প্রাকৃতিক সৌন্দর্যঘেরা ফাতরার বন

  

পিএনএস: প্রাকৃতিক সৌন্দর্যঘেরা ফাতরার বনাঞ্চল। চারদিকে অপরূপ সবুজ বৃক্ষরাজির সমারোহ ও বিভিন্ন প্রজাতির পাখির গুঞ্জনে ফাতরার বন পর্যটকদের সহজেই আকৃষ্ট করে। সাগর, নদী ও প্রকৃতিপ্রেমীদের কাছে বিশাল এ বনাঞ্চল এখন ভ্রমণের একটি গুরুত্বপূর্ণ অংশ। এখানে অবসর যাপন ও পিকনিক পার্টির জন্যও রয়েছে বিশেষ ব্যবস্থা। বঙ্গোপসাগরের কোল ঘেঁষে বরগুনার তালতলী উপজেলার দক্ষিণাংশে কয়েক হাজার একরজুড়ে প্রাকৃতিকভাবে গড়ে ওঠেছে এ ম্যানগ্রোভ বনাঞ্চল।

প্রতিদিন দেশি-বিদেশি পর্যটকদের পদচারণায় বনাঞ্চলের বিভিন্ন স্পট মুখরিত থাকে। বন বিভাগ সূত্রে জানা যায়, প্রায় ১০ হাজার একর জায়গা নিয়ে গড়ে উঠেছে ফাতরার বন। প্রাকৃতিকভাবে এখানে জন্মেছে সুন্দরী, কেওড়া, ছইলা, গেওয়া, তাল, গজারি, বাইন, গোলপাতা, হোগল পাতা, কেওয়া পাতা, হেতাল গাছসহ গুল্ম জাতীয় বৃক্ষ। এছাড়া রয়েছে বানর, বন মোরগ, শিয়াল, বাঘডাঁস, ভোদর, খরগোশ, অজগরসহ বিভিন্ন বন্যপ্রাণী। এদিকে বনের ভিতর বাইরে ফকিরহাট, সোনাকাটা চরের খাল, নিশানবাড়িয়ার খাল, বেহুলার খাল, দোনার খাল, ফেচুয়ার খাল, ছোট চরের খাল, বড় চরের খাল ও গইয়ামতলার খালসহ অন্তত ছোট বড় বিভিন্ন নামের ২০টি লেক রয়েছে।

এসব লেকে আগত পর্যটকদের নৌকা ভ্রমণের একাধিক ট্যুরিস্ট বোট রয়েছে। ভ্রমণ শেষে একই দিনে কুয়াকাটায় ফিরে যাওয়া যায়। ইতিমধ্যেই পর্যটকদের বিনোদনের জন্য বন বিভাগের অর্থায়নে বিশাল এলাকাজুড়ে ইকোপার্ক তৈরি করা হয়েছে। তালতলী উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান মনিরুজ্জামান মিন্টু জানান, ফাতরার বন পর্যটন কেন্দ্র কুয়াকাটার অন্যতম একটি দর্শনীয় স্পট। প্রতি বছর হাজারো পর্যটক এখানে ঘুরতে আসেন।

তাই এ ব্যবসার সঙ্গে জড়িতরা পর্যটকদের বোটে করে বিভিন্ন দর্শনীয় স্থান ঘুরে দেখায়। যশোর থেকে কুয়াকাটা বেড়াতে আসা ব্যবসায়ী মনির হোসেন জানান, সুযোগ পেলেই কুয়াকাটায় ভ্রমণে আসি। তখনি ছুটে যাই ফাতরার বনাঞ্চলে। ওখানের সাজানো গোছানো প্রকৃতির অপরূপ দৃশ্য ঘুরে ঘুরে দেখি। সোনকাটা ফরেস্ট ক্যাম্প (ফাতরার) বিট অফিসার সজীব কুমার মজুমদার জানান, কুয়াকাটায় আসা পর্যটকরা প্রতিদিন এ বনে ঘুরতে আসে। পর্যটকদের আকৃষ্ট করতে ইতিমধ্যে গোল বাগান করা হয়েছে। এছাড়া সুন্দরবনে যেসব প্রজাতির গাছ আছে, তা এ বনে রয়েছে বলে তিনি জানান।


পিএনএস/বাকিবিল্লাহ্



 

@PNSNews24.com

আপনার মন্তব্য প্রকাশ করুন
Developed by Diligent InfoTech