চোখের জলে দুই বিচারপতিকে স্মরণ

  

পিএনএস : শ্রদ্ধা, ভালবাসা আর চোখের জলে সুপ্রিম কোর্টের সদ্যপ্রয়াত দুই বিচারপতিকে স্মরণ করলেন তার সহকর্মী ও আইনজীবীরা। বৃহস্পতিবার (১২ জানুয়ারি) সন্ধ্যায় সুপ্রিম কোর্ট অডিটোরিয়ামে সিলেট বিভাগীয় আইনজীবী পরিষদ আয়োজিত স্মরণসভায় পরিবেশ এতে ভারি হয়ে ওঠে।

সদ্যপ্রয়াত আপিল বিভাগের বিচারপতি মোহাম্মদ বজলুর রহমান ও হাইকোর্ট বিভাগের বিচারপতি জে এন দেব চৌধুরীর স্মরণে এ সভার আয়োজন করে।

সহকর্মীকে হারিয়ে স্মরণসভায় অশ্রু ঝরিয়েছেন বিচারপতিরা। কেঁদেছেন আপিল বিভাগের জ্যেষ্ঠ বিচারপতি মো. আবদুল ওয়াহহাব মিঞা এবং হাইকোর্টের বিচারপতি মো. মিফতাহ উদ্দিন চৌধুরী ও বিচারপতি এম. ইনায়েতুর রহিম। তাদের কান্না ও আবেগপ্রবণ বক্তব্যে আবেগাপ্লুত হয়ে পড়েন উপস্থিত আইনজীবীরা।

প্রধান অতিথি হিসেবে প্রধান বিচারপতি সুরেন্দ্র কুমার সিনহার উপস্থিত থাকার কথা ছিল। তবে তার শারীরিক অসুস্থতার কারণে তিনি অনুষ্ঠানে উপস্থিত হতে পারেননি। তাই আপিল বিভাগের জ্যেষ্ঠ বিচারপতি মো. আবদুল ওয়াহহাব মিঞা প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন।

তিনি বলেন, অনেকের রাজনৈতিক ধ্যান ধারণা থাকতে পারে। দুর্বলতাও থাকতে পারে। কিন্তু বিচারপতি হওয়ার পর সেটা ধরে রাখা ঠিক না। বিয়েসহ বিভিন্ন অনুষ্ঠানে গিয়েছি। কিন্তু কাউকে বলতে শুনিনি বজলুর রহমান তার রায়ে সেটার প্রতিফলন করেছেন। কারণ এক সময়ের তুখোড় ছাত্রলীগ নেতা বজলুর রহমান ছিলেন সৎ, এটাই তার প্রকৃষ্ট উদাহরণ।

তিনি আরও বলেন, জেন এন দেব চৌধুরী ছিলেন দেওয়ানী মামলায় অভিজ্ঞ। তার বাবা সিলেটের বিখ্যাত দেওয়ানী আইন বিশেষজ্ঞ জিতেন্দ্র নারায়ণের কাছ থেকে সব অমায়িকতা শিখেছেন। কিন্তু সেটা দেখানোর সুযোগ পাননি। যদি বেঁচে থাকতেন তাহলে সেটা সবাই দেখতো পেতো।

আয়োজক সংগঠনের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি এম খালেদ আহমেদের সভাপতিত্বে সভায় আরও বক্তব্য রাখেন হাইকোর্ট বিভাগের বিচারপতি সৈয়দ মোহাম্মদ দস্তগীর হোসেন, সুপ্রিম কোর্ট বারের সভাপতি ইউসুফ হোসেন হুমায়ুন, হাইকোর্ট বিভাগের সাবেক সভাপতি নজরুল ইসলাম চৌধুরী, বারের সাবেক সভাপতি জয়নুল আবেদীন, সাবেক আইনমন্ত্রী আবদুল মতিন খসরু, মাহবুব আলী এমপি, বারের সম্পাদক মাহবুব উদ্দিন খোকন, হাইকোর্ট বিভাগের বিচারপতি মিফতাহ উদ্দিন চৌধুরী রুমি, বিচারপতি এম ইনায়েতুর রহিম ও বিচারপতি খিজির আহমেদ চৌধুরী।

চাঁপাইনবাবগঞ্জের কৃতিসন্তান আপিল বিভাগের বিচারপতি মোহাম্মদ বজলুর রহমান ছানা গত ১ জানুয়ারি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয় হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান। পরদিন সকালে সুপ্রিম কোর্ট চত্বরে এবং দুপুরে চাঁপাইনবাবগঞ্জ শহরের খালঘাট কেন্দ্রীয় ঈদগাহ ময়দানে জানাজা অনুষ্ঠিত হয়। এরপর চাঁপাইনবাবগঞ্জ শহরের খালঘাট কবরস্থানে তাঁকে দাফন করা হয়।

বিচারপতি জে এন দেব চৌধুরী গতবছর ১৫ ডিসেম্বর বিকেলে স্কয়ার হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান। ওই দুই বিচারপতিই সুপ্রিম কোর্টের আপিল বিভাগে কর্মরত অবস্থায় মৃত্যুবরণ করেন। কর্মরত অবস্থায় এ দুই বিচারপতির স্মরণে গত ২ জানুয়ারি সুপ্রিম কোর্টে সাধারণ ছুটি পালিত হয়।

পিএনএস/মো: শ্যামল ইসলাম রাসেল


 

@PNSNews24.com

আপনার মন্তব্য প্রকাশ করুন
Developed by Diligent InfoTech