, এই প্রতিষ্ঠানের মূল উদ্যোক্তা ও পৃষ্ঠপোষক রেজোয়ান হারুন সম্প্রতি লন্ডন থেকে ঢাকায় এসে লাপাত্তা হয়ে যান। এখন পর্যন্ত তাকে গ্রেপ্তার করতে পারেনি পুলিশ। রেজোয়ান হারুনের বিরুদ্ধে উগ্রবাদে অর্থায়ন ও মদদের অভিযোগ রয়েছে।

চলতি বছরের ২৩ জানুয়ারি শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের একটি প্রতিবেদনে রেজোয়ান হারুনকে আইনের আওতায় আনার নির্দেশনা দেওয়া হয়। গতবছর ৬ নভেম্বর ধানমণ্ডি ও গুলশানের দুটি শাখাসহ লেকহেড স্কুলের সব শিক্ষা কার্যক্রম বন্ধ করার নির্দেশ দেয় শিক্ষা মন্ত্রণালয়।

এর পরিপ্রেক্ষিতে স্কুল সিলগালা করে দেওয়া হয়। শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের যুগ্ম সচিব সালমা জাহান স্বাক্ষরিত এক চিঠিতে বলা হয়, প্রতিষ্ঠানটি সরকারের অনুমোদন নেয়নি। এ ছাড়া প্রতিষ্ঠানটি ধর্মীয় উগ্রবাদ, উগ্রবাদী সংগঠন সৃষ্টি, জঙ্গি কার্যক্রমের পৃষ্ঠপোষকতাসহ স্বাধীনতার চেতনাবিরোধী কর্মকাণ্ডে যুক্ত বলে চিঠিতে উল্লেখ করা হয়।

এরপর স্কুলের দুটি শাখাসহ লেকহেড গ্রামার স্কুলের সব কার্যক্রম বন্ধের বৈধতা চ্যালেঞ্জ করে হাইকোর্টে তিনটি রিট করা হয়। স্কুলের নতুন মালিক ও ১২ জন অভিভাবকের পক্ষে ব্যারিস্টার রাশনা ইমাম রিট দায়ের করেন।

পরে ঢাকার বিভাগীয় কমিশনারকে সভাপতি করে এবং সেনাবাহিনীর কর্মকর্তাদের নিয়ে পরিচালনা পর্ষদ করে স্কুলটি চালুর নির্দেশ দেন সর্বোচ্চ আদালত। গত বছরের নভেম্বরে ঢাকার ধানমন্ডি ও গুলশানে অবস্থিত লেকহেড গ্রামার স্কুল বন্ধ করে দেয় শিক্ষা মন্ত্রণালয়। পরে ঢাকার বিভাগীয় কমিশনারকে সভাপতি করে এবং সেনাবাহিনীর কর্মকর্তাদের নিয়ে পরিচালনা পর্ষদ করে স্কুলটি চালুর নির্দেশ দিয়েছিল সর্বোচ্চ আদালত।

২০০৬ সালে ধানমণ্ডির ৬/এ সড়কে প্রতিষ্ঠিত হয় লেকহেড গ্রামার স্কুল। গুলশানে এ স্কুলের দুটি শাখা আছে। ২০০৯ সালে হিযবুত তাহরীর নিষিদ্ধ হওয়ার পর স্কুলটি প্রথম আলোচনায় আসে বলে জানা গেছে।

পিএনএস/আনোয়ার

 

@PNSNews24.com

আপনার মন্তব্য প্রকাশ করুন
Developed by Diligent InfoTech