এসএ টিভির জিনাত জেরিনের বিরুদ্ধে করা মামলা খারিজ

  

পিএনএস ডেস্ক: প্রতারণা, অর্থ আত্মসাৎ এবং হত্যার অভিযোগে বেসরকারি টেলিভিশন চ্যানেল এসএ টিভির অনুষ্ঠান প্রধান ও মিডিয়া ব্যক্তিত্ব জিনাত জেরিন আলতাফের বিরুদ্ধে করা মামলা খারিজ করে দিয়েছেন মেট্রোপলিটন আদালত। এর ফলে, তিনি অভিযোগ থেকে খালাস পেয়েছেন বলে জানান আইনজীবী।

প্রতারণা, অর্থ আত্মসাৎ এবং হত্যার অভিযোগে জিনাত জেরিন আলতাফসহ পাচঁজনের বিরুদ্ধে ব্যবসায়ী আবু সাদাত মো. মোবিনের করা এক মামলার শুনানি নিয়ে ঢাকার মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট মো. হাবিবুর রহমানের আদালত মামলা খারিজ করে অভিযোগ থেকে খালাস করে রায় দেন।

এর আগে ২০১৬ সালে হত্যাচেষ্টা, প্রতারণা এবং অর্থ আত্মসাতের অভিযোগে জেরিন আলতাফসহ পাঁচজনের বিরুদ্ধে এই মামলা দায়ের করা হয়।

মামলার নথি ও আদালত সূত্রে জানা যায়, ২০১৭ সালের ৩ জুন থেকে এখন পর্যন্ত ১৩টি ধার্য তারিখে মামলার বাদী আদালতে উপস্থিত ছিলেন না। এরপর আদালত গত ২০১৮ সালের ১ অক্টোবর পত্রিকায় বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করার আদেশ দেন। এরপর থেকে ২০১৯ সালের ৪ এপ্রিল পর্যন্ত আরও ৩টি ধার্য তারিখে আদালতে উপস্থিত হননি মামলার বাদী। এর মধ্যে মামলার অপর চার আসামিকে আদালতে উপস্থিত করার জন্য বাদীকে পত্রিকায় বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করার জন্য নির্দেশ দেন।

কিন্তু তিনি বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ না করে এবং আদালতে উপস্থিত না হয়ে মামলার কালক্ষেপণ করেছেন বলে প্রতীয়মান হওয়ায় আদালত মামলা খারিজ করে দেন।

আসামিপক্ষের আইনজীবী বলেন, অভিযোগ দায়েরের পর আদালতে বাদীপক্ষের অনুপস্থিতি এবং তথ্য- প্রমাণ হাজিরে ব্যর্থতাই স্পষ্ট করে, শুধুমাত্র মানহানির উদ্দেশ্যে মিথ্যা তথ্য দিয়ে ওই মামলাটি দায়ের করা হয়েছে বলে আদালত রায়ের পর্যবেক্ষণে বলেছেন।

তিনি আরও জানান, আপন মেধা ও দক্ষতার কারণে বর্তমানে দেশের গণমাধ্যম জগতে যে কয়জন আলোকিত মানুষ রয়েছেন তাদের মাঝে অন্যতম জিনাত জেরিন আলতাফ। ব্রিটেনে পড়াশোনা করা এই মানুষটি গত দেড় দশক ধরে সুনামের সঙ্গে দেশের শীর্ষস্থানীয় বেশ কয়েকটি গণমাধ্যমে কাজ করে যাচ্ছেন।

ক্যারিয়ারের শুরুতেই মানবতাবিরোধী অপরাধে ফাঁসির দণ্ডপ্রাপ্ত জামায়াত নেতা নিজামী ও মুজাহিদের নেয়া সাহসী সাক্ষাৎকারগুলোর মধ্য দিয়ে আলোচনায় নিয়ে আসেন জেরিন আলতাফ। লন্ডন বাংলা টিভি, একুশে টেলিভিশনের পর বর্তমানে এসএ টিভির অনুষ্ঠান প্রধান হিসেবে কাজ করেছেন।

অর্থ আত্মসাৎ, হত্যাচেষ্টা ও প্রতারণা মামলায় জিনাত জেরিন আলতাফকে ২০১৭ সালের ১০ মার্চ আটক করে ধানমন্ডি থানা পুলিশ। এরপর তিনি আদালত থেকে জামিন নিয়ে মুক্তি পান।

পিএনএস/ হাফিজুল ইসলাম

 

@PNSNews24.com

আপনার মন্তব্য প্রকাশ করুন