সেদিন ‘একাই’ দিহানের ফাঁকা বাসায় গিয়েছিল আনুশকা

  

পিএনএস ডেস্ক : রাজধানীর কলাবাগানে ডলফিন রোডে ইফতেখার ফারদিন দিহানের বাসায় ঘটনার দিন একাই সেখানে গিয়েছিলেন মাস্টারমাইন্ড স্কুলের ‘ও’ লেভেল শিক্ষার্থী আনুশকা নূর আমিন। ঘটনার পর দিহান একাই গাড়িতে করে আনুশকাকে হাসপাতালে নিয়ে যায়। বাসার ভেতরে ও হাসপাতালে যাওয়ার সময় দিহানের সঙ্গে কেউ ছিল না।

দিহানদের বাড়ির দারোয়ান দুলাল মিয়া পুলিশ হেফাজতে জিজ্ঞাসাবাদে মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা কলাবাগান থানার পুলিশ পরিদর্শক আ ফ ম আসাদুজামানকে এসব তথ্য জানিয়েছেন।

এর আগে, গত বৃহস্পতিবার (৭ জানুয়ারি) ঘটনার পর থেকেই পলাতক ছিলেন দিহানের বাসার দারোয়ান দুলাল মিয়া। পরে গতকাল সোমবার (১১ জানুয়ারি) মামলার সাক্ষী হিসেবে দুলাল মিয়াকে পুলিশ হেফাজতে নেয়া হয়।

মঙ্গলবার (১২ জানুয়ারি) পুলিশ পরিদর্শক আ ফ ম আসাদুজামান এসব কথা বলেন।

তিনি বলেন, ‘আনুশকার ধর্ষণ ও হত্যা মামলায় অভিযুক্ত দিহান ১৬৪ ধারায় যে জবানবন্দি দিয়েছে আদালতে, এর পরিপ্রেক্ষিতে আমরা সাক্ষী হিসেবে দুলাল মিয়াকে হেফাজতে নিয়েছি। তাকে আমরা এখন আদালতে নিয়ে যাচ্ছি। যেহেতু দুলাল এই মামলার আসামি না, তাই সাক্ষ্য দেয়া শেষে তাকে ছেড়ে দেয়া হবে। দুলাল আমদের কিছু তথ্য দিয়েছে, তবে সে সাক্ষ্য দেবে বলে আমরা বিস্তারিত বলতে পারছি না। সাক্ষ্য দেয়া শেষে বিস্তারিত বলা যাবে।’

পুলিশকে যা বলছে দারোয়ান দুলাল: ঘটনার দিন সকাল থেকেই দুলাল দিহানদের বাসার গেটে ডিউটিতে ছিলেন। ওই দিন বাসায় দিহান ছাড়া আর কেউ নেই বলে জানতেন তিনি। আনুমানিক দুপুরের দিকে দিহানদের বাসায় একটি মেয়েকে (আনুশকা) সে যেতে দেখে। আনুশকা বাসার ভেতরে যাওয়ার আনুমানিক ১ ঘণ্টার মধ্যে তাকে অচেতন অবস্থায় দিহান বের করে গাড়িতে (হাসপাতালের উদ্দেশ্যে) করে চলে যায়। আনুশকা যখন দিহানদের বাসায় যায় তখন সে একাই ছিল এবং তাকে হাসপাতালের নেয়ার সময় দিহান ছাড়া আরও কেউ ছিল না।

এদিকে, মামলার এজাহারে ও মামলার তদন্তে এ ঘটনায় শুধুমাত্র দিহান জড়িত থাকার বিষয়টি উল্লেখ থাকলেও আনুশকার বাবা এখন দাবি করছেন, ঘটনা একা ঘটায়নি দিহান। তিনি অভিযোগ করে বলেছেন, আমার মেয়েকে যেভাবে পাশবিক নির্যাতন করা হয়েছে তা দিহানের একার পক্ষে সম্ভব না।

পিএনএস/এসআইআর

 

@PNSNews24.com

আপনার মন্তব্য প্রকাশ করুন