শূকরের খাঁচায় বৃদ্ধ মাকে বছরের পর বছর আটকে রাখলো ছেলে!

  

পিএনএস ডেস্ক: ৯২ বছরের এক বৃদ্ধ মাকে বছরের পর বছর শূকরের খাঁচায় আটকে রেখেছিলো এক পাষণ্ড ছেলে ও তার বউ।

হদয়বিদারক এ ঘটনা ঘটেছে চীনের গুয়ানক্সিং প্রদেশে। ইন্টারনেটে খোঁয়ারের ভিতর ওই বৃদ্ধার ভিডিও ছড়িয়ে পড়লে পুলিশের নজরে আসে। পরে পুলিশ বৃদ্ধাকে উদ্ধার করে হাসপাতালে ভর্তি করেন। তার ছেলে ও ছেলের বউয়ের সঙ্গেও যোগাযোগ করার চেষ্টা করছেন তারা। পুলিশ বৃদ্ধাকে হাসপাতালে ভর্তি করেছেন। সুস্থ হলে তার কাছে থেকে বিস্তারিত জেনে পরবর্তী ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

সংবাদটি পিপলস ডেইলিসহ কয়েকটি জনপ্রিয় সংবাদমাধ্যম ফলাও করে প্রচার করা হয়েছে। সেখানে বৃদ্ধার বয়স ৯২ বছর বলা হয়েছে। সম্প্রতি বৃদ্ধার এ হৃদয়বিদারক ভিডিও চীনের জনপ্রিয় সামাজিক যোগাযোগ উইবুতে ছড়িয়ে পড়ে।

ভিডিওতে দেখা যায়, এক বৃদ্ধা একাটি লোহার খাঁচার ভেতরে বসে আছে। বাইরে থেকে খাঁচার গেটে দেওয়া আছে তালা।

ভেতরে শোয়ার জন্য কোনো বিছানা নেই। বৃদ্ধা একটি কাঠের উপর শুয়ে ঘুমান। শীত নিবারণের জন্য যথেষ্ট কাপড়ও সেখানে নেই। পরিবেশ খুবই স্যাঁতস্যেঁতে। একজন বৃদ্ধ মানুষের জন্য সেখানে বাস করা খুবই কষ্টকর। তাছাড়া তার শারীরিক অবস্থা দেখে মনে হয় অনেকদিন পেটপুরে খেতেও পারেননি তিনি। নিজের মাকে এভাবে খাঁচায় আঁটকে রাখার ভিডিও হাজার হাজার ইউজারের লাইক, কমেন্ট ও শেয়ারে ভাইরাল হয়ে ছড়িয়ে পড়ে।

তবে এখনও ঘটনার বিস্তারিত জানা যায়নি। বৃদ্ধার শারীরিক অবস্থার উন্নতি হলে পুলিশ তাকে জিজ্ঞাসাবাদ করে বিস্তারিত জানবেন। বৃদ্ধার জবানবন্দী অনুযায়ী পরবর্তী ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলে জানিয়েছে পুলিশ। ভিডিওটি এখন ইউটিউবসহ প্রায় সব সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়েছে। বৃদ্ধার এ হৃদয়বিদারক দৃশ্য দেখে অনেকে নানা রকম প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করেছেন।

একজন লিখেছেন, ‘তারা নিজেরা কী সেই শূকরের খাঁচায় বসবাস করতে পারবে।’ অর্থাৎ তিনি বোঝাতে চেয়েছেন, যারা বৃদ্ধাকে এ খাঁচায় পশুর মতো বন্দী করেছেন, তারা কী কখনো খাঁচায় বন্দী থাকতে পারবেন।

আবার আরেকজন লিখেছেন, ‘কষ্ট করে ছেলে লালনপালন করার উদ্দেশ কী?’ অর্থাৎ তিনি বলতে চেয়েছেন, মানুষ কত কষ্ট করে সন্তান লালন পালন করে। আর তার ফল কী এটা!


পিএনএস/আলআমীন

 

@PNSNews24.com

আপনার মন্তব্য প্রকাশ করুন
Developed by Diligent InfoTech