জুরাইনে অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদে বাধা

  

পিএনএস ডেস্ক : রাজধানীর জুরাইনের রেলগেটসংলগ্ন অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদে গিয়ে বাধার মুখে পড়েন রেলওয়ের কর্মকর্তারা। জাতীয় সংসদের সংরক্ষিত আসনের সরকারি দলীয় একজন সংসদ সদস্যের বাধার কারণে অভিযান সম্পন্ন করতে পারেননি তারা।

তবে আজ আবার ওই এলাকায় অভিযান চালানো হবে বলে রেলওয়ের কর্মকর্তারা জানিয়েছেন।

মঙ্গলবার সকাল সাড়ে ১০টায় রেলওয়ের ঢাকা বিভাগীয় স্টেট অফিসার এস এম রেজাউল করীমের নেতৃত্বে ভ্রাম্যমাণ আদালত রাজধানীর জুরাইনের রেলগেটসংলগ্ন এলাকায় অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ অভিযান শুরু করেন।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানিয়েছেন, কিছুক্ষণ অভিযান পরিচালনা করার পর রেলওয়ের জমিতে অবৈধভাবে গড়ে ওঠা ‘টিপটপ’ হোটেল ভাঙতে গেলে হঠাৎ সেখানে এসে হাজির হন স্থানীয় আওয়ামী লীগ নেত্রী ও সংরক্ষিত আসনের একজন এমপি।

বুলডোজার দিয়ে শ্রমিকেরা টিপটপ হোটেল ভাঙতে গেলে ওই নেত্রী হোটেলের মালিক-কর্মচারীদের সাথে নিয়ে বুলডোজারের সামনে বসে পড়েন। এ সময় দায়িত্বরত পুলিশ সদস্যসহ রেলওয়ের স্টেট অফিসার তাকে সরে যাওয়ার জন্য বারবার অনুরোধ করেন। স্টেট অফিসার এস এম রেজাউল করীম ওই নেত্রীকে বলেন, মাডাম, আপনি এভাবে সরকারি কাজে বাধা দিতে পারেন না। একজন সংসদ সদস্য হয়ে আপনি অন্যায় কাজ করছেন। আপনি বুলডোজারের সামনে থেকে সরে যান।

আমাকে সরকারি নির্দেশ পালন করতে দিন। এ কথা শুনে এমপি ক্ষিপ্ত হয়ে ওঠেন, উচ্চেঃস্বরে বলতে থাকেন, আমি সরকারের প্রতিনিধি। আমি বলছি, আপনারা পুলিশ নিয়ে চলে যান। আমি বেঁচে থাকতে এখানে কোনো স্থাপনা ভাঙতে পারবেন না। এ কথা বলে তিনি নিজে টিপটপ হোটেলের সামনে চেয়ার নিয়ে বসে পড়েন। এর মধ্যে রেলওয়ের জমিতে অবৈধভাবে গড়ে তোলা দোকান মালিকেরা ওই নেত্রীর পক্ষে স্লোগান দিতে থাকেন।

এ খবর ছড়িয়ে পড়লে হোটেলসহ সব অবৈধ স্থাপনা ভাঙার পক্ষে অবস্থান নিয়ে এলাকাবাসীসহ স্থানীয় আওয়ামী লীগ ও জাতীয় পার্টির কয়েক শ’ নেতাকর্মী জড়ো হয়ে উচ্ছেদ অভিযানের পক্ষে স্লোগান দিতে থাকেন। দুই পক্ষের মুখোমুখি অবস্থানের একপর্যায়ে শতাধিক পুলিশ এসে পরিস্থিতি সামাল দেয়ার চেষ্টা চালায়। পুলিশের ওয়ারী বিভাগের ডিসি এম ফরিদ উদ্দীন পোস্তগোলায় উপস্থিত হয়ে ওই এমপিকে সরে যাওয়ার জন্য ফের অনুরোধ করেন। কিন্তু ডিসির কথায়ও তিনি বুলডোজারের সামনে থেকে সরে না যাওয়ার কারণে উচ্ছেদ অভিযান বন্ধ করে দিতে বাধ্য হন রেলওয়ের দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তারা। তবে পরে তারা এলাকায় মাইকিং করে জানিয়ে দেন বুধবার ওই এলাকায় আবার অভিযান চালানো হবে।

রেলওয়ের কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, ঢাকা-নারায়গঞ্জ ডাবল রেললাইন সম্প্রসারণ করা হবে। এ জন্য রাজধানীর টিটিপাড়া থেকে নারায়ণগঞ্জ স্টেশন পযর্ন্ত রেল লাইনের দুই পাশে গড়ে ওঠা অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ করা হচ্ছে। টিটিপাড়া থেকে জুরাইন পযর্ন্ত বিনা বাধায় উচ্ছেদ অভিযান পরিচালনা করা গেলেও জুরাইনে বারবার বাধার মুখে পড়ছে রেলওয়ে কর্তৃপক্ষ। এর আগেও দুই বার জুরাইনের টিপটপ হোটেল উচ্ছেদ করার সময় বাধা দেন আওয়ামী লীগের ওই স্থানীয় নেত্রী। এ নিয়ে এলাকায় অসন্তোষ বিরাজ করছে।

পিএনএস/হাফিজুল ইসলাম

 

@PNSNews24.com

আপনার মন্তব্য প্রকাশ করুন
Developed by Diligent InfoTech